চকরিয়া ভাগিনার ফোনে মামা লাশ

 

মোঃ নাজমুল সাঈদ সোহেল,চকরিয়া।

 

কক্সবাজারের চকরিয়া পৌরসভার ৭ নং ওয়ার্ড়ের পূর্ব নিজপানখালী ( মৌলভীরকুম বাজার) এলাকার মৃত ধলামিয়ার পুত্র মোহাম্মদ আজিজ ড্রাইভার নিহত হন।৮/১০/১৭  রাতে ভাগিনা মনু প্রকাশ (ব্রীফকেস মনু)মোবাইলে ফোনের মাধ্যমে বাড়ী থেকে বের হয় রাত ১১:০০ঘটিকার সময়।সকালে স্ত্রী পাশবর্তী হোছন নামের এক যুবকের মাধ্যমে সংবাদ পায় হাসপাতালে তার স্বামীর মৃত লাশ।

স্ত্রী সাথে আলাপকালে জানান, ভাগিনা মনু সন্ধা ৫টার দিকে ০১৮২৫০০২৬২৬ নং ফোন করে স্ত্রীর মোবাইলে, প্রতি উত্তরে স্ত্রী জানান আজিজ ঘুমাচ্ছে। পুনরায় একই নাম্বার থেকে রাত ১১টার দিকে  ফোনে আসলে স্বামী আজিজ রিসিব করে,তখন পাশে থাকা স্ত্রী শুনতে পান মাছ মারার জন্য ট্যারা অথবা জাল নিয়ে বের হতে বলে ভাগিনা মনু।রাত ১১:২৫মিঃসময় বের হয় আজিজ। ভোরে পাশবর্তী হোছন নামের এক যুবকের মাধ্যমে সংবাদ পায় হাসপাতালে তার স্বামীর মৃত লাশ।

হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে,আজিজকে রক্তাক্ত অবস্থায় ভোর ৪টার দিকে ৪জন হাসপাতালেরর জরুরী বিভাগে রেখে হঠাৎ ৩জন উধাও হয়ে যাই,হাসপাতালের নাইটগার্ড় অপর একজনকে টিউবওয়েলে রক্তাক্ত দেখলে সন্দেহের প্রাচীর হলে পুতু নামের ব্যাক্তিকে ধরে ফেলে,তাৎক্ষণিক থানা পুলিশকে খবর দেয় এবং পুলিশের কাছে সোপার্দ করেন হাসপাতাল কতৃপক্ষ। নিহত আজিজের গায়ে কাঠমিস্ত্রি কাজে ব্যাবহৃত ধারালো  বাড়াইলের বেশ কিছু এলোপাতাড়ি আঘাতের চিহ্ন রয়েছে।যারফলে অতিরিক্ত রক্ত ক্ষরণে তার মৃত্যু  ঘটে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে,নিহত আজিজ দীর্ঘদিন ইয়াবা ব্যাবসার সাথে জড়িত ছিল।মোহাম্মদ হোসেন পুতু ও ভাগিনা মনুর সাথে ছিল দহরম সম্পর্ক।স্থানীয়রা ধারণা করেন মূলত এখুনের পেছনে নেপথ্য ছিল ইয়াবা সংক্রান্ত বিষয়ে। পুতু  ও মনু ছিলেন কাঠমিস্ত্রি তৎমধ্যে পুতু বিগত ৭/৮মাসের মধ্যে ২টি ফার্নিচার দোকানের মালিক যার আনুমানিক মূল্য ২০থেকে ২৫ লক্ষ টাকা।হঠাৎ যেন আংঙ্গুল ফুলে কলাগাছ। পুতুর দোকানে কর্মরত ছিলেন ভাগিনা মনু পিতাঃমোঃ নুর মোহাম্মদ, সাং(পূর্ব নিজপানখালী), গিয়াস উদ্দিন পিতাঃমৃত সোলতান আহমদ,সাং (ফুলতলা,৩নং ওয়ার্ড চঃকঃপৌঃ)আব্বাচ,পিতাঃঅজ্ঞাত সাং(পূর্ব নিজপানখালী)এদেরকে রাত্রে এক সাথে চলাচল করতে দেখা যাই বলে স্থানীয়রা জানান।

এবিষয়ে চকরিয়া থানার ওসি মোঃবখতিয়ার উদ্দিন চৌধুরী জানান,এ ঘটনায় ২ জনকে আটক করে থানা হেফাজতে রাখা হয়েছে। প্রথমে হাসপাতালের সংবাদ পেয়ে পুতু নামের একজন এবং তার স্বীকারউক্তিমূলে ভাগিনা মনুকে তার বাড়ি থেকে আটক করি।হাসপাতাল থেকে লাশ উদ্ধার করে পোষ্টমর্ড়ানের জন্য পাঠানো হয়েছে।উক্ত বিষয়ে সংস্লিষ্ট আইনে মামলা রুজু  করা হয়েছে।

 

,

Comments are closed.