পেকুয়ায় পুনর্বাসনের দাবীতে হকার্স ব্যবসায়ীদের মানববন্ধন

পেকুয়া প্রতিনিধি

কক্সবাজারের পেকুয়ায় পুনর্বাসনের দাবীতে মানববনন্ধন করেছে পেকুয়া আলহাজ্ব কবির আহমদ চৌধুরী (পেকুয়া বাজার) হর্কাস ব্যবসায়ীরা। শনিবার (২১ নভেম্বর) সকাল ৯ টার দিকে উপজেলার প্রধান বানিজ্যিক কেন্দ্র আলহাজ্ব কবির আহমদ চেীধুরী বাজারে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। এতে পেকুয়া বাজার হকার্স ব্যবসায়ীরা তাঁদের ক্ষতিপূরণসহ পুনর্বসানের দাবী তুলে ধরেন। এসময় বক্তব্য রাখেন, পেকুয়া বাজার হকার্স ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি আব্দুর রহিম বাদশা, সাধারণ সম্পাদক মো.শফি ও ইজারাদারের পক্ষে সাজ্জাদুল ইসলাম।

মানববন্ধনে হকার্স ব্যবসায়ীরা দাবী করেন, আমরা দীর্ঘ ত্রিশ বছর ধরে পেকুয়া বাজারে হকার্স ব্যবসা করে আমাদের জীবিকা নির্বাহ করি। চারশতের অধিক ব্যবসায়ী রয়েছে এখানে । কোন ধনরনের পুর্ব ঘোষনা ছাড়াই আমদের এই হকার্স থেকে উচ্ছেদ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। এমতাবস্থায় আমরা অসহায়। আমদের উচ্ছেদ করে দেওয়া হলে রাস্তায় নামা ছাড়া আমাদের অর কোন উপায় নাই। অথচ আমাদের কোন ধরণের পুরনর্বাসন দেওয়ার কোন সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি। পাশাপাশি কিছু কুচক্রী মহলের ইন্দনে আমাদের হকার্সের জায়গা থেকে উচ্ছেদ করার পায়ঁতারা করা হচ্ছে। আমদের দেশে অবৈধ অনুপ্রবেশকারী রোহিঙ্গা শরনার্থীরা অবস্থান করেছে। অথচ আমরা বাংলাদেশের স্থায়ী নাগরিক হয়েও আমাদের কোন পুনর্বাসন করা হচ্ছেনা। আমদেরকে পুনর্বাসনের পাশাপাশি নতুন ভবনে স্থান করে দিতে হবে এমনটাই দাবী তুলে ধরেন মানববন্ধনে হর্কাস ব্যবসায়ীরা।

হকার্স ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক মো.শফি বলেন, এই হকার্স ব্যবসা ছাড়া আমাদের আর কোন আয়ের উৎসব নাই। আমদেরকে উচ্ছেদ করে দিলে রাস্তায় নামতে হবে। এবষয়ে বিভিন্ন উর্ধ্বতন মহলে লিখিত আবেদন করার পরও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কুম্ভ কর্নের ঘুম ভাঙ্গাতে পারেনি। অবিলম্বে কোন ব্যবস্থা গ্রহন করা না হলে অর্ধাহারে দিন কাটাতে হবে হকার্স ব্যবসায়ীদের। চকরিয়-পেকুয়ার সংসদ সদস্য জাফর আলম এমপি মাধ্যমে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে আমদের এই একটাই দাবী আমদের পুনর্বাসন চাই।

হকার্স ব্যবসায়ী সমিতিরি সভাপাতি আব্দুর রহিম বাদশা বলেন, আমরা খুব অসহায় ব্যবসায়ী। কোন রকম দু’বেলা খেয়ে না খেয়ে দিন যাপন করি। এই মুহূর্তে আমদের উচ্ছেদ করে দেওয়া হলে রাস্তায় নেমে ভিক্ষা করেত হবে। বাংলদেশে যদি দশ লক্ষ রোহিঙ্গার স্থান হয় তাহলে আমাদর স্থান হবেনা কেন? পেকুয়ায় অনেক খাস জায়গা রয়েছে আমদের সেখানেও পুনর্বাসন করা যায়। পরবর্তী সময়ে আমদের নতুন ভবনে দোকান বরাদ্ধে অগ্রগধিকার দিতে হবে। এতে আমরা সংশ্লিষ্ট প্রসাশনের নিকট আশুদৃষ্টি কামনা করছি।

পেকুয়া বাজার ইজারাদারের পক্ষে সাজ্জাদুল ইসলাম বলেন, হকার্স ব্যবসায়ীরা দীর্ঘ ত্রিশ বছর ধরে সব ধরণের সরকারী রাজস্ব আদায় করে ব্যবসা করে আসছে। এরা অসহায়, তাদের উচ্ছেদ করা হলে না খেয়ে রাস্তায় মরতে হবে। পেকুয়ায় অনেক সরকারি খাস জায়গা রয়েছে তাদের সেখানে পুনর্বাসন কারার দাবী রাখছি।
এদিকে শনিবার সকালে আলহাজ্ব কবির আহমদ চৌধুরী (পেকুয়া) বাজারের প্রধান সড়কের পাশে জড়ো হতে থাকে হকার্স ব্যবসায়ীরা । সকাল ৯টায় প্রায় ৩শতাধিক ব্যবসায়ীদের অংশ গ্রহণে এ মানববন্ধন অনুষ্টিত হয়।

Comments are closed.