সরকার জনগণের নিরাপত্তা দিতে সম্পূর্ণ ব্যর্থ : ফখরুল

ওয়ান নিউজ: বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, বর্তমান সরকার জনগণের নিরাপত্তা দিতে সম্পূর্ণ ব্যর্থ হয়েছে। গাইবান্ধার সরকারদলীয় সংসদ সদস্য মঞ্জুরুল ইসলাম লিটনকে হত্যার ঘটনাই প্রমাণ করে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে সরকার ব্যর্থ।

ছাত্রদলের ৩৮তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে সংগঠনের নেতাকর্মীদের সঙ্গে নিয়ে সোমবার প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের কবরে শ্রদ্ধা নিবেদনের পর সাংবাদিকদের তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, “আজকে এই হত্যার মাধ্যমে প্রমাণিত হয়েছে, এই সরকার সম্পূর্ণ ব্যর্থ হয়েছে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ ও জনগণের জীবনের নিরাপত্তা দিতে।

“তাদের প্রশ্রয়ের কারণে আজকে দুর্বৃত্তরা মাথাচাড়া দিয়ে উঠেছে সমগ্র সমাজ ও রাষ্ট্রে। আজকে যেমন একজন এমপি নিরাপদ নন এবং সাধারণ মানুষও নিরাপদ নয়। এদেশে আজকে স্বাভাবিক মৃত্যুর গ্যারান্টি নেই। এর প্রধান কারণ হচ্ছে, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে ব্যবহার করা হচ্ছে দলীয় স্বার্থে।”

মির্জা ফখরুল বলেন, “তারা তাদের অপকর্মগুলোকে সবসময় অন্যের ওপর চাপিয়ে দিতে চায়, এটা তাদের স্বভাব। এতে সত্য কখনও চাপা থাকে না। এটাই সত্য যে, এই সরকার সম্পূর্ণ ব্যর্থ হয়েছে জনগণের জীবনের নিরাপত্তা প্রদান করতে।”

তিনি বলেন, “সরকার বিরোধী দলকে দমন করছে, ছাত্রদেরকে তাদের স্বাভাবিক কার্য্ক্রম করতে দিচ্ছেনা। আজকে শিক্ষা ব্যবস্থা ধ্বংস হয়ে যাচ্ছে। এই অবস্থা থেকে দেশকে মুক্ত করার জন্য ছাত্রদল গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনার শপথ নিয়েছে।”

ছাত্রদলের সভাপতি রাজীব আহসান ও সাধারণ সম্পাদক আকরামুল হাসানের নেতৃত্বে নেতাকর্মীরা বিএনপি মহাসচিবের সঙ্গে জিয়ার কবরে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, প্রচার সম্পাদক শহীদউদ্দিন চৌধুরী এ্যানি, স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি শফিউল বারী বাবু প্রমুখ এসময় তাদের সঙ্গে ছিলেন। ১৯৭৯ সালের ১ জানুয়ারি ছাত্রদল প্রতিষ্ঠা হয়।

উল্লেখ্য, গতক শনিবার গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জে বাড়িতে ঢুকে সাংসদ লিটনকে গুলি করে সন্ত্রাসীরা। রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পর তার মৃত্যু হয়। ক্ষমতাসীন দলের অভিযোগ, লিটন হত্যায় বিএনপি-জামায়াত জোট জড়িত।

Comments are closed.