লেখক মুশতাকের মৃত্যু: যুক্তরাষ্ট্র, বৃটেন ইইউসহ ১৩ কূটনীতিকের বিবৃতি

ওয়ান নিউজ ডেক্সঃ কারাবন্দি অবস্থায় লেখক মুশতাক আহমেদের মৃত্যুর ঘটনায় অর্গানাইজেশন ফর ইকোনমিক কোঅপারেশন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্টের (ওইসিডি) ১৩টি দেশের কূটনীতিকরা যৌথ বিবৃতি দিয়েছেন। বিবৃতিতে তারা গভীর উদ্বেগ জানিয়েছেন। একইসঙ্গে তারা মুশতাকের মৃত্যুর দ্রুত, স্বচ্ছ, স্বাধীন এবং পূর্ণাঙ্গ তদন্ত করার আহ্বানও জানিয়েছেন।

শুক্রবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) রাতে ওইসিডিভুক্ত দেশগুলোর কূটনীতিকরা এ যৌথ বিবৃতি দেন। বিবৃতিতে বলা হয়, ‘আমরা নিম্নস্বাক্ষরকারী ঢাকাস্থ মিশন প্রধানরা গত ২৫ ফেব্রুয়ারি আইনি হেফাজতে থাকা মুশতাক আহমেদের মৃত্যুতে গভীর উদ্বেগ জানাচ্ছি।’

বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়, ‘মুশতাক আহমেদ গত বছরের ৫ মে থেকে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের (ডিএসএ) ধারায় বিচারপূর্ব আটক অবস্থায় ছিলেন। আমরা জেনেছি যে, বেশ কয়েকবার তাকে জামিন দিতে অস্বীকৃতি জানানো হয়েছে এবং আটকাধীন অবস্থায় তার প্রতি যে আচরণ হয়েছে তা নিয়ে উদ্বেগ আছে। আমরা তার পরিবার ও বন্ধুদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানাই। আমরা বাংলাদেশ সরকারকে মুশতাক আহমেদের মৃত্যুর একটি দ্রুত, স্বচ্ছ, স্বাধীন এবং পূর্ণাঙ্গ তদন্ত করতে আহ্বান জানাচ্ছি।’

বিবৃতিতে স্বাক্ষরকারী কূটনীতিকরা হলেন- মার্কিন রাষ্ট্রদূত আর্ল রবার্ট মিলার, ব্রিটেনের হাইকমিশনার রবার্ট ডিকসন, ইউরোপীয় ইউনিয়নের রাষ্ট্রদূত রেনসজে তেরিঙ্ক, কানাডার হাইকমিশনার বেনোয়া প্রেফন্তে, ডেনমার্কের রাষ্ট্রদূত উইনি এসট্রাপ পিটারসন, ফ্রান্সের রাষ্ট্রদূত জিন-মেরিন সুইউ, জামার্নির রাষ্ট্রদূত পিটার ফারহেনহোল্টজ, ইতালির রাষ্ট্রদূত এনরিকো নানজিটা, নেদারল্যান্ডেসের রাষ্ট্রদূত হেরি ভারউইজ, নরওয়ের রাষ্ট্রদূত এসপেন রিকটার-সেভএনডসেন, স্পেনের রাষ্ট্রদূত ফ্রানসিসকো ডি এসিস বেনিতেজ সালাস, সুইডেনের রাষ্ট্রদূত অ্যালেকজেন্ড্রা বার্গ ভন লিন্ডে ও সুইজারল্যান্ডের রাষ্ট্রদূত নাতালি চার্ড।

কারাবন্দি লেখক মুশতাক আহমেদ বৃহস্পতিবার (২৫ ফেব্রুয়ারি) রাত সাড়ে ৮টার দিকে মৃত্যুবরণ করেন। তিনি রাষ্ট্রবিরোধী ষড়যন্ত্রের অভিযোগে র‌্যাবের করা মামলায় গ্রেপ্তার হয়ে কাশিমপুর কারাগারে ছিলেন। তার মৃত্যুর ঘটনায় কারাগারের পক্ষ থেকে গাজীপুর মেট্রোপলিটন সদর থানায় অপমৃত্যু মামলা করা হয়েছে।

শুক্রবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) দুপুর সাড়ে ১২টায় গাজীপুরে শহীদ তাজউদ্দিন হাসপাতাল থেকে ময়নাতদন্ত শেষে মুশতাক আহমেদের মরদেহ তার পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়। এরপর মরদেহ মোহাম্মদপুরের বাবর রোডের আল মারকাজুল ইসলাম বাংলাদেশে রাখা হয়। ময়নাতদন্তে তার শরীরে আঘাতের কোনো চিহ্ন পাওয়া যায়নি বলে জানিয়েছেন হাসপাতালের ফরেনসিক বিভাগের প্রধান ডা. শাফী মোহাইমেন।

রাত ৯টার দিকে রাজধানীর আজিমপুর কবরস্থানে মুশতাক আহমেদকে দাফন করা হয়েছে। এর আগে, এশার নামাজের পর লালমাটিয়ার মিনার মসজিদে তার নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। এসময় তার পরিবারের সদস্যরাসহ বিশিষ্টজনরা উপস্থিত ছিলেন।

এদিকে, কারাগারে মুশতাক আহমেদের মৃত্যুর বিষয়টিকে ‘রাষ্ট্রীয় হত্যাকাণ্ড’ বলে উল্লেখ করেছে প্রগতিশীল ছাত্রজোট। এ লেখকের মৃত্যু তারা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও শাহবাগে আন্দোলনও করেছে। আন্দোলনে পুলিশের লাঠিচার্জে প্রগতিশীল ছাত্রজোটের অন্তত ১৫ নেতাকর্মী আহত হয়েছেন। এছাড়া তিনজনকে আটক করা হয়েছে।

মন্তব্যসমূহ বন্ধ করা হয়.