কক্সবাজারে জমকালো আয়োজনে শিল্প ও বাণিজ্য মেলার শুভ উদ্ভোধন

FB_IMG_1547139368000.jpg
মোঃ নেজাম উদ্দিন।
বাংলাদেশকে ২০২১ সালের মধ্যে মধ্য আয়ের ও ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত দেশে রূপান্তরের লক্ষে ইতোমধ্যে সুনির্দিষ্ট কর্মপরিকল্পনা নেয়া হয়েছে। এ লক্ষ্য অর্জনে ব্যবসা-বাণিজ্যের প্রসারসহ বিনিয়োগ বৃদ্ধিতে নানামুখী কর্মসূচি বাস্তবায়ন করা হবে। সরকারের বহুমুখী অর্থনৈতিক পরিকল্পনা বাস্তবায়নে ও অর্থনীতির দ্রুত বিকাশে কক্সবাজার শিল্পও বাণিজ্য মেলা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।পর্যটন নগরী কক্সবাজারকে সরকার আরো সুন্দরভাবে সাজাতে মেঘা প্রকল্পের কাজ চলমান  কক্সবাজার -৩ আসনের সাংসদ সাইমুম সরওয়ার কমল গতকাল  বর্ণিল আয়োজনে কক্সবাজার শিল্প ও বাণিজ্য মেলার শুভ উদ্ভোধন ­অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যকালে তিনি   কথাগুলো বলেন। গত বৃহস্পতিবার (১০) জানুয়ারী সন্ধ্যায় বেলুন উড়িয়ে ও ফিতা কেটে মেলার আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন অতিথিরা। এসময় আতশবাজির আলোয় আলোকিত হয় নীল আকাশ। কক্সবাজার চেম্বার অফ কমার্স এন্ড ইন্ডাষ্ট্রী ও কক্সবাজার সাংবাদিক ইউনিয়ন আয়োজিত উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন সাইমুম সরওয়ার কমল এমপি।
অনুষ্ঠানে উদ্বোধকের বক্তব্য রাখেন জেলা প্রশাসক মোঃ কামাল হোসেন। তিনি বলেন, ব্যবসায়ীদের নতুন নতুন ধারণা নিয়ে এগিয়ে আসতে হবে। নতুন নতুন পণ্যের বাজার সৃষ্টি করতে হবে। তবেই বাংলাদেশকে সমৃদ্ধশালী দেশে পরিণত করা সম্ভব। এই বাণিজ্য মেলা কক্সবাজারের অর্থনীতিকে আরও সমৃদ্ধ করে তুলবে।
কক্সবাজার চেম্বার অফ কমার্স এন্ড ইন্ডাষ্ট্রীর সভাপতি আবু মোর্শেদ চৌধুরী খোকার সভাপতিত্বে ও কক্সবাজার সাংবাদিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক জাহেদ সরওয়ার সোহেলের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন পুলিশ সুপার এবিএম মাসুদ হোসেন, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক পৌর মেয়র মুজিবুর রহমান, জেলা জাসদের সভাপতি নঈমুল হক চৌধুরী টুটুল ও কক্সবাজার সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি আবু তাহের। অনুষ্ঠানে সম্মানিত অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোঃ মাহিদুর রহমান, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) সাইফুল আশরাফ, জেলা প্রশাসনের পর্যটন সেলের ম্যাজিষ্ট্রেট সাইফুল ইসলাম জয়, নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট জুয়েল আহমেদ, মেলা পরিচালনা কমিটির চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মাশেদুল হক রাশেদ, কাউন্সিলর ও মেলা পরিচালনা কমিটির সদস্য সচিব সালাউদ্দিন সেতু, কাউন্সিলর ও মেলা পরিচালনা কমিটির কো-চেয়ারম্যান কাজী মোরশেদ আহম্মদ বাবু, জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক কায়সারুল জুয়েল, জেলা জাতীয় পার্টি ও সহ-সভাপতি মোশারফ হোসেন দুলাল, মেলা পরিচালনা কমিটির কো-চেয়ারম্যান সাহেদ আলী সাহেদ, প্রধান সমন্বয়কারী নাছির আহমদ ও কাজী রাসেল আহমদ নোবেল। পরে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে গান পরিবেশন করেন দেশের বিখ্যাত শিল্পী শিমুল শীল, আঞ্চলিক গানের খ্যাতনামা শিল্পী মিম ও জোনাকি।
মেলার আয়োজক কমিটি সূত্রে জানা গেছে, এবারের মেলায় শতাধিক স্টল থাকছে। ইতোমধ্যে শেষ হয়েছে ১০০টি সাধারণ স্টল ও ২টি মুখরোচক ফুড স্টলের কাজ। মেলায় অংশ নেয়া প্যাভিলিয়ন ও সাধারণ স্টলে প্রসিদ্ধ গার্মেন্টস, হোমটেক্স, ফেব্রিকস পণ্য, হস্তশিল্পজাত, পাটজাত, গৃহস্থালি ও উপহারসামগ্রী, চামড়া ও চামড়াজাত পণ্য, তৈজসপত্র, সিরামিক, প্লাস্টক, পলিমার পণ্য, কসমেটিকস হারবাল ও প্রসাধনী সামগ্রী, খাদ্য ও খাদ্যজাত পণ্য, ইলেকট্রিক ও ইলেকট্রনিকস সামগ্রী, ইমিটেশন ও জুয়েলারি ও ফার্নিচার এর স্টল রয়েছে। এছাড়া শিশুদের বিনোদনের জন্য মেট্রো রেল, নৌকা দোলনা, নাগরদোলা, ওয়াটার স্পীড বোট, জাম্পিং বেলুন, ওয়াটার বল, ফাইভার ইলেকট্রিক চর্কি ও মিনি হাতি ঘোড়া বসানো হয়েছে। মেলার অপর পার্শে¦ মৃত্যু কূপ, যাদু প্রদর্শনী রয়েছে। মেলায় স্বনামধন্য দেশীয় ব্র্যান্ড প্রতিষ্ঠান কিয়াম, প্রাণ, আরএফএল, এসিআই ছাড়া দেশী-বিদেশী কার্পেট, জামদানি ও রাজশাহী সিল্ক শাড়ির প্যাভেলিয়নও রয়েছে। প্রতিদিন মেলা প্রাঙ্গণে খ্যাতনামা শিল্পীদের অংশগ্রহণে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হবে।