কক্সবাজারে বিনা নোটিশে  কউক এর  উচ্ছেদ অভিযান তিন দোকানের ক্ষয়ক্ষতি ৬০ লাখ

22222.jpg

 

মোঃ নেজামউদ্দিন, ওয়ান নিউজঃ

কোন ধরনের নোটিশ না দিয়ে কক্সবাজার উন্নয়ন কতৃপক্ষ কক্সবাজারের বাজাঘাটাস্থ নাপিতাপুকুর পাড়ের তিনটি ব্যবসা প্রতিষ্টান ভেঙ্গে গুটিয়ে দিয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে।প্রতিষ্টান গুলো হলো ফুলবাড়ি ইভেন্স ,শাহী বিরিয়ানী , ও মাবুদ সুজ। রবিবার (১২মে)  সন্ধ্যায় কক্সবাজারের একটি অভিজাত হোটেলে প্রেস কনফারেন্স কালে অভিযোগ তুলে ধরেন ফুলবাড়ি এন্ড ইভেন্স এর পরিচালক জাকেরুল হক রুবেল ।প্রেস কনফারেন্সে রুবেল জানান আমদের কোন ধরনে উচ্ছেদ এর নোটিশ না দিয়ে কক্সবাজার উন্নয়ন কতৃপক্ষ(কউক) গত ১০মে  তারিখ আমাদের দোকান ভাঙ্গতে আসে, সেদিন কউক চেয়ারম্যান এর সাথে কথা বলে পনের দিনের সময় দেন জিনিস পত্র সরিয়ে ফেলার জন্য । কিন্তু এরই মধ্যে হঠ্যাৎ১২মে  রবিবার (১২মে) সকালে কউক আমাদের আর কোন সময় না দিয়ে তিনটি দোকান ভেঙ্গে ফেলে ।রুবেল জানান আমাদের মাত্র সকালে দশমিনিট সময় দেয়া হয় যেন দোকানের মালামাল বের করে ফেলি যা সম্ভব নয়। রুবেল আরো বলেন ফুলবাড়ি এন্ড ইভেন্টস আমরা বিয়ের ও নানা সামাজিক অনুষ্টানের ডেকোরেশন ও ভিড়িও সহ নানা কাজ করতাম, দোকানে আমাদের প্রয়োজনীয় সামগ্রী কিছুই বের করতে পারিনাই । তার মধ্যে ল্যাপটপ, ড়িএসএলআর ক্যামরা, হান্ডি ভিড়িও ক্যামরা, ডেক্স কম্পিউটার, বিয়ে ও  সামাজিক অনুষ্টানের ডেকোরেশন এর মালামালসহ যার মুল্য প্রায় ৩৫লাখ। আরো বলেন জীবনের শেষ সম্ভল দিয়ে আমি এই প্রতিষ্টান  গড়ে তুলেছিলাম, আজ আমাকে পথে বসিয়ে দিল কক্সবাজার উন্নয়ন কতৃপক্ষ। এদিকে শাহী বিরিয়ানীর মালিক মোঃ সবুজ  তিনি বলেন সবে শুরু করেছি ১০লাখ টাকার ডেকোরেশন করেছি দোকানের জন্য, কিন্তু কউক আমাকে কোন ধরনের নোটিশ না দিয়ে উচ্ছেদ অভিযান শুরু করে আমার চলমান শাহী বিরিয়ানী হোটেলটি মাটির সাথে মিশিয়ে দেয় আমার চোখের পলকে এতে আমার দোকানের ক্ষয়ক্ষতি হয় প্রায় ১৫ লাখের মত। আমরা এখন অসহায় আমাদের চলার একমাত্র ব্যবসা প্রতিষ্টানটি এভাবে বিনা নোটিশে ভেঙ্গে ফেলে ।আমি পথে এসে গেছি পরিবারের একমাত্র চলার সম্ভর ছিল এই প্রতিষ্টানটি ,এ বলে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন তিনি। মাবুদ সুজ এর সত্তাধিকারী মাবুদ জানান গ্রাম থেকে দেনা করে ও বিভিন্ন ফোরাম থেকে ঋণ নিয়ে ৫লাখ টাকা পুজি নিয়ে সুজ এর দোকানটি খুলেছিলাম আমাকেও কোন প্রকার নোটিশ না দিয়ে আমার সুজের দোকানটি ভেঙ্গে ফেলে আমার চোখের সামনে ।

এব্যাপারে কক্সবাজার উন্নয়ন কতৃপক্ষ ( কউক) চেয়ারম্যান এর সাথে টেলিফোনে যোগাযোগ করতে ফোনকরা হলে  তিনি ফোন ধরেননি ।রবিবার (১২ মে) সকালে থেকে দুপুর ২ টা পর্যন্ত কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের সচিব ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আবু জাফর রাশেদ এর নেতৃত্বে জেলা পুলিশের সার্বিক সহযোগিতায় শহরের বাজারঘাটা এলাকায় মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করা হয়।

উলেখ্য কক্সবাজার শহরের ঐতিহ্য তিন পুষ্করিণী লালদিঘী, গোলদিঘী ও বাজারঘাটা (নাপিতাপুকুর) পুকুরটি পর্যটন কেন্দ্র করার উদ্যোগ চলছে। বিশ্বের দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকতের শহর পর্যটন রাজধানী কক্সবাজারের বেহাল চিত্র বদলে আধুনিকায়নকরণের উদ্যোগ হিসেবে পুকুরগুলোকে পর্যটনবান্ধব করার প্রকল্প হাতে নিয়েছে কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (কউক)। এটি বাস্তবায়নে ইতোমধ্যে ৩৬ কোটি টাকার প্রকল্প  চলছে ।