মানবতার সেবক ডাক্তার রেজাউল করিম মনছুর

dd1.jpg

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ
কক্সবাজারের মানবতার  সেবক ডাক্তার রেজাউল করিম মনছুর, এমনটি মনে করেন সাধারন জনগন। কক্সবাজার জেলার অন্যতম নিউরোমেড়িসিন ডাক্তার  হিসাবে খ্যাতি দিনদিন ছড়িয়ে যাচ্ছে পুরো জেলা ছাড়িয়ে বিভাগে । তারপরেও তিনি একমাত্র নিজ জম্মভুমি কক্সবাজারের মানুষকে ভালবেসে নিজ এলাকায় নিজ জেলায় অকাতরে মানব সেবায় ব্রত থাকতে চান বলে জানান তিনি ।
ডাক্তার শব্দটি শুনলেই মনে হয় সৃষ্টিকর্তার মহান এক দান এই শব্দটি। কারন যারা এই পেশার সাথে জড়িত তারা মৃত্যুর আগ পর্যন্ত মানব সেবা করে যাচ্ছেন। যেন জম্ম হয়েছে মানব সেবার জন্য। ড়াক্তারদের নাক ছেটানোর অভ্যাস নেই ।তারা অনায়সে একজন রোগীকে আপনজনের মত সেবা করে থাকেন ।ঠিক তেমনই একজন ড়াক্তারের কথা বলছি তিনি কক্সবাজার জেলার একমাত্র নিউরোমেড়িসিন বিশেষজ্ঞ কক্সবাজার সরকারী মেড়িকেল কলেজ এর সহযোগী অধ্যাপক ডাক্তার এ এমএম রেজাউল করিম মনছুর । বুধবার রাতে নিজ প্রয়োজনে যাওয়া হয় কক্সবাজার সেন্ট্রাল হাসপাতালে তখন রাত প্রায় দশ কি সাড়ে দশটা ওয়েটিং রুমে বসা বেশ কয়েকজন রোগীর দেখা পেলাম জানতে চাইলাম কোন ড়াক্তারের জন্য অপেক্ষায় আছেন তারা হাসপাতালের একজন জানালেন রেজাউল করিম স্যারকে দেখানোর জন্য অপেক্ষা করছেন । টেকনাফ থেকে আসা মোহাম্মদ উল্লাহ (৪৫) জানতে চাইলাম আপনি উনাকে না দেখিয়ে অন্য ড়াক্তার কে তো দেখাতে পারেন ? তিনি জবাবে জানান বাবা আমি দেখাবো ভালো কথা চিকিৎসা কি ভাল পাবো আমি এর আগে একবার দেখিয়েছি ভাল লেগেছে তাই আসলাম আরেকবার চেকআপ করার জন্য ।ইসলামপুরের মোক্তার মেম্বার জানান আমি স্ট্রোক করেছিলাম বাচাঁনোর মালিক আল্লাহ তবে আমার বেচেঁ থাকার জন্য আল্লাহপাক উছিলা হিসাবে ড়াক্তার সাহেবকে আমরা পেয়েছি । এমন বড় মাপের একজন ড়াক্তার এমন ছোট শহরে পড়ে আছেন তাও আমাদের জন্য সৌভাগ্য। এমন নিউরোমেড়িসিন ড়াক্তার যদি আমরা চট্রগ্রাম অথবা ঢাকা দেখানোর জন্য যায় প্রথমে সিরিয়াল দিতে আমাদের অনেক সমস্যা পোহাতে হবে, তার পর গুনতে হবে ভিজিট হিসাবে দুই হাজার থেকে আড়াই হাজার টাকা। তারপরে আছে যাতায়াত খরচ! সব দিক থেকে চিন্তা করে আমরা নামমাত্র ভিজিটে একজন ভাল ডাক্তারের চিকিৎসা পাচ্ছি। এদিকে কক্সবাজারস্থ রুমালিয়ারছড়ার এড়ঃ ছৈয়দ করিম বলেন ড়াক্তার রেজাউল করিম আমাদের কক্সবাজার জেলার গর্ব

