দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা যশোরে

ইয়ানুর রহমান: তীব্র তাপদাহে পুড়ছে যশোরসহ দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল। গত দুই দিন যশোরে ছিল দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা। আজ সোমবার ৪১ ও গতকাল রোববার ছিল ৩৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস। যা এ সপ্তাহে দেশের সর্বোচ্চ। জৈষ্ঠ্যের শুরুতেই শুরু হয়েছে এ তাপপ্রবাহ। যা আরও কয়েকদিন অব্যাহত থাকবে বলে আভাস দিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর।

 

আবহাওয়াবিদ আবুল কালাম মল্লিক জানান, সোমবার যশোরে দেশের সর্বোচ্চ ৪১ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে, যা এ সপ্তাহের সর্বোচ্চ। আর ঢাকার সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ৩৬ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এদিন খুলনায়ও সর্বোচ্চ ৪০ দশমিক ৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়।

 

আবহাওয়াবিদ আবুল কালাম মল্লিক আরো জানান, “শনিবার থেকে এই তাপপ্রবাহের কারণে অস্বস্তিকর গরম অনুভূত হচ্ছে। চলমান তাপপ্রবাহ আরও কয়েকদিন অব্যাহত থাকবে। পাশাপাশি অন্যত্র ঝড়ো আবহাওয়ার পূর্বাভাস রয়েছে।”

 

সোমবার সকাল ৬টা থেকে ২৪ ঘণ্টার আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, ময়মনসিংহ ও সিলেট বিভাগের দুই এক জায়গায় অস্থায়ী দমকা বা ঝড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টি অথবা বজ্রসহ বৃষ্টিপাত হতে পারে। এছাড়া দেশের অন্যত্র আকাশ আংশিক মেঘলা এবং আবহাওয়া প্রধানত শুকনো থাকতে পারে।

 

থার্মোমিটারের পারদ চড়তে চড়তে যদি ৩৬ থেকে ৩৮ ডিগ্রি সেলসিয়াসে ওঠে, আবহাওয়াবিদরা তাকে মৃদু তাপপ্রবাহ বলেন। তাপমাত্রা বেড়ে ৩৮ থেকে ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াস হলে তাকে বলা হয় মাঝারি তাপপ্রবাহ। আর তাপমাত্রা ৪০ ডিগ্রি ছাড়িয়ে গেলে তাকে তীব্র াপপ্রবাহ হিসেবে বিবেচনা করে আবহাওয়া অধিদপ্তর।

 

আবহাওয়ার দীর্ঘমেয়াদী পূর্বাভাস অনুযায়ী, মে মাসে দেশের উত্তর ও উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলে এক থেকে দুটি তীব্র এবং অন্যত্র দুই থেকে তিনটি মৃদু বা মাঝারি তাপপ্রবাহ বয়ে যেতে পারে।

 

এদিকে, যশোরসহ দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে এ তাপপ্রবাহে জনজীবন বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে। তাপদাহে শ্রমিক শ্রেণির মানুষের ভোগান্তি বেড়েছে। যশোরে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ৩৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস। আর শনিবার ছিল সর্বোচ্চ ৩৭ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস, শুক্রবার ছিল ৩৭ দশমিক ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস ও বৃহস্পতিবার ছিল ৩৬ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

Comments are closed.