বাবরি মসজিদ ভাঙায় বিচার হবে বিজেপির শীর্ষ নেতাদের

ওয়ান নিউজ ডেক্সঃ ভারতের ঐতিহাসিক বাবরি মসজিদ ভাঙার ষড়যন্ত্রে জড়িত থাকার অভিযোগে ৮৯ বছর বয়সী আদভানিসহ ক্ষমতাসীন বিজেপির শীর্ষ নেতাদের বিচার চলবে বলে রায় দিয়েছে দেশটির সুপ্রিম কোর্ট। অভিযুক্তদের মধ্যে রয়েছেন বিজেপি নেতা লালকৃষ্ণ আদভানি, মুরালি মনোহর জোশী, উমা ভারতী ও বিনয় কাটিয়ার। অন্য আসামিরা হলেন বিষ্ণুহরি ডালমিয়া, সতীশ প্রধান, সিআর বনশাল, সাধ্বী রীতম্ভরা, আরভি বেদান্তি, জগদীশ মুনি মহারাজ, বিএল শর্মা, নিত্যগোপাল দাস, ধর্ম দাস ও সতীশ নাগার। খবর এনডিটিভির।

ভারতের গোয়েন্দাসংস্থা সিবিআই জানায় ঘটনার দিন বিজেপি নেতারা মসজিদের কাছাকাছি মঞ্চ থেকে বক্তৃতা দিয়েছিল। মসজিদ ভেঙ্গে ফেলার এই মারাত্মক পরিকল্পনায় নেতারা জড়িত ছিল। গোয়েন্দা বাহিনী আরও জানায় মসজিদ ভেঙ্গে ফেলার আগের রাতে আদভানি ও বিজেপি নেতারা মিটিংয়ে বসে এবং মসজিদ ভেঙ্গে ফেলার সিদ্ধান্তে সায় দেয়। তাই এটি পূর্বপরিকল্পিত ও উদ্দেশ্যজনকভাবে করা হয়েছে বলে সিবিআই এর পর্যবেক্ষণ।

মসজিদ-এর জায়গায় একটি মন্দির বানানোর জন্য আদভানির নেতৃত্বে আন্দোলন শুরু হয়েছিল। কারণ তারা মনে করেন সেখানে কথিত রামমন্দির ভেঙ্গে মুঘলরা মসজিদ বানিয়েছিল। বাবরি মসজিদ ভাঙ্গার ফলে ভারত জুড়ে হিন্দু-মুসলমান দাঙ্গা লেগে গিয়েছিল। সে দাঙ্গায় দুই হাজারেরও বেশি মানুষ মারা গিয়েছিল।

অভিযুক্তদের মধ্যে উত্তরপ্রদেশের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী কল্যাণ সিংহও রয়েছেন। তবে তিনি এখন রাজস্থানের রাজ্যপালের দায়িত্বে থাকায় এখনই তার বিচার হচ্ছে না। এছাড়া শিবসেনার প্রতিষ্ঠাতা বাল ঠাকরে ও বিশ্বহিন্দু পরিষদের আচার্য গিরিরাজ কিশোরসহ ছয় আসামি মারা গেছেন।

মঙ্গলবার ভারতের সুপ্রিম কোর্টের একটি দ্বৈত বেঞ্চ এই রায় দেয়। রায়ে বলা হয়, ১৯৯২ সালে ষোড়শ শতাব্দীর বাবরি মসজিদ ভেঙে ফেলার ষড়যন্ত্র করার অভিযোগে হিন্দু জাতীয়তাবাদী দল বিজেপির শীর্ষ নেতাদের বিরুদ্ধে বিচার চলবে।

আদালত জানান, ষড়যন্ত্র মামলা বিচার চলবে উত্তরাঞ্চলীয় লক্ষ্ণৌ শহরে। বিচারের কাজ দুই বছরের মধ্যে সম্পন্ন করারও নির্দেশ দেয় আদালত।

২৫ বছর আগে বাবরি মসজিদে হামলা চালিয়েছিল হিন্দু করসেবকরা। তারা ঐতিহাসিক মসজিদটির একাংশ গুড়িয়ে দেয়।

Comments are closed.