রোজার মাসে সংযমী হন সহকর্মীদের সাথেও!

Collegue.jpg

কর্মজীবী প্রতেককেই পুরো দিনের মাঝে অফিসে সহকর্মীদের সাথে কাটাতে হয় সবচেয়ে বেশি সময়।

রমজান মাস জুড়েও ব্যতিক্রম হয় না সেই রুটিনে। দীর্ঘসময় একসাথে কাজ করার ফলে সহকর্মীদের মাঝে গড়ে ওঠে হৃদ্যতাপূর্ণ সম্পর্ক।

তবে এই মাসে সহকর্মীদের সাথে কোন কথাটি বলা উচিৎ ও কোন আচরণটি এড়িয়ে যাওয়া প্রয়োজন সেটা বুঝতে পারেন না অনেকেই। ইচ্ছা বা অনিচ্ছাকৃত এমন কিছু আচরণে মনঃকষ্ট পেতে পারেন আপনার প্রিয় সহকর্মীটিও। তাই জেনে রাখুন কর্মক্ষেত্রে কোন কথা ও কাজগুলো করা থেকে বিরত থাকা প্রয়োজন সকলের।

দুপুরে খাওয়ার জন্য জোর করা

অনেকেই হয়তো মজাচ্ছলে রোজাদার সহকর্মীদের দুপুরে খাওয়ার জন্য বলেন বা জোর করেন। বিষয়টি কারোর কাছে মজার মনে হতেই পারে। কিন্তু এতে করে রোজাদার ব্যক্তিটি বিব্রত বোধ করেন। শুধু দুপুরে খাওয়ার সময় নয়, চা পানের বিরতিতে কিংবা বাইরে কোন খাওয়ার অনুষ্ঠানে যাওয়ার সময়েও তাকে বারবার ডাকার মতো কাজটি থেকে বিরত থাকতে হবে।

তাদের সামনে পানি পান করা

রমজান মাস হলো সংযমের মাস। সংযমটি আপনি অনেকভাবেই পালন করতে পারেন। যেকোন কারণেই হয়তো আপনি রোজা রাখছেন না। রোজা পালন না করলে পানি পান বা খাবার গ্রহণে কোন বাধা থাকে না। কিন্তু চেষ্টা করুন রোজাদার সহকর্মীর সামনে পানি পান না করতে।

এমনিতেও এখনও গ্রীষ্মকাল ও প্রায় পনের ঘণ্টার লম্বা সময়ের রোজা। স্বাভাবিকভাবেই একজন রোজাদার ব্যক্তির তেষ্টা পাবে। রোজা রাখার ফলে তেষ্টা নিবারণের জন্য তাকে সন্ধ্যা পর্যন্ত অপেক্ষা করতেই হবে। তার সামনে যখন আপনি পানি পান করবেন, বিষয়টি তার জন্য কিছুটা হলেও কষ্টকর হবে। না, এতে তার রোজা হালকা হবে না, তার রোজা ভেঙেও যাবে না। কিন্তু তার প্রতি, তার রোজা পালনের প্রতি সম্মান রেখে এতটুকু তো করাই যায়। তাই ডায়নিং স্পেস বা খালি কোন স্থানে সরে গিয়ে পানি পান করুন এই মাসটিতে।

https://i0.wp.com/img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/May/09/1557378003542.jpg?w=660&ssl=1
সহকর্মীদের মাঝে সম্পর্ক হোক বন্ধুত্বপূর্ণ

 

দাঁত মেজেছে কিনা জিজ্ঞাসা করা

বিশেষজ্ঞরা জানান, রোজা রাখার ফলে মুখের ভেতরের অংশ তুলনামূলক অনেক শুষ্ক হয়ে ওঠে। এতে করে মুখে অনাকাঙ্ক্ষিত বাজে গন্ধ তৈরি হয়। নিয়মিত দাঁত মাজা হলেও পানি পানের অভাবে এমনটা হয়ে থাকে। যা অবশ্যই একজন রোজাদার ব্যক্তির জন্য বিব্রতকর ব্যাপার। এমতবস্থায় তাকে যদি এমন ধরনের প্রশ্নের সম্মুখীন করা হয়, সেটা তার জন্য আরও বেশি বিব্রতকর হয়ে উঠবে। কর্মক্ষেত্রে আসার আগে অবশ্যই তারা দাঁত মেজেই আসেন। কিন্তু দীর্ঘ সময় খাবার ও পানি পান না করার ফলে মুখে কিছুটা বাজে গন্ধ হতেই পারে।

নারী সহকর্মীরা রোজা আছেন কিনা জিজ্ঞাসা করা

খুবই অদ্ভুতভাবে কিছু মানুষ নারী সহকর্মীদের রোজা পালন সম্পর্কে প্রশ্ন করে দারুণ আনন্দ পান। কোনভাবে যদি খেয়াল করেন কোন নারী সহকর্মী রোজা নেই, তবে তাকে অনবরত এই সম্পর্কিত প্রশ্ন করে বিব্রত করেন।

একজন নারী প্রাকৃতিক ও শারীরবৃত্তীয় কারণে সবগুলো রোজা রাখতে পারেন না। পিরিয়ডের ৫-৭ দিন রোজা কাযা হয় প্রতিটি ঋতুবতী নারীর। এই বিষয়টি পূর্ণবয়স্ক সকলেই জানেন। তবুও অহেতুক কোন নারী সহকর্মী রোজা আছেন কি না, রোজা না থাকলে কেন নেই- এই সম্পর্কিত প্রশ্ন করা খুব বাজেই আপত্তিমূলক আচরণ।