পাকিস্তানে সব মহাসড়ক দখলে নিচ্ছে জমিয়ত, দেশজুড়ে বিক্ষোভের ডাক

Pak.jpg

ওয়ান নিউজ ডেক্সঃ পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান বিরোধী আজাদি মার্চ রাজধানী ইসলামাবাদ থেকে পুরো দেশে ছড়িয়ে পড়ছে। ‘প্ল্যান-বি’র আওতায় দেশটির সব সহাসড়ক অবরোধের ঘোষণা দিয়েছেন বিক্ষোভের নেতৃত্বদানকারী মাওলানা ফজলুর রহমান।

পাকিস্তানের প্রভাবশালী গণমাধ্যম ডন ও জিয়ো নিউজ জানিয়েছে, বুধবার সন্ধ্যায় অবস্থানের ১৪তম দিনে আজাদি মার্চ সমাপ্তির ঘোষণা দেন জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের প্রধান মাওলানা ফজলুর রহমান।

নেতাকর্মীদের সামনে বক্তৃতা দেয়ার সময় তিনি বলেন, ‘প্ল্যান-এ’র আওতায় আমরা এতদিন ইসলামাবাদে অবস্থা করেছি। অযোগ্য সরকারের বিরুদ্ধে আমাদের লড়াই চালিয়ে যাবো। এজন্য ‘প্ল্যান-বি’র আওতায় এখন সারাদেশ অচল করে দেয়া হবে।

জিয়ো নিউজের খবরে বলা হয়, মাওলানা ফজলুর রহমানের ঘোষণার আগে থেকেই জমিয়ত কর্মীরা সিন্ধু মহাসড়ক, বেলুচিস্তানের কোয়েটা-চামান সড়ক, খাইবার পাখতুনখোওয়ার সিল্ক রোড এবং পাঞ্জাবের সিন্ধু হাইওয়ে দখলে নিয়েছে।

বুধবার দুপুরের পর থেকে গুরুত্বপূর্ণ এ সড়কগুলো নিয়ন্ত্রণ করছে জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের নেতা-কর্মীরা।

জমিয়ত নেতা মাওলানা আতাউর রহমান ‘প্ল্যান-বি’র ব্যাখ্যা করে বলেন, বৃহস্পতিবার দুপুর ২ টা নাগাদ দেশের মহাসড়ক অবরোধ করা হবে। ইতিমধ্যে অনেক সড়ক আমাদের নিয়ন্ত্রণে চলে এসেছে। আগামীকাল পেশোয়ার ও রাওয়ালপিন্ডির মধ্যবর্তী জিটি রোডও অবরোধ করা হবে।

বৃহস্পতিবার দুপুর ২টার মধ্যে করাচির হাব নদী সড়ক অবরোধ করার জন্য দলীয় কর্মীদের নির্দেশ দেয়া হয়েছে দলটির নেতারা জানিয়েছেন। কর্মীদের অবরোধের সময় অ্যাম্বুলেন্স ও জরুরী গাড়ি যাওয়ার ব্যবস্থা রাখার নির্দেশনা দেয়ার পাশাপাশি নেতাকর্মীদের হাতে লাঠি না ধরার নির্দেশনাও দেয়া হয়েছে।

আজাদি মার্চের সমাপণী ভাষণে দেশবাসীকে দলমত নির্বিশেষে রাস্তায় নেমে আসার আহ্বান জানান মাওলানা ফজলুর রহমান।

তিনি বলেন, এতদিন যারা ইসলামাবাদ আসতে পারেননি, তারা সুযোগমত যার যার এলাকায় অবরোধে নেমে আসবেন। আমরা গণতন্ত্র ও দেশের জন্য এতদিন আজাদি মার্চ করেছি। এ অবৈধ সরকার পদত্যাগ পর্যন্ত আমরা আন্দোলন করে যাবো।

গত ২৮ অক্টোবর করাচি থেকে আজাদি মার্চ শুরু। ‘মাওলানা আ-রা-হাহে…মাওলানা আ-রা-হাহে’ স্লোগান দিতে দিতে পাঞ্জাব হয়ে ইসলামাবাদ আসার পরই এই মিছিল বৈশ্বিক মনযোগ কেড়ে নেয়।

এরমধ্যেই পদত্যাগ ছাড়া জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের অন্য সব দাবি মেনে নেয়া হবে বলে ঘোষণা দিয়েছিলেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান।

কিন্তু ইমরান খানের নেতৃত্বাধীন সরকারের পদত্যাগ ছাড়া আন্দোলন অব্যাহত রাখার কথা জানান মাওলানা ফজলুর রহমান।