হজ ফ্লাইট বিপর্যয়ে কারা দায়ী?

ওয়ান নিউজ ডেক্সঃ হজ ফ্লাইটের বিপর্যয়ের জন্য একে অপরকে দুষছে বাংলাদেশ বিমান কর্তৃপক্ষ ও হজ এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (হাব)।হজ এজেন্সিগুলোর সমন্বয়হীনভাবে বাড়ি ভাড়া করার কারণেই মূলত একের পর এক ফ্লাইট বিপর্যয় ঘটছে বলে বুধবার সংবাদ সম্মেলনে দাবি করেছেন বাংলাদেশ বিমানের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও সিইও এ এম মোসাদ্দেক আহমেদ। বিমান কর্তৃপক্ষের এই দাবিকে নাকচ করে দিয়ে হজ এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (হাব) মহাসচিব শাহাদাত হোসাইন তসলিম বলেন, ‘হজের ফ্লাইট বিপর্যের জন্য বাংলাদেশ বিমানই দায়ী। বিমানের খামখেয়ালিতেই শিডিউল বিপাকে হজযাত্রীরা।’

বুধবার দুপুরে আশকোনার হজ ক্যাম্পে উপস্থিত সাংবাদিকদের তিনি এ কথা বলেন।

তিনি আরো বলেন, ‘বাংলাদেশ বিমানকে যেমন সৌদি আরবের নিয়ম মেনে ফ্লাইট পরিচালনা করতে হয়, ঠিক তেমনি হজ এজেন্সিগুলোকেও সৌদির নিয়ম মেনে বাড়ি ভাড়া করতে হয়।’

সাংবাদিকেদর প্রশ্নের জবাবে শাহাদাত হোসাইন তসলিম বলেন, ‘যেহেতু বাংলাদেশ বিমান আমাদের সাথে যোগাযোগ না করে বিমানের শিডিউল ঠিক করে তাই এই দায় তাদের। তাই বাংলাদেশ বিমানকে যেভাবে হোক সকল হজযাত্রীকে সৌদি পাঠাতে হবে।’

প্রসঙ্গত, ভিসা জটিলতায় যাত্রী সংকটের কারণে এখন পর্যন্ত মোট ২৩টি ফ্লাইট বাতিল ঘোষণা করা হয়েছে। এই মধ্যে ১৯টি বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের আর বাকি ৪টি সৌদি এয়ারলাইন্সের।

এ বছর সরকারি ও বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় মোট হজযাত্রীর সংখ্যা ১ লাখ ২৭ হাজার ১৯৮ জন।

হজযাত্রীদের সৌদি আরবে যাত্রার প্রথম ফ্লাইট সেখানে পৌঁছেছে ২৪ জুলাই। শেষ ফ্লাইট যাবে ২৮ আগস্ট। ফিরতি ফ্লাইট শুরু হবে ৬ সেপ্টেম্বর ও শেষ ফিরতি ফ্লাইট ৫ অক্টোবর।

চাঁদ দেখা সাপেক্ষে পহেলা সেপ্টেম্বর হজ অনুষ্ঠিত হতে পারে।

মন্তব্যসমূহ বন্ধ করা হয়.