ঝিনাইদহে তিন শতাধিক শিক্ষার্থী হাসপাতালে

স্টাফ রিপোর্টার,ঝিনাইদহঃ

ঝিনাইদহের শৈলকুপায় কৃমি নাশক ট্যাবলেট খেয়ে ম্যাস সাইকোজেনিক ইলনেস রোগে আক্রান্ত হয়েছে তিন শতাধিক শিক্ষার্থী। তাদের হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। শনিবার সকালে শৈলকুপার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা অসুস্থ হতে থাকলে তাদের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তবে চিকিৎসকরা বলছেন, কৃমিনাশক ওষুধ সেবন করে এটা হয়নি। আতংকিত হয়ে শিশুরা অসুস্থ হয়েছে।

 

শিক্ষক ও স্বজনরা জানায়, জেলা স্বাস্থ্য বিভাগের পক্ষ থেকে জাতীয় কৃমি নিয়ন্ত্রন সপ্তাহ উপলক্ষে শনিবার শৈলকুপা উপজেলার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কৃমি নাশক ট্যাবলেট খাওয়ানো হয়। প্রথমে অচিন্তপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা অসুস্থ হতে শুরু করে।

 

এ খবর ছড়িয়ে পড়লে শৈলকুপার দেবতলা, কবিরপুর, হিতামপুর, কাতলাগাড়ি, হাকিমপুর, ঝাউদিয়া ও ষষ্টিবরসহ বিভিন্ন বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা অসুস্থ হতে থাকে। তাদেরকে ভ্যান, নসিমন ও ফায়ার সার্ভিসের গাড়িতে করে শৈলকুপা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ও ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

 

খবর পেয়ে ঝিনাইদহ-১ আসনের সংদস সদস্য আব্দুল হাই, উপজেলা চেয়ারম্যান শিকদার মোশাররফ হোসেন, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ উসমান গনি, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান শামীম হোসেন ও পুলিশ প্রশাসনের লোকজন হাসপাতালে তাদেরকে দেখতে হাসপাতালে ছুটে যান।

 

শৈলকুপা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ডাঃ খন্দকার বাবর জানান, প্রচন্ড গরমের কারনে বাচ্চারা কিছুটা অসুস্থ্য হয়েছে। আতংকিত হবার কিছু নেই। চিকিৎসা দিলে সুস্থ্য হয়ে যাবে। তিনি আতংকিত না হওয়ার পরামর্শ দেন।

 

ঝিনাইদহ সিভিল সার্জন অফিসের রোগ নিয়ন্ত্রন বিভাগের চিকিৎসক ডা: আরিফ আহমেদ জানান, শিশুরা ম্যাস সাইকোজেনিক ইলনেস অর্থাৎ আতঙ্ক গ্রস্থ হয়ে হাসপাতালে আসছে। তবে আমরা তাদেরকে চিকিৎসা দিচ্ছি। তবে এতে আতঙ্কিত হবার কিছু নেই।

Comments are closed.