যশোরের বাঘারপাড়ায় যুদ্ধপরাধীর মামলা শহীদ পরিবারের পক্ষে নেওয়ায় হামলা

ইয়ানুর রহমান : যশোরে একাত্তরের মানবতাবিরোধী যুদ্ধাপরাধীর বিরুদ্ধে মামলায় হওয়ায় শহীদ পরিবারর পক্ষে অবস্থান নেয়ায় যশোরের বাঘারপাড়া উপজেলায় প্রেমচারা গ্রামের নিরীহ মানুষের উপর হামলা চালিয়েছে রাজাকার পক্ষীয়রা।

এতে গুরুতর জক্ষম হয়েছে তিনজন যাদের মধ্যে বন্দবিলা ইউনিয়নের প্রেমচারা গ্রামের মনসের মোল্লার ছেলে নিজাম মোল্লাকে গুরুতর অবস্থায় শনিবার রাতে যশোর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তার মাথায় রামদা সহ ধারালো অস্ত্র দিয়ে আঘাত করা হয়েছে ।

এছাড়াও ঐ গ্রামের অন্তত ১৫জন কম বেশী আহত হয়েছে ।

প্রত্যক্ষদর্শী গ্রামবাসী জানিয়েছে, ২৯ এপ্রিল শনিবার রাত ৯টার দিকে বাঘারপাড়ার কুখ্যাত রাজাকার কমান্ডার প্রেমচারা গ্রামের আমজাদ মোল্লা ও তার প্রধান সহযোগী কুখ্যাত আদম পাচারকারী মহশীন বিশ্বাসের নেতৃত্বে একদল সশস্ত্র সন্ত্রাসী প্রেমচারার এহিয়ার দোকানে হামলা চালায়। এসময় তার হাতে থাকা রামদা, লোহার বড় লাঠি দিয়ে দোকানটি ভংচুর ও লুটপাট করে। তারা বলে আমজাদ মোল্লার বিরুদ্ধে কথা বলিস কেন? নিজাম মোল্লাসহ পিতা ইরাদত মোল্লা, জহুর খান পিতা ইরাদত মোল্লা শিপন মনসের মোল্লাসহ নিরীহ গ্রামবাসীকে পিটাতে ও কোপাতে থাকে। তাদের চিৎকারে গ্রামবাসী এগিয়ে আসলে সন্ত্রাসীরা আমজাদ মোল­ার কিছু হলে জ্বলবে আগুন ঘরে ঘরে শ্লোগান দিয়ে এলাকা ত্যাগ করে। যাওয়ার সময় তারা মৃত আকবর মন্ডলের ছেলে হুমায়ুন মন্ডলকে অপহরন করে ইউ,পি মেম্বর মোল­ার বাড়িতে আটকে রেখে বেধরক মারপিট করে।

পরে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শনকালে হুমায়নকে উদ্ধার কারে। উল্লেখ্য অতি স¤প্রতি রাজাকার আমজাদ মোল্লার বিরুদ্ধে মাগুরা ও যশোরের আদালতে যুদ্ধাপরাধের মামলা হয়। যা ঢাকায় ট্রাইব্যুনালে পাঠানো হায়েছ। এতে যশোর থেকে বিভিন্ন মিডিয়ার একদল সাংবাদিক প্রেমচারা গ্রামে গেলে গ্রামবাসী রাজাকা্ররে বিরুদ্ধে বক্তব্য দেন। এতে ক্ষুদ্ধ হয় আমজাদ রাজাকার ও তার পক্ষীরা। যার জের হিসাবে এমামলার ঘটনা বলে গ্রামবাসী অভিযোগ করেছে।

এব্যাপারে বাঘার পাড়া থানার ওসি মতিউর রহমান বলেন যুদ্ধঅপরাধ মামলা বিষয় নিয়ে গোলোযোগে কথা জানতে চাইলে তিনি বলেন এই গোলোযোগে যুদ্ধ অপরাধি বা আদম ব্যাবসায়ির কোন সংংশ্লিষ্টতা নাই, তিনি বলেন তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে শনিবার বিকালে দুপক্ষের ভিতর ইটপাটকেল ছুড়াছুড়ি হয়েছিলো বলে জানান, এব্যাপারে সমযোতায় দুপক্ষের ভিতর মিমাংংশার প্রক্রিয়া চলছে বলে জানান ওসি।

মন্তব্যসমূহ বন্ধ করা হয়.