কক্সবাজারের মহেশখালীতে ২ টাকার পর এবার ৫ টাকার জন্য আরও এক ব্যক্তিকে খুন

khon-mk-6mrb0drtymkcn6ltkyzm1kpd2uua5peueviuya4eyps.jpg

কক্সবাজারের মহেশখালীতে ২ টাকার পর এবার ৫ টাকার জন্য আরও এক ব্যক্তিকে খুন

সরওয়ার কামাল,মহেশখালী ::

কক্সবাজারের মহেশখালী উপজেলায় গত ১লা আগষ্ট ২ টাকার জন্য এক ব্যক্তিকে খুনের ৫দিনের ব্যবধানে এবার ৫ টাকার জন্য দুলাভাইয়ের ছুরিকাঘাতে আবদুল করিম (৩৫) নামের এক ব্যক্তি খুন হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

মঙ্গলবার সকাল সাড়ে সাতটার দিকে উপজেলার ছোট মহেশখালী ইউনিয়নের মুদিরছড়া জালিয়াপাড়া এলাকায় হত্যাকাণ্ডের এ ঘটনা ঘটে।

আবদুল করিমের বাড়ি জালিয়াপাড়া এলাকায়। বাবার নাম কালো মিয়া। এ ঘটনায় আবদুল করিমের চাচাতো বোনের স্বামী আব্দু শুক্কুরকে আটক করেছে পুলিশ। পরে তাঁকে মহেশখালী থানা-পুলিশের কাছে সোপর্দ করা হয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শী ব্যক্তিদের ভাষ্য, সকালে আবদুল করিম তাঁর দুলাভাই আব্দু শুক্কুরের চায়ের দোকানে নাশতা করতে যান। নাশতা খাওয়ার পর পাঁচ টাকার অতিরিক্ত বিল নিয়ে দুজনের মধ্যে কথা-কাটাকাটি হয়। কথা–কাটাকাটির একপর্যায়ে আব্দু শুক্কুর আবদুল করিমকে ছুরি দিয়ে আঘাত করেন।

গুরুতর আহত আবদুল করিমকে উদ্ধার করে প্রথমে মহেশখালী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও পরে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সকাল নয়টায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান।

খবর পেয়ে পুলিশ স্থানীয় এলাকাবাসীর সহযোগিতায় উপজেলার ছোট মহেশখালী ইউনিয়নের মুদিরছড়া পাহাড়ি এলাকা থেকে আব্দু শুক্কুরকে আটক করে। তাঁর চায়ের দোকান থেকে পুলিশ ছুরি উদ্ধার করে।

জানতে চাইলে মহেশখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) প্রভাষ চন্দ্র ধর বলেন, নাশতার বিলের পাঁচ টাকা কম-বেশিকে কেন্দ্র করে চাচাতো দুলাভাইয়ের ছুরিকাঘাতে আবদুল করিম নিহত হয়েছেন।

লাশটি ময়নাতদন্তের জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়। খবর পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে পুলিশ তাৎক্ষণিক অভিযান চালিয়ে পাহাড়ি এলাকা থেকে আব্দু শুক্কুরকে আটক করে এবং ছুরিটি উদ্ধার করতে সক্ষম হয়।

উল্লেখ্য গত ১লা আগষ্ট সন্ধ্যায় মহেশখালী উপজেলার ধলঘাটা ইউনিয়নে মাত্র ২ টাকার পাওনাকে কেন্দ্র করে মুদির দোকানদারের হাতে খুন হয় জাহাঙ্গীর আলম (২৭) নামে এক ক্রেতা। সে ধলঘাটা ইউনিয়নের বেগুনবনিয়া গ্রামের আবদুল গফ্ফারের পুত্র। এ ঘটনায় পুলিশ তাৎক্ষনিক অভিযান চালিয়ে ঘাতক দোকানদার আব্দুল গফুরকে গ্রেপ্তার করেছে। সে একই এলাকার নুরুন্নবীর ছেলে।

পুলিশ জানান, ধলঘাটা ইউনিয়নের বেগুনবনিয়া গ্রামের নুরুন্নবীর পুত্র আব্দুল গফুর তার বাড়ীর পাশে একটি মুদির দোকান দিয়ে ব্যবসা করে। নিহত জাহাঙ্গীর ঘাতক আব্দুল গফুরের দোকান থেকে পান সিগারেট খাওয়ার বিল দিতে গিয়ে দোকানদারের দাবী ১২টাকা আর ক্রেতার দাবী ১০টাকা নিয়ে বিরোধের সুত্রপাত হয়। ক্রেতা বিক্রেতার মধ্যে মাত্র ২ টাকার বিরোধ মুহুর্তের মধ্যে হাতাহাতিতে রুপ নেয়। এক পর্যায়ে দোকানদার আব্দুল বিক্রেতা ক্রেতা তার দোকানে থাকা পানির গ্লাস ভেঙ্গে জাহাঙ্গীরেরর পেটে মারলে সে মারাত্নক আহত হয়।

উপস্থিত লোকজন আহত জাহাঙ্গীরকে দ্রুত চকরিয়া হাসপাতালে নিয়ে গেলে ১লা আগস্ট রাত সাড়ে ৮টায় সে মারা যান। এদিকে ঘটনার সংবাদ পেয়ে মহেশখালী থানার ওসি প্রভাষ চন্দ্র ধর এর নির্দেশে মাতারবাড়ী পুলিশ ফাঁড়ির আইসি এসআই আনিস উদ্দিন অভিযান চালিয়ে ঘাতক দোকানদার নুরুন্নবীর পুত্র আব্দুল গফুরকে গ্রেফতার করেন।