হারিয়ে যাচ্ছে গ্রামবাংলার ঐতিহ্যবাহী কাঠ শালিক

মোঃ সাইদুজ্জামান সাঈদঃ

চিরসবুজ আমাদের এ বাংলাদেশ দেশমাতৃকার এই সৌন্দর্যের একটা বড় জায়গা জুড়ে রয়েছে গ্রাম-বাংলার চিরচেনা শত শত পাখি।

কিন্তু অবাধ বৃক্ষ নিধন, জমিতে কীটনাশক প্রয়োগ ও শিকারিদের দৌরাত্ম্যে অনেক পাখির অস্তিত্বই আজ বিলুপ্তির পথে। কাঠ শালিক পাখিটির সংখ্যা আশঙ্কাজনক হারে কমে যাচ্ছে।
গ্রাম-গঞ্জের অতিচেনা শালিক পাখিদের মধ্যে অন্যতম কাঠ শালিক। লালচে, ধুসর, খয়েরি ও পিঙ্গল রঙয়ের মিশেল এই পাখিটি আমাদের চেনা শালিকের চেয়ে কিছুটা ছোট । এরা ১৯ থেকে ২১ সেন্টিমিটার পর্যন্ত লম্বা হয়ে থাকে।

কাঠ শালিকের বুক, পেট ও লম্বা লেজের পালকের রঙ উজ্জ্বল বাদামী রঙের হয়ে থাকে। এদের উজ্জ্বল বড় বড় চোখ ও পা লালচে বর্ণের হয়। গলায় রয়েছে মালার মতো অতিরিক্ত ধূসর পালক। এরা গাছের কোটরে গর্ত করে বাসা বানায়। বসন্ত থেকে বর্ষাকাল পর্যন্ত এদের প্রজন্ম মৌসুম । এ সময় বাসায় তিন থেকে চারটে লম্বাটে নীলচে রঙের ডিম পাড়ে কাঠ শালিক। এদের খাদ্য তালিকার মধ্যে রয়েছে সব ধরনের পোকামাকড় ও ফল ।

সুন্দর এই পাখিটির সংখ্যা প্রতিনিয়তই কমে যাচ্ছে। আগে এদের সর্বত্র দেখা গেলেও এখন দুর্গম বনাঞ্চল ও পাহাড়ি এলাকা ছাড়া এদের খুব একটা দেখতে পাওয়া যায় না। এমনকি দেশের উত্তাঞ্চলের নওগাঁর মফস্বল গ্রামগুলোতেও এদের বিচরণ আর আগের মতো পরিলক্ষিত হয় না।

গ্রাম-বাংলার ঐতিহ্যবাহী এই সুন্দর পাখিটি বিলুপ্তির হাত থেকে রক্ষা করতে এখনই প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়া প্রয়োজন। এজন্য পরিবেশবাদীদের পাশাপাশি দেশের সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে এবং হটাতে হবে শিকারিদের।

Comments are closed.