ঝিনাইদহে এবার কলেজ ছাত্র কর্তৃক প্রবাসির স্ত্রীকে ভাগিয়ে উড়াল

স্টাফ রিপোর্টার,ঝিনাইদহঃ

ঝিনাইদহের হরিণাকুন্ড উপজেলার সোনাতনপুর গ্রামের কলেজপড়ুয়া এক যুবক প্রবাসির স্ত্রীকে ভাগিয়ে নিয়ে গেছে। যাওয়ার সময় স্বামীর নগদ দেড় লাখ টাকা ও দেড় ভরি সোনার গহনা নিয়ে গেছে। এ নিয়ে এলাকায় তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে। এ ঘটনায় হরিণাকুন্ডু থানায় একটি মামলা হয়েছে।

 

পুলিশ ও এলাকাবাসি সুত্রে জানা গেছে, হরিণাকুন্ডুর কুলবাড়িয়া গ্রামের মৃত জরিপ মন্ডলের মেয়ে রোজিনার সাথে একই উপজেলার সোনাতনপুর গ্রামের সফিউরের সাথে বিয়ে হয়। সফিউরের পক্ষে একটি ছেলে সন্তান আছে। কাজের সন্ধানে সফিউর সৌদি আরব চলে গেলে তার স্ত্রী রোজিনা প্রতিবেশি কলেজ পড়–য়া যুবক এনামুলের ছেলে নাইমুরের সাথে পালিয়ে যায়। বিষয়টি শেষ পর্যন্ত থানা পুলিশ পর্যন্ত গড়াই।

 

অভিযোগ পাওয়া গেছে মেয়েকে কবিরাজি করে নাইমুর ও তার পরিবার নিয়ে গেছে। সফিউরের ভগ্নিপতি সোনাতনপুর গ্রামের আব্দুল মান্নান জানান, ওরা যা করছে তাতে একটি সংসার নষ্ট করেছে। তিনি জানান, রোজিনা এখন আমাদের হেফাজতে।

 

এ ব্যাপারে নাইমুরের মামা তেলটুপি গ্রামের কাসেদ জানান, আমরা ফলসি ইউনিয়েনের চেয়ারম্যান মধ্যস্থতায় মেয়ে রোজিনাকে ফেরৎ দিয়েছি। এখন তারা মামলা না তুলে হয়রানী করছে। এদিকে বিষয়টি নিয়ে তদন্তকারী কর্মকর্তা হরিণাকুন্ডুর সোনাতনপুর ক্যাম্পের আইসি এসআই আলী আকবর চমকপ্রদ তথ্য দিয়েছেন। রোজিনা এখন সাবেক স্বামীর বাড়ি থাকলেও আইসি আলী আকবর বলছেন তাকে ভারতে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে। এ নিয়ে জেলা জুড়ে রহস্য ও ব্যাপক তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে।

মন্তব্যসমূহ বন্ধ করা হয়.