প্রতিটি মানুষের হাতে অস্ত্র তুলে দেব: টিগ্রে ফোর্স

ডেস্ক নিউজ:
ইথিওপিয়ার উত্তরাঞ্চলীয় এলাকা টাইগ্রেতে সরকারি বাহিনীর অত্যাধুনিক একটি ডিভিশনকে ‘সম্পূর্ভাবে ধ্বংস’ করেছে অঞ্চলটির স্বাধীনতাকামী বিদ্রোহীরা। আল জাজিরা ও রয়টার্স।

মঙ্গলবার এক টেলিভিশন বার্তায় এই দাবি করেন টাইগ্রে মিলিটারির মুখপাত্র গীতাচিউ রিডা। এসময় রিডা প্রতিজ্ঞা করে বলেন ‘মেক্লেলে শহর রক্ষা করার জন্য আমি প্রতিটি বেসামরিক লোকের হাতে অস্ত্র তুলে দেব।’

ট্রাইগ্রের রাজধানী মেক্লেলেতে প্রায় পাচঁ লাখ মানুষের বসবাস। শহরটি দখলের জন্য সেনা অভিযান পরিচালনার হুঁশিয়ারি দিয়ে রবিবার একটি টুইট করেন ইথিওপিয়ার প্রধানমন্ত্রী অ্যাবি আহমেদ। যেখানে তিনি জনগণের উদ্দেশ্যে লেখেন, ‘আমরা সেনা অভিযান পরিচালনা করতে যাচ্ছি। কাউকে মাফ করা হবে না। আপনারা নিজেদেরকে বাচাঁন।’

একই টুইটে প্রধানমন্ত্রী অ্যাবি আহমেদ টিগ্রে পিপলস লিবারেশন ফ্রন্টের (টিপিএলএফ) বিদ্রোহীদের ৭২ ঘণ্টার মধ্যে শান্তিপূর্ণভাবে আত্মসমর্পণ করার আহ্বান জানান। অন্যথায় সেনা অভিযানের হুঁশিয়ারি দেন। বলেন, ‘তোমাদের পালানোর কোনো পথ নেই। নিজেদের বাচাঁতে চাইলে আগামী ৭২ ঘণ্টার মধ্যে শান্তিপূর্ণভাবে আত্মসমর্পণ কর।’

তবে মঙ্গলবার করা রিডার এই দাবির পরিপ্রেক্ষিতে এখন পর্যন্ত কোনো প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেনি ইথিওপিয়া সরকার। অঞ্চলটিতে ইথিওপিয়া সরকার ও স্বাধীনতাকামীদের মধ্যকার রক্তক্ষয়ী যুদ্ধ চলমান থাকায় রিডার এই মন্তব্যকে যাচাই করতে পারেনি আল জাজিরা। সংবাদ মাধ্যমটি বলছে, ‘ওই এলাকায় কোনো বিদ্যুৎ সরবরাহ নেই, নেই কোনো ইন্টারনেট সংযোগ। তাই তার এই দাবি যাচাই করা অসম্ভব।’

ইথিওপিয়া সরকার ও বিদ্রোহীদের মধ্যকার চলা সপ্তাহব্যাপী সহিংসতায় প্রাণ গেছে হাজারও বেসামরিক মানুষের। প্রায় তিন লাখ শরণার্থী আশ্রয় নিয়েছেন প্রতিবেশী দেশ সুদানে। জরুরি ত্রাণ সাহায্যে পৌছাঁনোর জন্য ইতোমধ্যে জাতিসংঘ যুদ্ধ বন্ধ করার আহ্বান জানালেও কোনো পক্ষই কর্ণপাত করছে না।

Comments are closed.