আপডেটঃ
শহরে দুর্বৃত্তের হাতে অন্তঃসত্ত্বাসহ ৯ নারী আহতইছানগরের আলোচিত সেই ভবন মালিকের আত্মসমর্পণস্থানীয়দের মাঝে বহাল তবিয়তে অর্ধলক্ষাধিক রোহিঙ্গার বসবাস!আল্লাহর কাছে ক্ষমা চেয়ে আত্মসমর্পণ করুন -স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামালরোহিঙ্গ্যা মানবিক সংকটে জাতিসংঘের ৯২০মিলিয়ন ডলার আহ্বানতিনদিনের সফরে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন এখন কক্সবাজারেচট্টগ্রামে মানবিক মেলা উদ্বোধন করেন ভূমিমন্ত্রী‘এ যেন ভানুমতির খেল’৯ শিশু শিক্ষার্থীর স্মরণে শোক র‌্যালিমানবাধিকার কর্মী ও ভুয়া সাংবাদিকদের প্রতারণার দৌরাত্ব্য বেড়েই চলেছেনির্বাচন কমিশনে চাকরিশিল্প মন্ত্রণালয়ে নিয়োগযৌন প্রস্তাবের যে গোপন কোড ফাঁস করলেন শার্লিনকিং সৌদ বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিন অ্যাওয়ার্ড পেলেন ২ বাংলাদেশি শিক্ষার্থী‘নতুন রোনাল্ডোর’ জন্য ম্যানইউর ১০০ মিলিয়ন ইউরো

এবারও হজের খুতবায় নতুন খতিব

Hajj.jpg

ওয়ান নিউজ ডেক্সঃ ১৯৮১ সাল থেকে টানা ৩৫ বছর হজের খুতবা দিয়েছেন সৌদি আরবের গ্র্যান্ড মুফতি শায়খ আবদুল আজিজ বিন আবদুল্লাহ আশ শায়খ। ২০১৬ সালে তিনি বার্ধক্যজনিত কারণে অবসর নেন।

২০১৬ সালে হজের খুতবা দেন মসজিদের হারামের প্রধান ইমাম ও খতিব ড. আবদুর রহমান আস সুদাইস। সুললিত কন্ঠে কোরআন তেলাওয়াতের দরুণ বিশ্বে ব্যাপক জনপ্রিয় ড. সুদাইসকে হজের খতিব হিসেবে স্থায়ী মনে করা হলেও ২০১৭ সালে ঘোষণা হয় শায়খ ড. সাআদ আশ শাসরি এবার হজের খুতবা দেবেন। ইসলামি আইনে অভিজ্ঞ ও সুপণ্ডিত ড. আশ শাসরিকে ভাবা হচ্ছিল তিনিই হয়তো স্থায়ীভাবে হজের খুতবা দেওয়ার দায়িত্বটি পালন করবেন। কিন্তু না, চলতি হজে খুতবা দেওয়ার জন্য নতুন আরেকজন খতিব নির্বাচন করা হলো।

এবারের হজে খুতবা দেবেন শায়খ ডা. হুসাইন বিন আবদুল আজিজ আশ শায়েখ। শায়খ ডা. হুসাইন বিন আবদুল আজিজ আশ শায়েখ ১৯৮৯ সাল থেকে মসজিদে নববীর ইমাম ও খতিবের দায়িত্ব পালন করছেন। তিনি মসজিদে নববীর শিক্ষক ও শায়খুল হাদিস। তিনি মদিনা সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের বিচারক হিসেবে ২৭ বছর ধরে দায়িত্ব পালন করছেন।

তিনি ১৯৬৪ সালে জন্মগ্রহণ করেন। ইমাম মুহাম্মদ বিন সাউদ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে মাস্টার্স ডিগ্রী অর্জন শেষে উচ্চতর ইসলামী আইন নিয়ে পিএইচডি ডিগ্রী লাভ করেন। তিনি শায়খ আবদুল্লাহ বিন বায (রহ.)-এর অন্যতম ছাত্র।

বাদশাহ সালমান বিন আবদুল আজিজ মঙ্গলবার (১৪ আগস্ট) এক রাজকীয় আদেশে তাকে হজের খতিব হিসেবে নিয়োগ দেন।

আরাফার ময়দানের পাশে অবস্থিত মসজিদের নামিরা থেকে হজের খুতবা দেওয়া হয়। নিয়ম অনুযায়ী সৌদি আরবের স্থানীয় সময় বেলা সোয়া ১২টার (বাংলাদেশ সময় ৩টা) দিকে খুতবা শুরু হয়।

আরবি জিলহজ মাসের ৯ তারিখ সূর্য হেলে পড়ার পর থেকে ১০ তারিখ সুবহে সাদিকের পূর্ব পর্যন্ত যে কোনো সময় আরাফাতের ময়দানে অবস্থান করা হজের অন্যতম ফরজ আমল। উল্লেখিত সময়ের মধ্যে সামান্য সময় আরাফাতের ময়দানে অবস্থান করলে হজের ফরজ আদায় হয়ে যাবে।

Top