রোহিঙ্গাদের জন্মভূমি থেকে উচ্ছেদ করা হয়েছে : ওআইসিতে বাংলাদেশ

ওয়ান নিউজ ডেক্সঃ পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম বলেছেন, মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যের রোহিঙ্গা মুসলিমদের মৌলিক মানবাধিকার নিশ্চিত করতে হবে। ঘরছাড়া রোহিঙ্গা শরনার্থিদের নিজ দেশে ফেরত নেওয়ার জন্য টেকসই ব্যবস্থা করতে হবে মিয়ানমার সরকারকে। রোহিঙ্গা মুসলিমদের তাদের জন্মভূমি থেকে উচ্ছেদ করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার(১৯ জানুয়ারি) মালয়েশিয়ার রাজধানী কুয়ালালামপুরে ওআইসিভুক্ত মুসলিম দেশ সমূহের পররাষ্ট্র মন্ত্রীদের এক জরুরি সভায় এ কথা বলেন তিনি। মিয়নমারের মুসলিম সংখ্যালঘু রোহিঙ্গা ইস্যুতে করণীয় ঠিক করতে ওআইসি এই  জরুরি সভার আয়োজন করে।

মিয়ানমারে ওআইসির বিশেষ দূত ড. হামিদ আলবার রোহিঙ্গাদের বর্তমান পরিস্থতি নিয়ে একটি প্রতিবেদন উপস্থাপন করেন।

বাংলাদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে পাঠানো এক বিবৃতিতে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী বলেন, এটি সত্যিই দু:খজনক যে, রোহিঙ্গা মুসলিমদের তাদের জন্মভূমি থেকে উচ্ছেদ করা হয়েছে। তাদের বাধ্য করা হয়েছে বাংলাদেশে আশ্রয় নিতে। অতিদ্রুত রোহিঙ্গাদের রাখাইন রাজ্যে ফিরিয়ে নেওয়া ও তাদের পূণর্বাসনের জন্য প্রয়োজনীয় অবকাঠামো নির্মণ করে দেওয়ার দাবিও জানান পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী।

এসময় তিনি জোড়ালো দবি করে বলেছেন, রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধান করতে যৌক্তিক ও স্থায়ী পদক্ষেপ নিতে হবে। এজন্য প্রচলিত আইন অনুযায়ী রোহিঙ্গাদের মিয়ানমারের নাগরিকত্ব পূণর্বহাল করতে হবে। বাংলাদেশ ও বহির্বিশ্বে আশ্রয় নেওয়া তালিকাভুক্ত ও তালিকা ছাড়া রোহিঙ্গাদের অতি দ্রুত ফিরিয়ে নিতে হবে মিয়ানমারকে। নিজ ভূমিতে রোহিঙ্গাদের আবাসন ফিরিয়ে দিতে হবে। তাদের নিরাপত্তা ও নিরাপদ জীবিকা নির্বাহের ব্যবস্থা করে দিতে হবে।

রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধান না হওয়া পর্যন্ত ওআইসিকে কাজ করে যাওয়ার জন্য অনুরোধ করেন বাংলাদেশের পরারষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী।

কুয়ালামপুরে অনুষ্ঠিত ওআইসির এই সভার উদ্বোধন করেন মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী নাজিব রাজ্জাক। সভায় অংশনেওয়া সকল রাষ্ট্রের প্রতিনিধিরা রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দেওয়ায় বাংলাদেশকে বিশেষ ধন্যবাদ জানান।

Comments are closed.