কালীগঞ্জে সেই বিখ্যাত দাপনা গ্রাম পরিদর্শণে খুলনা বিভাগীয় কমিশনার

ঝিনাইদহ প্রতিনিধিঃ

ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ উপজেলার নিয়ামতপুর ইউনিয়নের দাপনা গ্রামের প্রতিটি বাড়িতে মহিলারা। কম্পোষ্ট সার ও কেচো উৎপাদন করছে। এছাড়াও উপজেলার নিয়ামতপুর ও রায়গ্রাম ইউনিয়নের ১ হাজার নারী কেচো ও কম্পোষ্ট সার উৎপাদনের সাথে জড়িতি। বিষয়টি নিয়ে দৈনিক মানবকন্ঠ পত্রিকায়  মফস্বল পাতায়  ও দৈনিক নবচিত্র পত্রিকায়  সংবাদ প্রকাশিত হলে কালীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো: ছাদেকুর রহমানের নজরে আসে।

 

বিষয়টি নিয়ে খুলনা বিভাগীয় কমিশনার ও জেলা প্রশাসককে অবহিত করলে সরেজমিন দেখার জন্য বুধবার দুপুরে খুলনা বিভাগীয় কমিশনার মো: আবদুস সামাদ, ঝিনাইদহ জেলা প্রশাসক মো: মাহবুব আলম তালুকদার, কালীগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর সিদ্দিক ঠান্ডু, উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো: ছাদেকুর রহমান, ভাইস চেয়ারম্যান মতিয়ার রহমান মতি, শাহনাজ পারভীন, দৈনিক নবচিত্র পত্রিকার প্রধান সম্পাদক আলহাজ¦ শহিদুল ইসলাম ইনোভেটিভ প্রজেক্ট পরিদর্শণ করেন।

 

এ সময় কম্পোষ্ট সার ও কেচো উৎপাদন বিষয়ে খুলনা বিভাগীয় কমিশনারকে ধারণা দেন অর্গানিক চাষ প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের প্রোগ্রাম অফিসার এস এম শাহীন হোসেন। এ সময় খুলনা বিভাগীয় কমিশনার ও জেলা প্রশাসক কথা বলেন কম্পোষ্ট সার ও কেচো উৎপাদনকারী নারী রেবেকাসহ অন্যদের সাথে।

 

কম্পোষ্ট উৎপাদনকারী নারীরা দাবি করেন সারগুলো প্যাকেজিং করার ব্যবস্থা ও নিরাপদ সবজির বাজার তৈরির জন্য। খুলনা বিভাগীয় কমিশনার তাদের দাবিগুলো দেখবেন বলে জানান।  কালীগঞ্জ ্উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো: ছাদেকুর রহমান জানান, গরুর গবর বহুবিধ ব্যবহার (বায়োগ্যাস,কম্পোষ্ট সার,কেচো উৎপাদন) করে গ্রামের নারীরা যে কাজ করছে তার জন্য তারা প্রশংসার দাবিদার। তারা যদি সরকারি সহযোগিতা কামনা করেন তবে বিষয়টি সহযোগিতা করা হবে।

Comments are closed.