গার্দিওলা ও মরিনহো যমজ ভাই!

ওয়ান নিউজ ক্রীড়া ডেক্সঃ তাদের মধ্যে রক্তের সম্পর্ক নেই। পেপ গার্দিওলার বাড়ি স্পেনে। হোসে মরিনহো পর্তুগালের। ফুটবলীয় সম্পর্ক যা, সেটাও শুধুই প্রতিদ্বন্দ্বিতার। ম্যানচেস্টার সিটির স্প্যানিশ কোচ গার্দিওলা ও ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের পর্তুগিজ কোচ মরিনহোর মধ্যকার প্রতিদ্বন্দ্বিতাটা সবার জানাও। কিন্তু গার্দিওলা দাবি করলেন, তারা পরস্পর যমজ ভাইয়ের মতো!

বুঝতেই পারছেন গার্দিওলা এই বিশেষণটা ব্যবহার করেছেন, স্রেফ ফুটবলীয় দৃষ্টিতেই। কোচ হিসেবে গার্দিওলাও একমাত্র লক্ষ্য শিরোপা জেতা। মরিনহোরও তাই। দুজনের আকাঙ্খা, লক্ষ্য, অভিপ্রায়, মোহ একই-জয়। গার্দিওলা সেই দৃষ্টিকোণ থেকেই বললেন তিনি ও মরিনহো একই রকম। যমজ ভাইয়ের মতো!

আজ রাতেই বহুল আলোচিত ম্যানচেস্টার ডার্বি। ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের ঘরের মাঠ ওল্ড ট্রাফোর্ডে প্রতিপক্ষ হয়ে আসছে গার্দিওলার ম্যানচেস্টার সিটি। অনেকেই বলাবলি করছেন, এই ডার্বির ফলের উপরই নির্ভর করবে এবারের লিগ শিরোপা দৌড়ে ইউনাইটেড টিকে থাকতে পারবে কিনা।

১৫ ম্যাচ শেষে গার্দিওলার সিটি মরিনহোর ইউনাইটেডের চেয়ে ৮ পয়েন্টে এগিয়ে। আজকের ডার্বিতে জিতলে তারা এগিয়ে যাবে ১১ পয়েন্টে। সেটা হলে আক্ষরিক অর্থেই মরিনহোর দলের শিরোপা স্বপ্ন ধূসর হয়ে যাবে। তেমনি জিতলে সিটির শিরোপা জয় অনেকটাই নিশ্চিত হয়ে যাবে বলেই মনে করা হচ্ছে!

গার্দিওলা অবশ্য তেমনটা মনে করেন না। ডার্বির আগে তিনি স্পষ্টই বলেছেন, ‘ডার্বিতে জিতলেই আমরা শিরোপা জিতে যাচ্ছি না।’ ম্যাচপূর্ব সংবাদ সম্মেলনে আরও অনেক বিষয় নিয়েই কথা বলেছেন গার্দিওলা। তবে তার সংবাদ সম্মেলনের সবচেয়ে চমকপ্রদ অংশটি ছিল প্রতিদ্বন্দ্বী মরিনহো প্রসঙ্গটিই। প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে মরিনহো কেমন, এমন প্রশ্নের জবাবে গার্দিওলা বললেন, তারা যমজ ভাইয়ের মতো, ‘অবশ্যই, আমরা একই রকম। যুগল। তারাও শিরোপা জিততে চায়। আমরাও শিরোপা জিততে চাই। আমি মনে করি আন্তোনিও কন্তের (চেলসি কোচ) আকাঙ্খাও তাই। ইয়ুর্গেন ক্লপ (লিভারপুল কোচ), মরিসিও পচেত্তিনোসহ (টটেনহাম কোচ) বিশ্বজুড়ে বিভিন্ন লিগের সব ক্লাব কোচদের লক্ষ্যও একই।’

সুযোগ বুঝে প্রতিদ্বন্দ্বী মরিনহোকে একটা খোঁচাও মেরেছেন গার্দিওলা। ডার্বির আগে সিটির খেলোয়াড়দের সমালোচনা করেছেন মরিনহো। সিটির খেলোয়াড়দের বিরুদ্ধে তিনি অভিযোগ করেছেন ‘ডাইভ’ দেওয়ার। বলেছেন, ‘একটু বাতাস লাগলেই পড়ে যায় সিটির খেলোয়াড়েরা।’ গার্দিওলা অবশ্য মরিনহোর এই সমালোচনার জবাবে কিছুই বলেননি।

তিনি বরং কথা বলা শুরু করেন এমন এক প্রসঙ্গে, যে সম্পর্কে তাকে প্রশ্নই করা হয়নি! এই মৌসুমে গার্দিওলার অতিরক্ষণাত্মক কৌশল নিয়ে সমালোচনার ঝড় উঠেছে ইংল্যান্ডে। সেই প্রসঙ্গ টেনে গার্দিওলা অবশ্য ইতিবাচক কথাই বলেছেন, ‘আমি কখনোই আমার সতীর্থদের কোচিং দর্শন নিয়ে সমালোচনা করি না। তারা কিভাবে খেলেন, তা নিয়ে অতীতেও কখনো সমালোচনা করিনি। ভবিষ্যতে কখনো করবও না।’

Comments are closed.