পাল্টাপাল্টি অভিযোগ নিয়ে মাঠে সরব আইভী-তৈমূর

ডেস্ক নিউজ:
পাল্টাপাল্টি অভিযোগের পরও নির্বাচনি প্রচারে উৎসবমুখর নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন (নাসিক)। ভোটারদের বাড়িবাড়ি যাচ্ছেন হেভিওয়েট দুই মেয়রপ্রার্থী অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার ও সেলিনা হায়াত আইভী। শেষ পর্যন্ত উৎসবমুখর পরিবেশেই নির্বাচন শেষ হবে বলে প্রত্যাশা তাঁদের।

তবে, নির্বাচন ঘিরে শামীম ওসমান বিষয়ে সরব দুজনই। আছে নির্বাচনি বিধিভঙ্গের অভিযোগও। এতদিন বিপক্ষে কথা বলে এখন শামীম ওসমানের প্রার্থী হয়েছেন বলে দাবি নৌকার প্রার্থী আইভীর।

অন্যদিকে, নিজের কথার মধ্যে দলের ফাটল থাকার কথা স্পষ্ট করে দিয়েছেন আইভী, বলছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী তৈমূর। একই সঙ্গে বাড়িবাড়ি পুলিশ পাঠিয়ে নৌকার জন্য কাজ করার ‍হুমকি দেওয়া হচ্ছে বলে অভিযোগ করেন তিনি।

পাঁচ দিন বাদে ১৬ জানুয়ারি নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এবার ইভিএম-এর মাধ্যমে নেওয়া হবে ভোট। ব্যস্ত সময় পার করতে দেখা যায় স্বতন্ত্র প্রার্থী অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকারকে। গতকাল সোমবার সকালে তিনি বন্দর উপজেলার ২৬ নম্বর ওয়ার্ডের মদনপুর এলাকায় গণসংযোগ শুরু করেন। এ সময় তিনি প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী আইভীর বিরুদ্ধে নির্বাচনি আচরণবিধি লঙ্ঘনের অভিযোগ তোলেন।

তৈমূর বলেন, ‘আমার সমর্থক ও আওয়ামী লীগ করেও যাঁরা নৌকার পক্ষে নামেননি, তাঁদের বাড়িতে পুলিশ যাচ্ছে। বাড়িবাড়ি গিয়ে নৌকার পক্ষে কাজ করতে বলা হচ্ছে।’

তাঁকে ঘিরে আলোচিত প্রসঙ্গ শামীম ওসমান বিষয়ে তৈমূর বলেন, ‘মেয়র আইভীর বক্তব্যে একটি কথা স্পষ্ট হয়ে গেছে—আমার দলে কোনো বিভাজন নেই। তার দলে অনেক বড় ফাটল।’

তাঁর নির্বাচনে শামীম ওসমানের সংশ্লিষ্টতা ঘিরে আইভীর মন্তব্য প্রসঙ্গে তৈমূর বলেন, ‘শামীম ওসমানের ভাইয়েরা এমপি, বাপ এমপি, তাঁর দাদা এমপি ছিলেন। তাঁদের একটা নিজস্ব চিন্তাভাবনা থাকতেই পারে। তবে তাঁরা যে আইভীর পক্ষে নন, এটা আইভীই পরিষ্কার করে দিয়েছে।’

নির্বাচন উৎসবমূখর হবে বলে প্রত্যাশা জানিয়ে তৈমূর বলেন, ‘জনগণের রায়ের প্রতিফলন না ঘটলে সবচেয়ে বেশি বিতর্কিত হবেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী। সবাই বলবে—দলীয় প্রার্থীকে পাস করাতে প্রধানমন্ত্রী বাড়িবাড়ি পুলিশ পাঠিয়েছেন।’

এদিকে, বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষ্যে আওয়ামী লীগ-মনোনীত মেয়রপ্রার্থী ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী নগরীর দুই নম্বর গেটে বঙ্গবন্ধু চত্বরে জাতির জনকের প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করেন। পরে গণসংযোগ শুরু করেন। এ সময় এক প্রশ্নের জবাবে আইভী বলেন, ‘শামীম ওসমান কাকে সমর্থন দেবেন, সেটা তাঁর ব্যপার। আমাকে সমর্থন না দিলেই কী, আর দিলেই কী।’

আইভী আরও বলেন, ‘আমাকে কারা ভোট দেবে, তা ফিক্সড হয়ে আছে। জনগণ আগে থেকেই আমাকে চেনে ও জানে।

প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী প্রসঙ্গে আইভী বলেন, ‘তাঁকে কখনোই মাঠে সরব থাকতে আগে দেখিনি। এমনকি আলোচিত ত্বকী হত্যাকাণ্ড ঘিরেও কোনো সমাবেশ করতে দেখিনি। এ শহরে আশিক, বুলু, চঞ্চলকে হত্যা করা হয়েছে। তাঁকে কখনোই প্রতিবাদ করতে, কথা বলতে দেখিনি।’

তৈমূরের বিভিন্ন অভিযোগ প্রসঙ্গে আইভী বলেন, ‘তিনি অভিযোগের জন্য অভিযোগ দিচ্ছেন বলে আমার মনে হয়।’

ভোটের প্রচারণায় কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বিষয়ে জানতে চাইলে আইভী বলেন, ‘এ অভিযোগটি মনে হয় সঠিক নয়। কোনো কর্মকর্তা-কর্মচারীকে আমি ডাকিনি। আমার ভাই-ব্রাদার ও সিটিবাসী সারাক্ষণ আমার সঙ্গে হাঁটছেন। তিনি কোথায় কাকে দেখেছেন, আমি জানি না।’

নির্বাচনে জয়-পরাজয় প্রসঙ্গে আইভী বলেন, ‘প্রচুর সাড়া পাচ্ছি। দীর্ঘ ব্যবধানে জয়ী হব বলে প্রত্যাশা করি।’

মন্তব্য করুন

আমরা সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্র রিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোন মন্তব্য বা বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোন ধরনের আপত্তিকর মন্তব্য বা বক্তব্য সংশোধনের ক্ষমতা রাখেন।

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.