শেখ হাসিনা আজ বিশ্ব রাজনীতিতে রোল মডেলঃ ওমর ফারুক

ওয়ান নিউজঃ বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওতাধীন ৩৭নং ওয়ার্ডের ত্রি-বার্ষিক কাউন্সিল শুক্রবার ঢাকা সদরঘাটস্থ সাইকেল মাঠে অনুষ্ঠিত হয়েছে।

প্রধান অতিথি যুবলীগ চেয়ারম্যান মোহাম্মদ ওমর ফারুক চৌধুরী বলেন, ‘উত্তাল সমুদ্র পাড়ি দেওয়ার ক্ষিপ্রতা আছে বলেই বঙ্গবন্ধু কন্যা রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনা আজ বিশ্ব রাজনীতিতে রোল মডেল। বাংলাদেশকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার চলমান প্রক্রিয়ার অংশ হিসেবে শেখ হাসিনার সাম্প্রতিক ভারত সফরকে কটাক্ষ করে বিএনপি নেত্রীর দেওয়া নেতিবাচক বক্তব্যের প্রত্যুত্তরে জনগণ জানতে চায়, ম্যাডাম, দেশ বিক্রি হয় কীভাবে?’

ওমর ফারুক আরও বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাম্প্রতিক ভারত সফরের পর থেকেই বিএনপি নেত্রী ধুয়ো তুলেছেন ভারতের কাছে দেশ বিক্রি করে আসা হয়েছে। অবশ্য বাংলাদেশের রাজনীতিতে বিষয়টি নতুন কিছু নয়। বরাবরই আওয়ামী লীগের কূটনৈতিক সাফল্যের সঙ্গে পেরে উঠতে না পেরে বিকল্প হিসেবে ভারত বিরোধীতাকেই পুঁজি করেছে স্বাধীনতাবিরোধী অপশক্তি। কিন্তু বাইরে ভারতবিরোধিতা আর ভেতরে ভেতরে ভারতের সঙ্গে নতজানু সখ্য গড়ে তুলতে চেয়েছে সবাই। আর তা পারেনি বলেই আওয়ামী লীগের সাফল্যকে প্রশ্নবিদ্ধ করার অপচেষ্টা চালানো হয়েছে বিভিন্ন সময়।’

যুবলীগ চেয়ারম্যান বলেন, ‘এখন পর্যন্ত ১৭ বার ভারত সফর করেছেন বাংলাদেশের বিভিন্ন সরকার প্রধান। কিন্তু সাম্প্রতিক সফরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যে সম্মান পেয়েছেন তা বাংলাদেশ-ভারত সম্পর্কের ইতিহাসে বিরল। বাংলাদেশ যে ভারতের কাছে গুরুত্বপূর্ণ সেটা প্রমাণ করে দিয়েছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। প্রটোকল ভেঙে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে স্বাগত জানাতে তিনি স্বয়ং উপস্থিত হন পালাম বিমানবন্দরে। এর আগে প্রটোকল ভেঙে শুধুমাত্র দুজন ব্যক্তিকে বরণ করে নিয়েছিলেন মোদী। একজন সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা এবং আরেকজন অরব আমিরাতের ক্রাউন প্রিন্স শেখ মোহাম্মদ বিন জায়েদ।’

বিএনপি নেত্রীর কাছে প্রশ্ন রেখে যুবলীগ চেয়ারম্যান বলেন, ‘বেগম জিয়া কি ভারত সরকারের বন্ধুত্বের স্পষ্ট বার্তা বুঝতে পারেননি? রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনাকে দেওয়া ভারতের এই সম্মান কি দেশ বিক্রির ইঙ্গিত দেয় নাকি বন্ধুত্বের? ভারতের প্রধানমন্ত্রী, রাষ্ট্রপতি সর্বোচ্চ আন্তরকিতা কি দেশ বিক্রির জন্য নাকি পারস্পারিক সমঝোতার মাধ্যমে এগিয়ে যাওয়ার বার্তা? সহযোগিতা চুক্তি কি দেশ বিক্রির ষড়যন্ত্র? আন্তর্জাতিক কূটনীতিতে বাংলাদেশ এখন ভারতের সম্ভ্রান্ত সহযোগী। এটা কি দেশ বিক্রির লক্ষণ নাকি বাংলাদেশের কুটনৈতিক সাফল্য? প্রতিবেশীর সঙ্গে আÍমর্যাদা রেখে বন্ধুত্ব কি দেশ বিক্রি?’

