ইলেকট্রনিক চোখ আর বাহারি গাছে দৃষ্টিনন্দন আখতারুজ্জামান চত্বর!

ak-sattar-4.jpg

জে. জাহেদ, চট্টগ্রাম ব্যুরো:

নতুন রুপে সেজেছে ঐতিহাসিক আখতারুজ্জামান চত্বর। সাদা রং তুলির আঁচরে পাল্টে গেছে পুরো চত্বরের চিত্র। বাহারি ফুল গাছে তৈরি হয়েছে অপরুপ সৌন্দর্য্য। শ্রদ্ধা আর ভালবাসায় এই স্থাপনার পার্থক্য গড়ে দিয়েছেন পুলিশ। দৃশ্যে ফুটে উঠেছে বর্ণালী সাঁজ।

নগরীর প্রবেশমূখ কর্ণফুলী উপজেলার মইজ্জ্যারটেকে অবস্থিত প্রয়াত বীর মুক্তিযোদ্ধা আখতারুজ্জামান চত্বরের সৌর্ন্দয্য বৃদ্ধি ও দৃষ্টিনন্দন করতে এগিয়ে এলেন বাংলাদেশ পুলিশ।

মাননীয় পুলিশ কমিশনার মাহবুবর রহমান পিপিএম এর সার্বিক দিকনির্দেশনায় কর্ণফুলী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. আলমগীর মাহমুদ এর নেতৃত্বে এসআই মো. আলতাফ হোসেন ও এএসআই মো. জুবায়ের হোসেন সহ সহকর্মীদের প্রচেষ্ঠায় বদলে গিয়েছে পুর্বের ঝোপঝাড় ও জঙ্গল সম রুপ। নতুন রুপে শোভা পাচ্ছে ঐতিহাসিক আখতারুজ্জামান চত্বরটি।

কর্ণফুলী থানা পুলিশের উদ্যোগে মার্চের প্রথম সপ্তাহে পরিস্কার পরিচ্ছন্ন করা হয় এবং ১৮ মার্চ বিকেলে ওসির উপস্থিতিতে চত্বরে রোপন করা হয় কয়েক প্রজাতির শোভাবর্ধক বৃক্ষরাজ। নান্দনিকতা বাড়াতে বাদ যায়নি গাছের গোড়াও।

জনগণের সার্বিক নিরাপত্তা নিশ্চিতে গুরুত্বপ‚র্ণ জায়গায় প্রতিস্থাপন করা হয়েছে (মইজ্জ্যারটেক মোড় ও শিকলবাহা ক্রসিং ) ৮টি ইলেকট্রনিক চোখ। এছাড়াও সম্প্রতি বিট পুলিশিং কার্যক্রমে বেশ প্রশংসা কুড়িয়েছে কর্ণফুলীতে।

প্রসঙ্গত, ৩৬ মিটার ব্যাস ও ১৩ মিটার চারপাশের সড়কে আবৃত চত্বরটির নামকরণ করা হয় দেশের সর্বশ্রেষ্ঠ বীর মুক্তিযোদ্ধা প্রয়াত আখতারুজ্জামান চৌধুরী বাবু’র নামে। এটি ২০১০ সালে সাবেক প্রবাসী ও জনকল্যাণ মন্ত্রী নুরুল ইসলাম বিএসসি ও পটিয়ার সংসদ সদস্য বর্তমান হুইপ শামশুল হক এমপি চত্বরটি নামফলক উদ্বোধন করেন।

কর্ণফুলী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আলমগীর মাহমুদ জানান, স্থানীয় ও দ‚র দ‚রান্ত থেকে আসা মানুষের দৃষ্টিতে একটু বিনোদন দিতেই আমাদের এ উদ্যোগ আর প্রচেষ্ট। আখতারুজ্জামান চত্বরের সৌন্দর্য বর্ধনের ক্ষেত্রে যারা অক্লান্ত পরিশ্রম করেছেন এবং সহযোগিতা করেছেন তাদের সবাইকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি। বিশেষ করে মাননীয় পুলিশ কমিশনার স্যারকে।’ ভবিষ্যতে ও সকলের সহযোগিতা কামনা করেন তিনি।