ফাইল ছবি

। আমি দীর্ঘদিন উনার চিকিৎসায় আছি এবং ভাল চিকিৎসা করে আসছে আমি এখন অনেকাংশে সুস্থ। এদিকে জানা যায় তার ড়াক্তারী জীবনের এমন জনপ্রিয়তার অনেকের চক্ষুসুল হয়ে আছেন ।একটি মহল পায়তারা করছে কক্সবাজার থেকে ড়াক্তারএ এম এম রেজাউল করিম মনছুর কে বদলী করে তার জায়গা দখল করে ড়াক্তারী বানিজ্য শুরু করবে। সাধারন জনগন মনে করেন যদি এমন ড়াক্তার গন মফস্বল শহর থেকে চলে যান বা বদলী করানো হয় তবে সাধারন ও মধ্যবিত্ত পরিবারের উপর প্রভাব পড়বে বেশি ,কারন অনেক পরিবার তাদের সামর্থ নেই চট্রগ্রাম বা ঢাকা গিয়ে ড়াক্তার দেখানো । কক্সবাজার জেলার এমাত্র নিউরোমেড়িসিন ডাক্তার হিসাবে ড়াঃ রেজাউল করিম মনছুর কক্সবাজার থাকলে সাধারন মানুষ ভাল চিকিৎসা সেবা পাবেন । ড়াক্তার রেজাউল করিম জানান আমি আমার প্রেসক্রিপশন প্রিন্ট কমপিউটার প্রিন্ট করে দিই , যেন রোগীরা বুজতে পারে কোন মেড়িসিন আমি লিখেছি । তিনি আরো বলেন যেহেতু কক্সবাজার মেড়িকেল কলেজ মফস্বল শহরে অবস্থিত বেশিভাগ চিকিৎসক এখানে সপ্তাহে ১/২দিনের বেশি অবস্থান করেন না তাই আমি নিউরোমেড়িসিন ড়াক্তার হিসাবে আমার রোগী বেশি থাকে এবং অনেক সময় দায়িত্বের বাইরেও আমাকে নিউরো সার্জারী আইসিও সর্বক্ষে অতিরিক্ত দায়িত্ব পালন করতে হয় ।চেম্বারে সিরিয়ালের মাধ্যমে সুশৃঙ্খলভাবে রোগী দেখে কমপিউটারাইড় প্রেসক্রিপশন দেওয়ার ফলে অনেকরে রিকোয়েস্ট রক্ষা করা সম্ভব হয়না বিধায় একটু অপেক্ষা রার নাম যদি হয় নাজেহাল করা হয়েছে তাহলে কিছু করার নেই।এদিকে সম্প্রতি অনলাইন মিড়িয়াতে ডাক্তার রেজাউল করিম মনছুরকে নিয়ে বিভিন্ন প্রসংশা সুলভ আলোচনা হতে থাকে মোশের্দুর রহমান এর পেইজবুক টাইম লাইনে লেখা হয় কক্সবাজার জেলার অহংকার, চিকিৎসক সমাজের কান্ডারি ডা: অধ্যাপক রেজাউল করিম মনছুর স্যার। ডাক্তারি পেশার মহত্ত্ব।।” প্রিয় স্যারের সার্বক্ষণিক চিন্তা ও সাধনা, কীভাবে অসুস্থ মানুষের মুখে হাসি ফুটানো যায়, কীভাবে লোকজনের দুঃখ-কষ্ট লাঘব করা যায় এবং কীভাবে মানুষকে সুস্থ-সবল অবস্থায় ফিরিয়ে আনা যায়।এজন্য প্র্রিয় স্যার একজন উত্কৃষ্ট ডাক্তার উত্কৃষ্ট মানবতাবাদীও বটে। মানুষের জীবন-মৃত্যুর সাথী সুখ-দুঃখের পরম বন্ধু প্রিয় স্যার। স্যারের লক্ষ্য হচ্ছে সাধারণ মানুষের আস্থা ও ভালবাসার যথার্থ মূল্যায়ন করে এবং সততা ও যোগ্যতার সাথে রোগীর অধিকার নিশ্চিত করা। কধভরষ টফফরহ পেইজবুক আইড়িতে লেখা হয় কক্সবাজার জেলার একমাত্র নিউরোমেডিসিন বিশেষজ্ঞ, যিনি সপ্তাহে সাতদিনই বিশেষায়িত সেবা দিয়ে যাচ্ছেন কক্সবাজারের নিউরোমেডিসিনের রোগীদের ; সাথে কক্সবাজার মেডিকেল কলেজের ছাত্র-ছাত্রীদের নিয়মিত ক্লাস নিচ্ছেন কক্সবাজারে থেকেই। রোগী দেখার ফি নির্ভর করে নিজের অর্জিত ডিগ্রী ও পেশায় অভিজ্ঞতার ভিত্তিতে। ডা. এ এম এম রেজাউল করিম মনছুরের অর্জিত ডিগ্রীও বেশী, পদবী সহযোগী অধ্যাপক, অভিজ্ঞতাও বেশী – সুতরাং তিনি রোগী দেখার ফি বেশী দাবী করতেই পারেন। একজন রোগী দেখার ফি সাতশত টাকা তেমন কোন বেশী টাকা নয়।