যুবলীগ চেয়ারম্যান আরও বলেন, ‘বেগম জিয়া চোখ খুলুন। আজকে আন্তর্জাতিক কূটনীতিতে বাংলাদেশ সংহত অবস্থান এসেছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে। দেশকে এগিয়ে নিতে না পারেন অন্তত দেশের এই অগ্রাযাত্রাকে ব্যাহত করার চেষ্টা করবেন না।’

অতিথিবৃন্দ অনুষ্ঠান স্থলে পৌঁছালে ৩৭ নং ওয়ার্ড যুবলীগ নেতাকর্মীরা যুবলীগ চেয়ারম্যান ও সাধারণ সম্পাদকসহ অতিথিবৃন্দকে উষ্ণ অর্ভ্যথনা জানান। মাঠের সামনে জাতীয় পতাকা ও দলীয় পতাকা উত্তোলন, জাতীয় সংগীত গাওয়া হয়, বেলুন ও কবুতর উড়িয়ে সম্মেলনের শুভ সূচনা করেন, প্রথম অধিবেশন কোরআন তেলায়াত দিয়ে শুরু করা হয়।

এই কাউন্সিলের উদ্বোধন করেন ঢাকা মহানগর দক্ষিণ শাখার সভাপতি ইসমাইল চৌধুরী সম্রাট। বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক মো. হারুনুর রশীদ, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী সদস্য অ্যাড. কাজী নজীব উল্লাহ হীরু, প্রধান বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা মহানগর দক্ষিণ এর ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম রেজা।

আরও বক্তব্য দেন যুবলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক মুহা. বদিউল আলম, দপ্তর সম্পাদক কাজী আনিসুর রহমান, শিক্ষা ও প্রশিক্ষণ বিষয়ক সম্পাদক মিজানুল ইসলাম মিজু, ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সহ-সভাপতি সোহরাব হোসেন স্বপন, আনোয়ার ইকবাল সান্টু, সাংগঠনিক সম্পাদক গাজী সারোয়ার হোসেন বাবু, মাকসুদুর রহমান, কাজী ইব্রাহিম খলিল মারুফ, সম্পাদক মন্ডলীর সদস্য এমদাদুল হক এমদাদ, ফিরোজ উদ্দিন আহমেদ সায়মন, অ্যাড. শাহনাজ পারভীন হীরা, খন্দকার আরিফুজ্জামান, রিয়াজ আহমেদ ফালান, সদস্য গোলাম ফেরদৌস ইব্রাহিম প্রমূখ।

সভাপতিত্ব করেন হানিফ আকন্দ, আহ্বায়ক ৩৭ নং ওয়ার্ড যুবলীগ, যৌথভাবে সভা পরিচালনা করেন যুগ্ম আহ্বায়ক জাবেল আহমেদ পাপন ও ইব্রাহিম হোসেন রনি।

দ্বিতীয় অধিবেশনে ৩৭নং ওয়ার্ডের সভাপতি পদে জাবেল হোসেন পাপন ও সাধারণ সম্পাদক পদে ইব্রাহিম হোসেন রনি, সহ-সভাপতি পদে দ্বীন ইসলাম, ইমাম হোসেন বাতাসী, মোহাম্মদ আলী, মো. রফিকুল ইসলাম, যুগ্ম সম্পাদক পদে মো. আবু তাহের, মো. আবুল কালাম, সাংগঠনিক সম্পাদক পদে মো. শফিকুল ইসলাম ও মো. রাজু আহমেদকে নির্বাচিত করা হয়।

Comments are closed.