শার্শায় নির্বাচনী সহিংসতায় নিহত ১; সড়ক অবোরোধ সহ ঝাড়ু মিছিল

ইয়ানূর রহমান : যশোরের শার্শায় নির্বাচনী সহিংসতায় আহত মোস্তাক ধাবক নামে এক যুবক ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন । সে বাগআঁচড়া ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের কৃষি বিষয়ক সম্পাদক আব্দুল খালেক ধাবক এর ছেলে।

এলাকাবাসি জানান, গত ১৬ নভেম্বর মঙ্গলবার রাত ১০টায় চেয়ারম্যান প্রার্থী ইলিয়াস কবির বকুল তার কর্মীদের আব্দুল খালেক খতিব ধাবককে ডাকতে পাঠায় নির্বাচনী কার্যালয়ে। এ সময় বকুলের কর্মীরা আব্দুল খালেক খতিব ধাবককে বাড়ি থেকে ধরে নিয়ে নির্বাচনী কার্যালয়ের সামনে নিয়ে ধারালো অস্ত্র দিয়ে তার মাথায় আঘাত হয়। এতে সে গুরুতর আহত হয়ে ঢাকায় চিকিৎসাধীন ছিলেন ।

এ খবর শুনে আব্দুল খালেক ধাবকের বড় ছেলে মোস্তাক ও ছোট ছেলে সাইদ বাবাকে চেয়ারম্যান প্রার্থী ইলিয়াস কবির বকুলের হাত হতে বাঁচাতে এগিয়ে গেলে তাদেরকেও হত্যার উদ্দ্যেশ্যে কুপিয়ে জখম করে। এ সময় স্থানীয়রা আহতদের উদ্ধার করে যশোর জেনারেল হাসপাতালে পাঠায়। সেখানে তাদের অবস্থার অবনতি হলে মোস্তাক ও আব্দুল খালেক ধাবককে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে উন্নত চিকিৎসার জন্য প্রেরন করা হয়। সেখানে শনিবার রাত ৩টার সময় মোস্তাক ধবকের মৃত্যু হয়। এবং আব্দুল খালেক খতিব ধাবকের অবস্থা আশঙ্কাজনক রয়েছে।

মোস্তাক ধবকের মৃত্যুর খবরে এলাকায় আতঙ্ক ও শোকের ছায়া নেমে আসে। বেরিয়ে পড়ে হাজার হাজার নারী পুরুষ যুবক তরুনরা। যশোর – সাতক্ষিরা সড়ক অবরোধ করে রাখে প্রায় ৫ঘন্টা। এতে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে যশোর – সাতক্ষিরা সাথে। মহিলারা ঝাড়ু মিছিল করে দীর্ঘ সময় ধরে। পরে পুলিশ এসে আসামি ধরার প্রতিশ্রুতি দিলে এলাকাবাসি অবরোধ তুলে নেন।

এ ব্যাপারে শার্শা থানায় একটি হত্যা মামলা রজু করা হয়েছে।

অবরোধ চলাকালিন সময়ে বক্তারা বলেন, ক্ষমতার লোভে চেয়ারম্যান প্রার্থী গডফাদার ইলিয়াস কবির বকুলের বিরেুদ্ধে ৩টি হত্যাকান্ডের অভিযোগ রয়েছে। তার বিরো সাবেক চেয়ারম্যান খোরশেদ আলম ও বাবুকে সে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করার অেিভাগ রয়েছে। এ ছাড়া সরকারী ভূমী দখল সহ একাধিক ব্যক্তির ভূমী দখল করার অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে।

মন্তব্যসমূহ বন্ধ করা হয়.