কুয়েটার বিদেশি খেলোয়াড়েরা ফাইনালে খেলছেন না!

ওয়ান নিউজ ক্রীড়া ডেক্সঃ মঙ্গলবার রাতে প্রথম কোয়ালিফাইং ম্যাচে পেশোয়ার জালমির বিপক্ষে ১ রানে নাটকীয় জয়ে পাকিস্তান সুপার লিগের (পিএসএল) ফাইনালে উঠেছে কুয়েটা গ্ল্যাডিয়েটর্স। কুয়েটার ৭ উইকেটে ২০০ রানের জবাবে পেশেয়ার ৯ উইকেটে করতে পারে ১৯৯ রান। কিন্তু আনন্দের এই সংবাদ কুয়েটার সমর্থকদের জন্য বয়ে এসেছে একটা হতাশার সংবাদও। ফাইনালে খেলবেন না কুয়েটার বিদেশি ক্রিকেটাররা। এবারের পিএসএলের সবগুলো ম্যাচ সংযুক্ত আরব আমিরাতে হলেও ৫ মে পিএসএলের ফাইনালটি যে অনুষ্ঠিত হবে পাকিস্তানের লাহোরে। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কুয়েটার বিদেশি ক্রিকেটাররা পাকিস্তানে যেতে রাজি নয়।

দলকে ফাইনালে তোলার পরই টুইটারে লাহোরের ফাইনালে না খেলার সিদ্ধান্তের কথা জানিয়ে দিয়েছেন কুয়েটার তিন ইংলিশ ক্রিকেটার কেভিন পিটারসেন, লুক রাইট ও টাইমাল মিলস। নিউজিল্যান্ডের সাবেক অফস্পিনার নাথান ম্যাককালামও ফাইনাল ম্যাচটি খেলতে লাহোরে যাচ্ছেন না বলে জানিয়ে দিয়েছেন। বাংলাদেশি অলরাউন্ডার মাহমুদউল্লাহ তো কোয়ালিফাইং ম্যাচ না খেলেই জাতীয় দলের সঙ্গে যোগ দিয়ে শ্রীলঙ্কায় উড়ে গেছেন। দক্ষিণ আফ্রিকান ব্যাটসম্যান রাইলি রোসো সিদ্ধান্ত নেননি। তবে ধারণা করা হচ্ছে, খুব শিগগিরই তিনিও পিটারসেন-মিলসের পথেই হাঁটবেন। করাচি কিংসের ক্রিস গেইল, কুমার সাঙ্গাকারারা তো লাহোরে খেলতে না যাওয়ার কথা জানিয়ে রেখেছেন আগেই।

কুয়েটার ফাইনালে উঠার পেছনে পিটারসেন, রোসো, মিলস, তিনজনেরই বড় ভূমিকা। মঙ্গলবার কোয়ালিফাইং ম্যাচে ২২ বলে ৪০ রান করা পিটারসেন ৯ ম্যাচে করেছেন দলের পক্ষে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ২৪১ রান। ৪২.৫০ গড়ে সর্বোচ্চ ২৫৫ রান করেছেন রোসো। ইংলিশ পেসার মিলস পাঁচ ম্যাচে নিয়েছেন ৭ উইকেট। অলরাউন্ডার লুক রাইট খেলেছেন মাত্রই একটা ম্যাচ।

বিদেশি ক্রিকেটারদের লাহোরের ফাইনালে খেলতে অনুপ্রাণিত করতে অন্য রকম একটা ‘মূলা’ ঝুলিয়ে রেখেছে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড তথা এসএল কর্তৃপক্ষ। যারা লাহোরে ফাইনাল খেলতে রাজি হবে, তাদের ম্যাচ ফি ১০ হাজার ডলার থেকে বাড়িয়ে ৫০ হাজার ডলার দেওয়া হবে। কিন্তু তাতেও লাভ হচ্ছে না। মঙ্গলবার দলকে ফাইনালে তোলার পরই কুয়েটা সমর্কদের প্রতি সমবেদনা জানিয়ে লুক রাইটের টুইট, ‘ব্যাপারটা খুবই কষ্টের যে, আমি লাহোরে আসছি না। আমার তরুণ একটি পরিবার আছে। আমার মতে, একটা ক্রিকেট ম্যাচ জীবনের ঝুঁকির চেয়ে বড় হতে পারে না। আমি দুঃখিত। কারণ আমি জানি, আপনাদের জন্য এটা কতটা কষ্টের। আশা করি ভবিষ্যতে সেখানে খেলতে নিরাপত্তা নিয়ে কোনো রকম শঙ্কা থাকবে না।’

মন্তব্যসমূহ বন্ধ করা হয়.