আপডেটঃ
শহরে দুর্বৃত্তের হাতে অন্তঃসত্ত্বাসহ ৯ নারী আহতইছানগরের আলোচিত সেই ভবন মালিকের আত্মসমর্পণস্থানীয়দের মাঝে বহাল তবিয়তে অর্ধলক্ষাধিক রোহিঙ্গার বসবাস!আল্লাহর কাছে ক্ষমা চেয়ে আত্মসমর্পণ করুন -স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামালরোহিঙ্গ্যা মানবিক সংকটে জাতিসংঘের ৯২০মিলিয়ন ডলার আহ্বানতিনদিনের সফরে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন এখন কক্সবাজারেচট্টগ্রামে মানবিক মেলা উদ্বোধন করেন ভূমিমন্ত্রী‘এ যেন ভানুমতির খেল’৯ শিশু শিক্ষার্থীর স্মরণে শোক র‌্যালিমানবাধিকার কর্মী ও ভুয়া সাংবাদিকদের প্রতারণার দৌরাত্ব্য বেড়েই চলেছেনির্বাচন কমিশনে চাকরিশিল্প মন্ত্রণালয়ে নিয়োগযৌন প্রস্তাবের যে গোপন কোড ফাঁস করলেন শার্লিনকিং সৌদ বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিন অ্যাওয়ার্ড পেলেন ২ বাংলাদেশি শিক্ষার্থী‘নতুন রোনাল্ডোর’ জন্য ম্যানইউর ১০০ মিলিয়ন ইউরো

যেখানে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট, সেখানেই সালাহউদ্দিন

salahuddin.jpg

 মুহাম্মদ আবু সিদ্দিক ওসমানী :

গণতন্ত্র উদ্ধারের উত্তাল হাওয়া যেখানে বইছে, সেখানেই সালাহউদ্দিন আহামদ। জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট, বিএনপি কিংবা গণতান্ত্রিক অধিকার আদায়ের সংগ্রাম যেখানেই চলছে, সেখানেই কক্সবাজারের কৃতি সন্তান সালাহউদ্দিন আহামদ বুক ফুলিয়ে সক্রিয়ভাবে আছেন। হয়ত সালাহউদ্দিন আহামদ স্বশরীরে দেশের সভা সমাবেশ, সেমিনারে উপস্থিত নেই, কিন্তু তাঁর পোস্টার, ব্যানার, ফেষ্টুন, মাথার ক্যাপ ইত্যাদি নিয়ে সালাহউদ্দিন আহামদের অজস্র ভক্তরা সক্রিয় ও স্বউদ্যোগে উপস্থিত থেকে সবখানে সালাহউদ্দিন আহামদের শূণ্যতা পূরন করছে।

জানান দিচ্ছে,  সালাহউদ্দিন আহামদও এই গণতান্ত্রিক আন্দোলনের সক্রিয় অংশীদার। উৎসাহ ও সাহস যোগাচ্ছে, শ্লোগান দিচ্ছে, অনুপ্রেরণা যোগাচ্ছে, মিছিল করছে সালাহউদ্দিন আহামদের অমীয় বানী ও অগ্নিঝরা বক্তব্য সমেত পোস্টার, ব্যানার, ফেস্টুন উচিয়ে ধরছে। মনে হচ্ছে যেন, সালাহউদ্দিন আহামদ সেখানে স্বশরীরেই উপস্থিত আছেন।

সাবেক প্রতিমন্ত্রী সালাহউদ্দিন আহামদের ভক্তরা সার্বক্ষণিক জানান দিচ্ছে, তিনি দেশে ফিরতে নাপারলেও তাঁর রাজনৈতিক পাঠশালায় গড়ে উঠা শহীদ জিয়ার আদর্শের সৈনিকেরা গণতন্ত্র পূণরুদ্ধারের সংগ্রামে সর্বত্র চষে বেড়াচ্ছে। এভাবেই সম্প্রতি অনুষ্ঠিত হওয়া জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সিলেট, চট্টগ্রাম, ঢাকার সোহরাওয়ার্দী উদ্যান সহ প্রায় সকল সভা সমাবেশ, সেমিনার ও জমায়েতে সালাহউদ্দিন আহামদের অনুসারী বাংলাদেশি জাতীয়তাবাদের প্রবক্তা শহীদ জিয়ার আদর্শের সৈনিকদের অবস্থান ছিল রীতিমতো চোখে পড়ার মতো।

