কক্সবাজার লাইট হাউজ মাদরাসার  অচলাবস্থা নিরসন চায় এলাকাবাসী 

received_332782564078349.jpeg
কক্সবাজার প্রতিনিধিঃ
কক্সবাজার কলাতলী লাইট হাউজ মাদরাসায় মুহতামিম (অধ্যক্ষ) পদকে ঘিরে দীর্ঘদিন ধরে বিরাজমান অচলাবস্থার নিরসন চায় স্থানীয় বাসিন্দারা।
স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, ব্যবসায়ী, রাজনীতিবিদ, সমাজসেবক থেকে শুরু করে সর্বস্তরের মানুষ এই দ্বীনি প্রতিষ্ঠানের ঐতিহ্য ধরে রাখার পক্ষে মত দিয়েছেন। সবাই চায়, শিক্ষকদের মধ্যে বিরাজমান সমস্যা দূর করে একটা সুন্দর সুশৃংখল পরিবেশ ফিরে আসুক।
বৃহত্তর লাইট হাউজ পাড়া সমাজ ও মসজিদ পরিচালনা কমিটির সহ-সভাপতি রিয়াজ উদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মান্নান, হোটেল মোটেল গেস্ট হাউস মালিক সমিতির সভাপতি আলহাজ ওমর সোলতান, সাধারণ সম্পাদক আবুল কাশেম সিকদার, কটেজ ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি কাজী রাসেল আহমেদ নোবেল, সাধারণ সম্পাদক নজির আহমদ, সৈকত পাডা সমাজ পরিচালনা কমিটির সভাপতি শরাফত উল্লাহ সিকদার বাবুল, সাধারণ সম্পাদক কামরুল ইসলাম, লাইট হাউজ (উত্তর) সমাজ পরিচালনা কমিটির সভাপতি ফরিদুল আলম, সহ-সভাপতি ওমর ফারুক, লাইট হাউজ পাড়া আদর্শ সমাজ পরিচালনা কমিটির সভাপতি আমির হোসেন সওদাগর, সাধারণ সম্পাদক ইলিয়াস মুন্সী, ফাতেরঘোনা সমাজ পরিচালনা কমিটির সভাপতি আবুল কাশেম, সাধারণ সম্পাদক নুরুল আলমসহ স্থানীয় মান্যগণ্য ব্যক্তিরা লাইট হাউজ মাদরাসার অচলাবস্থা নিরসনের সহযোগিতা চেয়ে কক্সবাজার জেলা প্রশাসক বরাবর আবেদন করেছে। গণস্বাক্ষরের অংশগ্রহণ করেন এলাকার অন্তত ১০০ সচেতন মানুষ।
এলাকাবাসীর গণস্বাক্ষর সম্বলিত জেলা প্রশাসকের কাছে আবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে, মাদরাসাটি দীর্ঘ কয়েক যুগ ধরে এলাকার শিক্ষা-দীক্ষার ক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা পালন করে আসছে।
২০১৫ সালে মুহতামিমের পদ শূণ্য হলে স্থানীয় সচেতন জনগণ, সামাজিক নেতৃবৃন্দ, জনপ্রতিনিধি, জেলার শীর্ষ ওলামায়ে কেরামের সমন্বিত উদ্যোগে মাওলানা মোহাম্মদ আলীকে মুহতামিম পদে নিয়োগ দেয়া হয়।
তার দক্ষ পরিচালনায় কয়েক বছরের মধ্যে মাদরাসার শিক্ষাদীক্ষা, অবকাঠামোসহ সার্বিক দিক দিয়ে প্রচুর উন্নতি সাধিত হয়। ফলে তিনি এলাকাবাসী ও অভিভাবকসহ সর্বমহলের আস্থা অর্জন করতে সক্ষম হন।
প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ পর্যবেক্ষণে স্থানীয় বাসিন্দাদের অভিমত, মাওলানা মোহাম্মদ আলী একজন দক্ষ, বিচক্ষণ ও বিশ্বস্ত ব্যক্তি। তিনি যোগদানের মাত্র দুই বছরে মাদরাসার সার্বিক উন্নয়ন করতে সক্ষম হন। অথচ প্রতিষ্ঠানটি প্রায় তিন যুগ পূর্বে প্রতিষ্ঠিত হলেও আশানুরূপ উন্নতি হয়নি।
স্থানীয় বাসিন্দাদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, মাদরাসার অর্থ সংক্রান্ত বিষয়ে অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্বের কারণে মুহতামিমের সাথে বিরোধ সৃষ্টি হয়। এর রেশ ধরে মাওলানা মোহাম্মদ আলীর বিরুদ্ধে নানারকম ভিত্তিহীন অভিযোগ উত্থাপনের মাধ্যমে তাকে অপসারণের  অপচেষ্টা করে একটি চক্র।
এই মুহতামিমের পদ নিয়ে সৃষ্ট জটিলতার কারণে দীর্ঘদিনের ঐতিহ্যবাহী একটি দ্বীনি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষাদীক্ষাসহ সার্বিক কার্যক্রমে অচলাবস্থা সৃষ্টি হয়েছে। হতাশ হয়ে পড়ছে অভিভাবক ও শিক্ষার্থীরা।
এ প্রসঙ্গে কক্সবাজার পৌরসভার ১২ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর কাজী মোরশেদ আহম্মদ বাবু বলেন, লাইট হাউজ মাদরাসা একটি ঐতিহ্যবাহী দ্বীনি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। কিছু কুচক্রী মহল এই প্রতিষ্ঠানকে ধ্বংস করতে অপচেষ্টা চালাচ্ছে। তিনি বলেন, কারা প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে তা চিহ্নিত।
কাউন্সিলর বাবু বলেন, দ্বীনি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটির অচলাবস্থা নিরসন ও সার্বিক উন্নয়ন অব্যাহত রাখার স্বার্থে যে যার মতো করে সহযোগিতা করছি।
যেভাবেই হোক- ব্যক্তি স্বার্থের দ্বন্দ্বে পড়ে একটি দ্বীনি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে ধ্বংসের কবল থেকে রক্ষায় সবাইকে আন্তরিক হওয়ার আহবান জানিয়েছেন ১১ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর নুর মোহাম্মদ।
তিনি বলেন, এলাকাবাসীর পরামর্শে সবার সমন্বিত প্রয়াসে একটি প্রতিষ্ঠানকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া সম্ভব।