বিয়ে ও তালাক নিবন্ধন ডিজিটাল করতে আইনি নোটিশ

ডেস্ক নিউজ:
প্রতারণার হাত থেকে বাঁচাতে বিয়ে ও তালাক নিবন্ধন ডিজিটালাইজেশন করার নির্দেশনা চেয়ে আইনি নোটিশ পাঠানো হয়েছে।

আজ সোমবার ক্রিকেটার নাসির হোসেনের সদ্য বিবাহিত স্ত্রী তামিমা সুলতানা তাম্মির আগের স্বামী ভুক্তভোগী রাকিব হাসানসহ তিন ব্যক্তি একটি সংগঠনের পক্ষ থেকে এ লিগ্যাল নোটিশ পাঠান। নোটিশ পাঠানো অন্য দুজন হলেন সোহাগ হোসেন ও কামরুল হাসান। এইড ফর ম্যান ফাউন্ডেশন ও তিন ব্যক্তির পক্ষে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ইশরাত হাসান আজ এ নোটিশটি পাঠান।

নোটিশে উল্লেখ করা হয়, বিয়ে ও তালাক নিবন্ধনের আইনগত বিধান থাকলেও তা ডিজিটাল না করার ফলে অসংখ্য প্রতারণার ঘটনা ঘটেছে। এ ছাড়া, বিয়ে গোপন রেখে ডিভোর্স না দিয়ে বিয়ে করার ঘটনা অনেক ঘটতে দেখা যাচ্ছে। এর ফলে, সন্তানের পিতৃপরিচয় নিয়েও জটিলতা দেখা যাচ্ছে। বিয়ে সংক্রান্ত অপরাধ বেড়ে অসংখ্য মামলার জন্ম নিচ্ছে। তাই, বিয়ে ও ডিভোর্স রেজিস্ট্রেশন ডিজিটাল হওয়া একান্ত আবশ্যক। বিয়ে ও ডিভোর্স ডিজিটালাইজেশন করলে তার জাতীয় পরিচয়পত্র নম্বর দিয়ে সার্চ করলেই সব তথ্য বেরিয়ে আসবে। এতে প্রতারণার হাত থেকে অসংখ্য মানুষ রক্ষা পাবে।

নোটিশ পাওয়ার তিন দিনের মধ্যে বিয়ে ও ডিভোর্স রেজিস্ট্রেশন ডিজিটাল করার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করার অনুরোধ করা হয়েছে। অন্যথায় এ বিষয়ে প্রতিকার চেয়ে হাইকোর্টে রিট দায়ের করা হবে বলেও নোটিশে উল্লেখ করা হয়েছে।

বিয়ের পিঁড়িতে বসা ক্রিকেটার নাসির হোসেনের স্ত্রী তামিমা সুলতানা তাঁর আগের স্বামী রাকিব হাসানকে তালাক না দিয়েই আবার বিয়ে করেছেন বলে তিনি অভিযোগ করেছেন। এ ঘটনায় রাকিব রাজধানীর উত্তরা পশ্চিম থানায় সাধারণ ডায়েরিও (জিডি) করেছেন। তামিমার সঙ্গে রাকিবের ১১ বছরের সংসার ছিল বলে উল্লেখ করা হয়েছে জিডিতে। দুজনের আট বছরের একটি মেয়েও রয়েছে। কিন্তু সব ফেলে নাসিরকে বিয়ে করায় থানায় অভিযোগ করেছেন রাকিব। এবার লিগ্যাল নোটিশ পাঠালেন ভুক্তভোগী রাকিব হাসান।

গত ১৪ ফেব্রুয়ারি বিশ্ব ভালোবাসা দিবসে রাজধানীর উত্তরার একটি রেস্তোরাঁয় নাসির ও তামিমার বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা শেষ হয়। নাসিরের স্ত্রী পেশায় একজন কেবিন ক্রু। কাজ করেন বিদেশি একটি এয়ারলাইনসে।

Comments are closed.