ফেসবুক কী শতভাগ গোপনীয়তা রক্ষা করে?

ওয়ান নিউজ ডেক্সঃ ব্যবহারকারীদের সম্পর্কে জানা সব তথ্যই ব্যবহারকারীদের দেখিয়ে আসছে বিশ্বের সবচেয়ে বড় সামাজিক মাধ্যম ফেসবুক। কে কোন খেলা পছন্দ করেন, কোথায় গিয়েছেন বা কাকে পছন্দ করেন- এমন তথ্য সংগ্রহের বিষয়টি ফেসবুক ব্যবহারকারীদের জানিয়েই থাকে। কিন্তু এর বাইরেও ব্যবহারকারীদের নানা স্পর্শকাতর তথ্য সংগ্রহ করে প্রতিষ্ঠানটি, আর এ নিয়ে খুব একটা ইঙ্গিতও দেয়া হয় না। স্পর্শকাতর তথ্যের মধ্যে ব্যবহারকারীদের আয়, তারা কোন রেস্টুরেন্টে বেশি যান এমনকি তারা কতগুলো ক্রেডিট কার্ড ব্যবহার করেন, তাও সংরক্ষণ করা হয়, জানিয়েছে ব্যবসা-বাণিজ্যবিষয়ক মার্কিন সাইট বিজনেস ইনসাইডার।

জনতার আগ্রহে তদন্তমূলক সাংবাদিকতা করার দাবি করা অলাভজনক মার্কিন প্রতিষ্ঠান প্রোপাবলিকা ২০১৬ সালের সেপ্টেম্বর থেকে ফেসবুক ব্যবহারকারীদের তাদের আগ্রহের কথা জানানোর উৎসাহ দিয়ে আসছে।

ফেসবুক জানিয়েছে, তারা ব্যবহারকারীদের সম্পর্কে ‘নতুন ভিন্ন ভিন্ন উৎস’ থেকে তথ্য সংগ্রহ করছে। কিন্তু তারা যা বলেনি তা হচ্ছে ওই উৎসগুলোর মধ্যে ব্যবহারকারীদের অফলাইন জীবনের নানা তথ্য রাখে এমন বাণিজ্যিক ডেটা ব্যবসায়গুলোর বিস্তারিত দলিলও রয়েছে। এসব উৎস থেকে ফেসবুক উল্লেখযোগ্য যে বিস্তারিত তথ্য পায় তা অধিকাংশ সময়ই ব্যবহারকারীদের দেখায় না, বলা হয়েছে বিজনেস ইনসাইডার-এর প্রতিবেদনে।

সেন্টার ফোর ডিজিটাল ডেমোক্রেসির নির্বাহী পরিচালক জেফরি চেস্টার বলেন, ‘তারা সৎ থাকছে না। একজন গ্রাহককে লক্ষ্য করতে ফেসবুক এক ডজন ভিন্ন ডেটা প্রতিষ্ঠানকে এক করছে, আর একজন ব্যক্তিরও ওই জোটে অ্যাকসেস থাকা উচিৎ।’

মার্কিন সাইটটি জানায়, প্রকাশের অভাব নিয়ে চলতি সপ্তাহে জিজ্ঞাসা করা হলে ফেসবুক জানিয়েছে, তারা ব্যবহারকারীদের থার্ড-পার্টি থেকে ডেটা সম্পর্কে জানায় না কারণ এটি বিস্তৃতভাবে পাওয়া যায় আর এই তথ্য ফেসবুকের সংগ্রহ করা নয়।

ফেসবুকের প্রাইভেসি ও জননীতিবিষয়ক ব্যবস্থাপক স্টিভ স্যাটারফিল্ড বলেন, ‘থার্ড-পার্টি খাতগুলো নিয়ন্ত্রণে আমাদের পথ, ফেসবুক-নির্দিষ্ট খাতগুলোতে আমাদের পথের তুলনায় ভিন্ন। এর কারণ হচ্ছে যেসব ডেটা সরবরাহকারীদের সঙ্গে আমরা কাজ করছি তারা সাধারণত তাদের খাতগুলো শুধু ফেসবুকই নয়, আরও অনেক বিজ্ঞাপনী প্লাটফর্মের জন্যও দেয়।’

তিনি জানান, যেসব ব্যবহারকারী তাদের ও তথ্য ফেসবুকের কাছে রাখতে চান না, তাদের উচিৎ সরাসরি ওই ডেটা সরবরাহকারীদের সঙ্গে যোগাযোগ করা। ব্যবহারকারীদের এ জন্য ফেসবুকের হেল্প সেন্টার-এর পেইজ ভিজিটের পরামর্শ দেন তিনি। ফেসবুকের কাছে ব্যক্তিগত ডেটা বিক্রি করে এমন ছয় ডেটা সরবরাহকারীর লিংক বেছে নেয়া যাবে বলে জানান তিনি।

ব্যক্তিগত ডেটা বিতরণে বাণিজ্যিক ডেটা সরবরাহকারীদের সীমাবদ্ধতা দেয়া ব্যবহারকারীদের জন্য সহজ বিষয় নয় বলেই জানিয়েছে মার্কিন সাইটটি। উদাহরণ দিয়ে তারা জানায়, ফেসবুকের কাছে ডেটা সরবরাহকারী একটি প্রতিষ্ঠান হচ্ছে ওরাকল-এর ডেটালজিক্স। এই প্রতিষ্ঠানটিকে এই সীমাবদ্ধতা দিতে গেলে সরকারীভাবে নিবন্ধিত পরিচয়পত্রের একটি কপি নিয়ে ওরাকল-এর প্রধান প্রাইভেসি কর্মকর্তার কাছে লিখিত আবেদনের প্রয়োজন হয়।

Comments are closed.