ঈদ জামাত আদায়ে ধর্ম মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ করোনাভাইরাসের সংক্রমণ এড়াতে শনিবার (১ আগস্ট) পবিত্র ঈদুল আজহার জামাত ঈদগাহ বা খোলা জায়গার পরিবর্তে নিকটস্থ মসজিদে আদায় করতে হবে। প্রয়োজনে একই মসজিদে একাধিক জামাত করতে হবে।

সম্প্রতি সরকারের স্বাস্থ্য সেবা বিভাগ থেকে জারি করা স্বাস্থ্যবিধি অনুসারে ঈদ জামাত মসজিদে আদায়ের এ আহ্বান জানিয়ে কিছু নির্দেশনা দিয়েছে ধর্ম মন্ত্রণালয়। শুক্রবার (৩১ জুলাই) সরকারের এক তথ্য বিবরণীতে পুনরায় এ নির্দেশনা জারি করা হয়েছে।

মসজিদে ওজু করার জায়গায় সাবান বা হ্যান্ড স্যানিটাইজার রাখতে হবে। মসজিদের প্রবেশদ্বারে হ্যান্ড স্যানিটাইজার বা হাত ধোয়ার ব্যবস্থাসহ সাবান-পানি রাখতে হবে। বাসায় ওজু করে মসজিদে আসতে হবে। ওজু করার সময় কমপক্ষে ২০ সেকেন্ড সাবান দিয়ে হাত ধুতে হবে।

নির্দেশনায় বলা হয়েছে, ঈদের জামাতের সময় মসজিদে কার্পেট বিছানো যাবে না। নামাজের আগে সম্পূর্ণ মসজিদ জীবানুনাশক দিয়ে পরিষ্কার করতে হবে। মুসল্লিদের জায়নামাজ সঙ্গে নিয়ে আসতে হবে।

মুসল্লিদেরকে অবশ্যই মাস্ক পরে মসজিদে আসতে হবে। মসজিদে সংরক্ষিত জায়নামাজ ও টুপি ব্যবহার করা যাবে না। ঈদের নামাজ আদায়ের সময় কাতারে দাঁড়ানোর ক্ষেত্রে সামাজিক দূরত্ব ও স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করতে হবে এবং এক কাতার অন্তর অন্তর দাঁড়াতে হবে। জামায়াত শেষে কোলাকুলি এবং হাত মেলানো পরিহার করতে হবে।

শিশু, বৃদ্ধ, অসুস্থ ব্যক্তি এবং অসুস্থদের সেবায় নিয়োজিত ব্যক্তিদের ঈদের জামাতে অংশ না নিতে অনুরোধ জানানো হয়েছে।

করোনা মহামারি থেকে রক্ষায় দোয়া করার জন্য খতিব ও ইমামদের প্রতি অনুরোধ জানিয়ে নির্দেশনায় বলা হয়েছে, খতিব, ইমাম, মসজিদ পরিচালনা কমিটি ও স্থানীয় প্রশাসনকে নির্দেশনা পরিপালন নিশ্চিত করাসহ পশু কোরবানির ক্ষেত্রে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা যথাযথভাবে মানতে হবে।

Comments are closed.