কাতারকে এক ঘরে করে রাখায় ট্রাম্পের কৃতিত্বের দাবি

ওয়ান নিউজ ডেক্সঃ কাতারের উপর উপসাগরীয় প্রতিবেশী দেশসমূহের চাপ সৃষ্টিকে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প নিজের কৃতিত্ব বলে দাবি করেছেন। তাঁর মতে কাতার এ অঞ্চলে সন্ত্রাসবাদকে সমর্থন দিচ্ছে। এক টুইটার বার্তায় তিনি বলেন, কাতারকে একঘরে করার মধ্য দিয়েই সন্ত্রাসবাদকে নির্মূল করার কাজটা শুরু হয়ে গেল। ট্রাম্পের মতে, সৌদি আরবে তাঁর সাম্প্রতিক সফর ইতিমধ্যে সুফল দিচ্ছে এবং এ অঞ্চলে সন্ত্রাসের ভয়াবহতা নিশ্চিহ্ন হবার পথ উন্নীত হয়েছে।

সম্প্রতি সৌদি আরব, বাহরাইন,  আরব আমিরাত, ইয়েমেন, লিবিয়ার পূর্বাঞ্চল নিয়ন্ত্রিত সরকার, মিশর ও মালদ্বীপের সবাই কাতারের সাথে কূটনৈতিক ও অন্যান্য সম্পর্ক ছিন্ন করেছে। যদিও কাতার তাঁর বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ অস্বীকার করেছে।

রাজধানী রিয়াদে ট্রাম্পের সাম্প্রতিক বক্তব্যে দেখা যায় তিনি মধ্যপ্রাচ্যে অস্থিতিশীলতার জন্য ইরানকে দোষারোপ করেন এবং আরব রাষ্ট্র ও মুসলিম বিশ্বকে চরমপন্থার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে নেতৃত্ব দেওয়ার আহ্বান জানান। এ পরিপ্রেক্ষিতে কাতারের সাথে সম্পর্ক ছিন্ন করার এ সম্ভাবনা দেখা দেয়।

বর্তমান মধ্যপ্রাচ্যের কূটনৈতিক যুদ্ধের দিকে ইঙ্গিত করে এক টুইটার বার্তায় সরাসরি কাতারের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়াতে তাঁর সমর্থনের কথা জানান। এবং মধ্যপ্রাচ্য সফরে সৌদি আরবের আমন্ত্রণে পঞ্চাশটি মুসলিম দেশের প্রতিনিধিদের উপস্থিতিকে তিনি সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে একতাবদ্ধতা হিসেবে উল্লেখ করেন।

সোমবার  সৌদি আরব, বাহরাইন ও সংযুক্ত আরব আমিরাত কাতারের নাগরিকদের সে সব ছেড়ে যাওয়ার জন্য দুই সপ্তাহ সময় দেয় এবং তাদের নাগরিকদের কাতার ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা জারি করে এবং সমস্ত পরিবহন সংযোগ বন্ধ করে দেয়। এরই মধ্যে সৌদি সীমান্তে খাদ্য বোঝাই ট্রাক আটকে পড়ে কাতারে খাদ্য সংকটের সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে। দেশগুলো আল জাজিরাসহ কাতার ভিত্তিক সব ধরণের সংবাদ মাধ্যম বন্ধ করে দিয়েছে। সূত্র: বিবিসি

মন্তব্যসমূহ বন্ধ করা হয়.