একজন রাজনৈতিক নেতা দীর্ঘ প্রায় সাড়ে ৩ বছর  সময় ধরে সুদূর ভারতে থাকার পরও তার হাতে গড়া নেতা কর্মীরা কিভাবে রাজনীতির ময়দানকে সবসময় সক্রিয় রাখছেন সেটা চোখে নাদেখলে বুঝা যাবেনা।

একইভাবে সালাহউদ্দিন আহামদের নিজস্ব জেলা কক্সবাজারও সরব রাখছেন এই বিস্ময়কর প্রতিভাসম্পন্ন নেতার তিলে তিলে গড়ে তোলা তাঁর প্রিয় সংগঠন বিএনপি ও অংগসংগঠনসমুহের সক্রিয় নেতাকর্মীদের ত্যাগতিতিক্ষায়। তাদের সরব কর্মকান্ডের কারণে দূর্বৃত্তরা তাদের বিষদাঁত বের করতে চাইলেও তারা সহজে তা পারছেনা।

বিএনপি’র স্থায়ী কমিটির সদস্য সালাহউদ্দিন আহামদের নিজস্ব সংসদীয় আসন চকরিয়া-পেকুয়া যেন গণমানুষের ভোটের অধিকার আদায়ে চলমান গণতান্ত্রিক আন্দোলন-সংগ্রামের সুতিকাগার। অত্যন্ত মেধাবী ও চৌকস অভিজ্ঞতাসম্পন্ন সালাহউদ্দিন আহামদের দূরদর্শীতায় তাঁর হাতে গড়া শহীদ জিয়ার আদর্শের নেতা কর্মীরা সংগঠনের জন্য ত্যাগ করে মাতিয়ে রেখেছেন রাজনীতির কন্ঠকাকৃর্ণ ময়দান।

বিএনপি জাতীয় নির্বাহী কমিটির তৎকালীন যুগ্মমহাসচিব সালাহউদ্দিন আহামদ ২০১৫ সালের প্রথমদিকে দেশের রাজনীতির উত্তাল সময়ে বিএনপি’র কেন্দ্রীয় মুখপাত্র হিসাবে সফলভাবে দায়িত্ব পালনকালীন সময়ে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পরিচয়ে অচেনা মুখোশধারী লোকজন সালাহউদ্দিন আহামদকে ঢাকাস্থ উত্তরার একটি বাসা থেকে চোখ বেঁধে গুপ্তস্থানে তুলে নিয়ে যায়।

দীর্ঘদিন গুম থাকার পর সালাহউদ্দিন আাহামদকে ভারতের মেঘালয় রাজ্যের রাজধানী শিলং শহরের গলফ লিংক মাঠে ২০১৫ সালের ৩ জুলাই বিপর্যস্ত অবস্থায় পাওয়া যায়। পরে মেঘালয় রাজ্যের পুলিশ সালাহউদ্দিনের বিরুদ্ধে ভারতে অনুপ্রবেশের অভিযোগ এনে বৈদেশিক নাগরিক আইনের ১৪ ধারায় মামলা দায়ের করে।

তখন থেকে শিলং শহরে খাসিয়া খ্রিষ্টান অধ্যুষিত এলাকায় সানরাইজ গেষ্টহাউজ নামক একটি ভাড়া বাড়িতে থেকে প্রায় সাড়ে ৩ বছর মামলায় লড়ে সালাহউদ্দিন আহামদ গত ২৬ অক্টোবর সেখানকার আদালতের রায়ে মামলা থেকে বেকসুর খালাস পান।

মামলার রায় অনুযায়ী সালাহউদ্দিন আহামদকে বাংলাদেশ ও ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রনালয় পরস্পর যোগাযোগ করে ভারতের সীমান্ত বাহিনী বিএসএফের মাধ্যমে বাংলাদেশে সীমান্ত বাহিনী বিজিবি’র নিকট হস্তান্তরের প্রক্রিয়া শুরু করা হয়েছে বলে সংশ্লিষ্ট সুত্রে জানা গেছে।

তুখোড় জনপ্রিয় ও জনবান্ধব  সালাহউদ্দিন আহামদকে বুকে জড়িয়ে অভ্যর্থনা জানানোর অপেক্ষায় মামলা থেকে বেকসুর খালাস পাওয়ার পর হতে প্রহর গুনছে তাঁর অযুত লক্ষ ভক্ত, অনুসারী ও নেতাকর্মীরা।

(লেখক: এডভোকেট, বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্ট, ঢাকা।)

Top