রামুতে সৃজনে উন্নয়নে বাংলাদেশ শীর্ষক আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্টান অনুষ্টিত

Ramu-4.jpg

এস এম হুমায়ুন কবির,কক্সবাজার।।

‘সৃজনে উন্নয়নে বাংলাদেশ’ শীর্ষক উৎসবে সামিল হয়েছে রামু উপজেলা। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ১০টি বিশেষ উদ্যোগে সাফল্য, জনপ্রিয়তা ও গুরুত্ব সম্পর্কে সর্বসাধারণকে অবহিত করার লক্ষ্যে এই উৎসবের আয়োজন করা হয়।

দিনব্যাপী উৎসবের মধ্যে রয়েছে র‌্যালী, আলোচনা সভা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, মেলা ও শিক্ষার্থীদের জন্য প্রতিযোগিতামূলক নানা অনুষ্ঠান। এসময় রামু উপজেলা চেয়ারম্যান রিয়াজ উল আলম বলেন, বর্তমান শেখ হাসিনা সরকারের আমলে সারাদেশে অভূতপূর্ব উন্নয়ন হয়েছে। তেমনি রামুর প্রতিটি এলাকায় ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছে। বাংলাদেশ এখন উন্নয়নের রোল মডেল। দেশ আজ খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ এবং বিদ্যুৎ উৎপাদনে রেকর্ড তৈরি করেছে। দেশের টাকায় পদ্মাসেতু নির্মাণ হচ্ছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্য দেশ আজ সারাবিশে^ পরিচিতি লাভ করেছে। জননেত্রী শেখ হাসিনা আজ দেশের পাশাপাশি বিশ^ নেতৃত্বের মর্যাদায় আসীন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ আজ উন্নয়নশীল দেশে পরিণত হয়েছে। তাই দেশের উন্নয়নে ধারাবাহিকতা রাখতে শেখ হাসিনাকে আবারো ক্ষমতায় আনতে হবে বলে তিনি অভিমত ব্যক্ত করেন।

মঙ্গলবার (৩০ অক্টোবর) সকাল ১০টায় “সৃজনে উন্নয়নে বাংলাদেশ” এ-শ্লোগান নিয়ে উপজেলা পরিষদ প্রাঙ্গণ থেকে একটি র‌্যালী বের হয়ে গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করে।

র‌্যালীতে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান রিয়াজ উল আলম, উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. লুৎফুর রহমান ভাইস চেয়ারম্যান আলী হোসেন, উপজেলা সহকারী কমিশনার ভূমি চাই থোয়াইহলা চৌধুরী, রামু থানার ওসি মুহাম্মদ আবুল মনসুর, ফতেখাঁরকুল ইউপি চেয়ারম্যান ফরিদুল আলম, রামু সরকারী কলেজের অধ্যক্ষ আবদুল হক, যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা মাহবুবুর রহমান, সূর্যের হাসি ক্লিনিকের ব্যবস্থাপক খন্দকার দেলোয়ার হোসেন, মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা শিরীন ইসলাম, মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার আরিফুল ইসলাম, প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার গৌর চন্দ্র দে, সহকারী প্রকৌশলী এলজিইডি আবুছ উদ্দিন, পল্লী উন্নয়ন অফিসার ইয়াসিন আরাফাত, সহকারি পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা মো. সাদেকুর রহমান, রামু তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি অধিদপ্তরের মোঃ জহিরুল ইসলাম, সাংবাদিক খালেদ হোসেন টাপু প্রমুখ।

অনুষ্ঠান সঞ্চালনায় ছিলেন ঈদগড় রেঞ্জ কর্মকর্তা এমদাদুল হক।সন্ধ্যায় উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে নির্বাহী অফিসার মো. লুৎফুর রহমানের সভাপতিত্বে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সব শেষে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশিত হয়। উৎসবে বিভিন্ন গানে দর্শকদের মাতিয়ে তোলেন শিল্পী মীম, মোরশেদ উল্লাহ, শহিদুল হাসান,খালেদ হোসেন টাপু, সুমন দে, জাতীয় পর্যায়ে দেশের গানে (গোল্ড মেডেল) অর্জনকারী ইপসিতা, ইশমামসহ স্থানীয় শিল্পীবৃন্দ।