বিজনেস ট্রান্সফরমেশনে একজন সফল উদ্যোক্তা কক্সবাজারের আশিক

সৈয়দা ফাতিমা মম
কক্সবাজারের উদ্যোক্তা এবং “টাটকা শপিং ডট কম” এর সত্ত্বাধিকারী এস এম মোস্তফা আশিক ট্রাডিশনাল বিজনেস থেকে অনলাইন বিজনেস এ রূপান্তরিত করেছেন এবং অর্জন করেছেন সফলতা। বেশ হাশি খুশি প্রাণবন্ত একজন মানুষ যার বিজনেসের প্রতি রয়েছে অনেক জ্ঞান ও ভাললাগা।

গত ১৫ বছর ধরে কক্সবাজার এ বিভিন্ন কোম্পানির ডিলারশিপ নিয়ে বিজনেস করে আসছেন। নানান কোম্পানি সাথে কাজ করলেও মূলত অলিম্পিক ইন্ড্রাস্টিস লিমিটেড এর সাথে দীর্ঘ সময় যাবত ডিলারশিপ বিজনেস করে আসছেন। তার মেইন বিজনেস-ই ছিল ট্রাডিশনাল বিজনেস। পাশাপাশি টুরস এন্ড ট্রাভেলস নামে একটি ট্যুরিজমের বিজনেস ছিল।

কিন্তু এই তথ্য প্রযুক্তির যুগে সেটা আর কতদিন। যখন তিনি দেখলেন তিনি প্রতিযোগিতার বাজারে পিছিয়ে পড়ছেন, ডিলারশিপ থাকার পরও তার কাছ থেকেই প্রোডাক্ট নিয়ে অন্যরা তার থেকে ভালো কিছু করছে তখনি তিনি উপলব্ধি করলেন তার গ্যাপ কোথায়। আর তখনি তিনি ডিসিশন নিলেন ডিলারশিপ এর পাশাপাশি তিনি অনলাইন এ এক্টিভ হবেন। এ বিষয়ে তিনি আরোও জানান, তিনি ভেবে দেখছিলেন অফলাইন বিজনেসে একটি নির্দিষ্ট এরিয়া পর্যন্ত রিচ করতে পারছেন, এর বাহিরে চাইলেও কিছু করতে পারছিলেন না। সে জন্য তিনি চিন্তা করলেন অনলাইন যাত্রা শুরু করবেন।

নিজের ছোট ভাইয়ের সাথে অনেক আলোচনা করে নাম ঠিক করেন “টাটকা শপিং ডট কম”। প্রতিষ্ঠা করলেন টাটকা শপিং ডট কম নামে অনলাইন স্টোর। প্রথম দিনে ভালো এমাউন্টের কয়েকটা অনলাইন অর্ডার পেয়ে খুব উৎসাহ পেয়েছিলেন। এখন তার রোজ ২২- ২৫ জন গ্রাহকের অনলাইন অর্ডার পাচ্ছেন। গ্রাহকদের কথা ভেবে পচনশীল পণ্য ছাড়া প্রায় সকল নিত্য প্রয়োজনীয় আইটেম স্টোকে রাখেন। ভাল মানের পণ্যের জন্য কক্সবাজারবাসীর কাছে সহজে অল্প সময়ে একটা আস্থার জায়গা তৈরি করতে পেরেছেন। গ্রাহকদের কাছ থেকে বেশ পজিটিভ ফিডব্যাক পাচ্ছেন। এর ফলে তিনি শতভাগ রিটার্ন কাস্টমার পাচ্ছেন। এক কথায় পুরো কক্সবাজারবাসী তার এই সুন্দর উদ্যোগটিকে স্বাদরে গ্রগন করেছে।

তার কোম্পানির প্রচারণার ব্যাপারে জানতে চাইলে আমাদের জানান, অনলাইন পেইড মার্কেটিং এর পাশাপাশি ফেসবুক পেইজে পোস্ট করে, মেসেজ দিয়ে এবং মাউথ টু মাউথ ক্যাম্পেইন করে সবাইকে জানাবার চেষ্টা করেছেন যে, কক্সবাজারে এ ধরনের সার্ভিস প্রদান করা হচ্ছে “টাটকা শপিং ডট কম” এর মাধ্যমে। বর্তমানে তার টিমে মোট ৩৪ জন কাজ করছেন। এরপর থেকে তাকে আর পিছনে ফিরে তাকাতে হয়নি, ভীষণ উদ্দীপনায় সামনে এগিয়ে যাচ্ছেন। ব্যবসায়িক জ্ঞান, অভিজ্ঞতা ও মেধা প্রয়োগের ফলে তেমন বাঁধা পেতে হয় নি। সফল ভাবে এগিয়ে যাচ্ছেন।

এরই মাঝে “টাটকা শপিং ডট কম” কক্সবাজারের নারী উদ্যোক্তাদের কথা বিবেচনা করে এবং ক্রেতাদের সুবিধার কথা চিন্তা করে প্রথম একটি অনলাইন মেলার আয়োজন করেছিল। মেলাটি করেছিলেন নারী উদ্যোক্তাদের সাথে নিয়ে। সেখানে বিপুল পরিমানে সাড়া পেয়েছিলেন এবং উদ্যোক্তাদেরও বেশ উপকার হয়েছিল।

“টাটকা শপিং ডট কম” নিয়ে ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা জানতে চাইলে বলেন, তার এই গ্রোসারি শপের সার্ভিস যেমন কক্সবাজারের সবাই পাচ্ছেন তেমনি সারা বাংলাদেশের সকলের কাছে তার এই সার্ভিস পৌঁছে দিতে চান। শুধুমাত্র কক্সবাজারে সীমাবদ্ধ থাকবে না।
স্টেপ বাই স্টেপ সঠিক পরিকল্পনা করে সে অনুযায়ী ধীরে ধীরে তিনি সামনে অগ্রসর হচ্ছেন। আশা করা যাচ্ছে কক্সবাজারের পর দেশবাসী “টাটকা শপিং ডট কম” থেকে দারুন কিছু পাবে।

Comments are closed.