সম্প্রতি একটি সংবাদ নিয়ে একজন রোগী আরেফা তাসনিম আক্ষেপ করে বলেনআমাদের সমাজে কেন মানুষ ভাল হবে? ডা:রেজাউল করিম মনসুর স্যার আসলেই একজন ভাল ডাক্তার এবং অমায়িক ব্যক্তিত্ব।আমি নিজে উনার রোগী,এবং আমি কক্সবাজারবাসী ও সমাজের একজন সচেতন মানুষ।আমাদের শ্রদ্ধেয় স্যার ডা:আবুল ফয়েজের সাথে উনার তুলনা করা যায়।তাঁকে পেয়ে কক্সবাজারবাসী ধন্য।একজন এত ভাল ডাক্তার ও ভাল মানুষকে নিয়ে অনাকাংখিত সাংবাদিকতা?কক্সবাজারে বুঝি আর সব পরিবেশ পরিস্থিতি অসাধারণ অনুকূলে আছে আর একজন ভাল ও সিনিয়র চিকিৎসক প্রাইভেট চেম্বারে কতটাকা ফি নিচ্ছেন,এটাই টক অব দি টাউন হয়ে গেল?এমন সাংবাদিকতার নিন্দা জানাই। এদিকে সম্প্রতি কক্সবাজারের স্থানীয় পত্রিকায় প্রকাশিত পত্রিকার সংবাদ নিয়ে দৈনিক রুপালী সৈকত প্রতিবেদক ড়াক্তার রেজাউল করিম এর সাথে কথা হলে তিনি বলেন সংবাদটিতে যা প্রকাশিত হয়েছে তা সম্পূর্ণ মিথ্যা ও বানোয়াট আমাকে বদলীর প্রচেষ্টা ও একটি মহল আমার অনুপস্থিতির সুযোগ নিয়ে চিকিৎসা বানিজ্য করার পায়তারা করে আসছে ।এদিকে প্রকাশিত সংবাদ এর ব্যাপারে জানতে চাইলে তিনি বলেন ঐ সংবাদে একাংশে বলা হয়েছে আমি ১৭ই আগষ্ট পাবলিক লাইব্রেরীর মিলনায়তে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের মৃত্যুবার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে আয়োজিত সকাল ৯টা থেকে দুপুর একটা অবধি চিকিৎসা ক্যাম্পে না থেকে নিজ চেম্বারে রোগী দেখছি মর্মে বলা হয় অথচ আমি ঐদিন সকাল থেকে বিকাল পর্যন্ত সেই চিকিৎসা ক্যাম্পে ১২০ জনের অধিক রোগীর সেবা প্রদান করি অপরদিকে সরকারী নীতমালা এবং এলাকার মানুষের প্রতি দায়বদ্ধতার কারনে চট্রগ্রাম না গিয়ে আমি আমার কর্ম এলাকা কক্সবাজারে চেম্বার করি । এবং প্রতি শুক্রবার নিজ গ্রামে নাম মাত্র ভিজিট নিয়ে আমি আমার এলাকার অসহায় রোগীদের সেবা দিয়ে আসছি ।অন্যদিকে আমাকে নিয়ে আরো লেখা হয়েছে কলেজে সরকারী কোন অনুষ্টান বা সরকারী সফরে ভিভিআইপি গন আসলে আমি থাকি না আমি তাদের বলতে চাই আমার পেইজবুক আইড়িটি একবার চোখ বুলিয়ে আসুন তা হলে জানা যাবে সব বিষয়। এবং আমার সচিত্র দলিলাদি আছে । এ নিয়ে প্রিয় সুশীল সমাজকে বিভ্রান্ত না হওয়ার আহবান জানান।