চট্টগ্রামের ৮ সরকারি কলেজে ভর্তি আবেদন শুরু ৮ জানুয়ারি

সংবাদদাতা:
একাদশে ভর্তি আবেদন শুরু হচ্ছে ৮ জানুয়ারি। প্রতিবারের মতো এবারো ভর্তি কার্যক্রম হচ্ছে অনলাইনে। ২০২১-২০২২ শিক্ষাবর্ষে এসএসসি বা সমমানের পরীক্ষার ফলের ভিত্তিতে অনলাইনে সিলেকশনের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের ভর্তি করা হবে। এবার ৯টি সাধারণ শিক্ষা বোর্ডে পাস করেছে ২০ লাখ ৯৬ হাজার ৫৪৬ জন শিক্ষার্থী। তারমধ্যে চট্টগ্রাম শিক্ষাবোর্ডে পাস করেছে ১ লাখ ৪৪ হাজার ৫৫০ জন। সব শিক্ষার্থীদের স্বপ্ন থাকে যেকোনো একটি সরকারি কলেজে পড়ার। তবে আসন সংখ্যা সীমিত থাকায় সবার সেই স্বপ্ন শেষ পযর্ন্ত আর বাস্তবায়ন হয়না।

চট্টগ্রাম মহানগরের ৮টি সরকারি প্রতিষ্ঠানে আসন আছে ৯ হাজার ৩০০টি। তবে সবার জন্য উন্মুক্ত থাকবে ৯৫ শতাংশ আসন। যা মেধার ভিত্তিতে নির্বাচন করা হবে। মেধার ভিত্তিতে ভর্তির পরে মোট আসনের ৫ শতাংশ মুক্তিযোদ্ধার সন্তান বা সন্তানের সন্তানদের জন্য সংরক্ষিত থাকবে। উপযুক্ত কোটায় যদি প্রার্থী পাওয়া না যায়, তবে এ আসন কার্যকর থাকবে না। প্রথম পর্যায়ে আগামী ৮ জানুযারি থেকে ১৫ জানুয়ারি পর্যন্ত অনলাইনে (www.xiclassadmission.gov.bd) ভর্তির আবেদন করতে হবে।

তথ্যমতে, চট্টগ্রাম মহানগরের ৮টি সরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে মানবিক বিভাগের শিক্ষার্থীদের জন্য আসন রয়েছে ২ হাজার ৪৫৫টি, ব্যবসায় শিক্ষা বিভাগের জন্য ৩ হাজার ৫৬০টি, এবং বিজ্ঞান বিভাগের জন্য আসন রয়েছে ৩ হাজার ২৮৫টি। এরমধ্যে চট্টগ্রাম কলেজে মোট আসন আছে ১ হাজার ৩০টি, সরকারি হাজী মুহাম্মদ মহসিন কলেজে মোট আসন আছে ১ হাজার ৭২৫টি। সরকারি সিটি কলেজে মোট আসন আছে ২ হাজার ১২০টি। সরকারি কমার্স কলেজে আসন আছে ৮৫০টি। চট্টগ্রাম সরকারি মহিলা কলেজে আসন আছে ১ হাজার ৩৩৫টি।, বাকলিয়া সরকারি কলেজে আসন আছে ১ হাজার ২৮৫টি। চট্টগ্রাম সরকারি মডেল স্কুল এন্ড কলেজে আসন আছে ৭৭৫টি এবং কলেজিয়েট স্কুলে মোট আসন আছে ১৮০টি।

এ বিষয়ে চট্টগ্রাম শিক্ষাবোর্ডের কলেজ পরিদর্শক অধ্যাপক জাহেদুল হক বলেন, ‘ভর্তি যোগ্যতা অনুযায়ী দেশের যেকোনো প্রান্তের শিক্ষার্থীরা এসকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে একাদশ শ্রেণিতে অনলাইনের মাধ্যমে আবেদন করতে পারবে। ৯টি সাধারন শিক্ষাবোর্ড, মাদ্রাসা শিক্ষাবোর্ড, কারিগরি শিক্ষাবোর্ড পাশাপাশি উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় থেকে যারা পাস করেছে তারা ভর্তির জন্য আবেদন করতে পারবে। আবেদনের পর ভর্তির যোগ্যতা ও মেধার ভিত্তিতে যাচাই বাছাই করে শিক্ষার্থীরা এসকল সরকারি কলেজে ভর্তির সুযোগ পাবে।’

