জঙ্গি আস্তানায় অভিযান সমাপ্ত, নিহত ২, আত্মসমর্পণ ৪

ওয়ান নিউজঃ অবশেষে শেষ হয়েছে রাজধানীর দক্ষিণখানের পূর্ব আশকোনায় জঙ্গি আস্তানায় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর অভিযান। এ অভিযানে নারীসহ দুজন নিহত হয়েছেন। শনিবার বেলা পৌনে চারটার দিকে এক বিবৃতিতে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। শনিবার বিকেলে গণমাধ্যমকে এ তথ্য জানান তিনি।তবে নিহতদের নাম জানাতে পারেননি তিনি।

শনিবার বিকেল সোয়া ৩ টার পর আইজিপি শহীদুল হকে নিয়ে ঘটনাস্থলে যান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। এরপর তাৎক্ষণিক সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, বলেন, আমরা প্রথমে চারজনকে আত্মসমর্পণ করাতে সমর্থ হই। কিন্ত পরবর্তীতে ভেতরে আরো তিনজন ছিল। এদের মধ্যে একজন নারী পুলিশের কাছে আত্মসমর্পণের অভিনয় করে আত্মঘাতী বোমা হামলা চালায়। এরপরে সে সেখানে মারা যায় এবং আহত আরেকজনকে ঢাকা মেডিকেল কলেজে নেয়া হয়।

তিনি আরো বলেন, আমরা জানতে পারি যে ভেতরে আরো একজন জঙ্গি আছে। তাকে বারবার আত্মসমর্পণের জন্য মাইকিং করা হয়। এর এক পর্যায়ে পুলিশ তাকে লক্ষ্য করে টিয়ারসেল ছুড়ে। এরপর সে ভেতর থেকে গুলি চালায় ও বোমা ছুড়ে। পুলিশও পাল্টা গুলি ছুড়লে বেশ কিছুক্ষণ তার কোনো সাড়া না পেয়ে পুলিশ ভেতরে প্রবেশ করে দেখতে পায় সে মারা গেছে।

এর আগে পুলিশ জানায়, যে বাসাটিতে অভিযান চলে ওই বাসার ভেতরে জঙ্গিনেতা তানভীর কাদেরীর ছেলে গ্রেনেড নিয়ে বসে ছিলেন। আর তাকে নিস্তেজ করতে দুপুর ১টার দিকে ওই বাসার ভেতরে টিয়ারসেল নিক্ষেপ করা হয়।

এর আগে আত্মসমর্পণের কথা বলে বেরিয়ে আসার সময় শরীরে থাকা বেল্টের বিস্ফোরণ ঘটান এক নারী। ওই বিস্ফোরণে এক শিশুও আহত হয়। শিশুটিকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হয়। তবে ওই নারীর দেহ নিস্তেজ অবস্থায় দীর্ঘক্ষণ পড়ে থাকে। পরে তার মৃত্যুর তথ্য নিশ্চিত করে পুলিশ।

শনিবার মধ্যরাত থেকে দক্ষিণখানের আশকোনার পূর্বপাড়ার ৫০ নং বাসাটি ঘিরে রাখে পুলিশ। সকালের দিকে দুই শিশুকে নিয়ে ওই বাসাটি থেকে দুই নারী বেরিয়ে এসে আত্মসমর্পণ করেন। এদের মধ্যে একজন সেনাবাহিনী থেকে বহিষ্কৃত মেজর জাহিদের স্ত্রী। অন্যজন পলাতক জঙ্গিনেতা মূসার স্ত্রী বলে জানিয়েছে পুলিশ।

Comments are closed.