এছাড়া, প্রতিবন্ধী ছাড়া কেউই ম্যানুয়ালি আবেদন করতে পারবেন না। প্রতিবন্ধী হিসেবে এসএসসি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছে, কেবল তারাই সংশ্লিষ্ট বোর্ডে ম্যানুয়ালি ভর্তির জন্য আবেদন করতে পারবেন। তবে প্রবাসীদের সন্তান, বিকেএসপি থেকে উত্তীর্ণ শিক্ষার্থী বা খেলাধুলা এবং সাংস্কৃতিক ক্ষেত্রে বিভাগীয় বা জাতীয় পর্যায়ে অসামান্য অবদানের জন্য পুরস্কারপ্রাপ্ত শিক্ষার্থী ভর্তির জন্য বোর্ডে ম্যানুয়ালি আবেদনের ‍সুযোগ রয়েছে বলে জানিয়েছেন তিনি।

যে কলেজে যত আসন:
চট্টগ্রাম কলেজে ব্যবসায় শিক্ষা বিভাগের জন্য আসন বরাদ্দ নেই। তবে মোট আসনের মধ্যে মানবিক বিভাগের জন্য ৩৮০টি, বিজ্ঞান বিভাগের জন্য ৬৫০টি।

সরকারি হাজী মুহাম্মদ মহসিন কলেজে বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থীদের জন্য ৬৫০টি, মানবিক বিভাগের জন্য ৪৬০টি এবং ব্যবসায় শিক্ষা বিভাগের শিক্ষার্থীদের জন্য ৬১৫টি আসন রয়েছে।

সরকারি সিটি কলেজের বিজ্ঞান বিভাগের জন্য আসন রয়েছে ৬৫০টি। তবে দিবা শাখার মানবিক বিভাগের জন্য ৩৮০টি, ব্যবসায় শিক্ষা বিভাগের জন্য ৩৮০টি এবং বৈকালিক শাখার মানবিক বিভাগের জন্য আসন রয়েছে ৩৩০টি, ব্যবসায় শিক্ষা বিভাগের জন্য ৩৮০টি আসন।

সরকারি কমার্স কলেজে কেবল ব্যবসায় শিক্ষা বিভাগের শিক্ষার্থীদের জন্য ৮৫০টি আসন রয়েছে।

চট্টগ্রাম সরকারি মহিলা কলেজে ব্যবসায় শিক্ষা বিভাগের জন্য আসন রযেছে ৪৭০টি, মানবিক বিভাগের জন্য ৩৭৫টি, এবং বিজ্ঞান বিভাগের জন্য ৪৯০টি।

বাকলিয়া সরকারি কলেজে বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থীদের জন্য ৩৮০টি, মানবিক বিভাগের জন্য ৫২৫টি এবং ব্যবসায় শিক্ষা বিভাগের শিক্ষার্থীদের জন্য ৩৮০টি আসন রয়েছে।

চট্টগ্রাম সরকারি মডেল স্কুল এন্ড কলেজে বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থীদের জন্য ৩৭৫টি, মানবিক বিভাগের জন্য ১৫০টি এবং ব্যবসায় শিক্ষা বিভাগের শিক্ষার্থীদের জন্য ২৫০টি আসন রয়েছে।

কলেজিয়েট স্কুলে মানবিক বিভাগের জন্য কোনো আসন বরাদ্দ নেই। মোট আসনের মধ্যে বিজ্ঞান বিভাগের জন্য ৯০টি এবং ব্যবসায় শিক্ষা বিভাগের জন্য ৯০টি আসন আছে।

মন্তব্যসমূহ বন্ধ করা হয়.