তিন কার্যদিবসে ধর্ষণ মামলার রায়

কুষ্টিয়া সংবাদদাতা:
কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলায় মাদ্রাসাছাত্রী ধর্ষণ মামলায় মাত্র তিন কার্যদিবসে রায় প্রদান করেছেন আদালত। রায়ে মাদ্রাসা সুপার মাওলানা আব্দুল কাদেরকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ও এক লাখ টাকা জরিমানা করেছেন কুষ্টিয়ার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন বিশেষ ট্রাইব্যুনালের বিচারক মুুন্সী মো. মশিয়ার রহমান।

মঙ্গল দুপুর সোয়া ১টায় আসামির উপস্থিতিতে এ রায় প্রদান করেন তিনি। এছাড়াও জরিমানার অর্থ অনাদায়ে আরো ১ বছরের জেল দেয়া হয়েছে তাকে। এতো দ্রুত সময়ে রায় দেয়ার ঘটনা জেলায় এটিই প্রথম। দেড় মাস আগে এ মামলা দায়ের করা হয়।

আদালত সূত্র জানিয়েছে, গত ৩ ও ৪ অক্টোবর মিরপুর উপজেলার পোড়াদহ ইউনিয়নের স্বরুপদহ চকপাড়া এলাকায় সিরাজুল ইসলাম দারুল উলুম মরিয়ম নেসা মহিলা মাদ্ররাসায় ১৩ বছরের এক ছাত্রীকে দুই দফায় ধর্ষণ করে মাদ্রাসার সুপার মাওলানা আব্দুল কাদের। ঘটনার পর ওই ছাত্রীর পিতা বাদী হয়ে মাদ্রাসার সুপারের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন। ওইদিন পুলিশ মাওলানা আব্দুল কাদেরকে গ্রেফতার করে। পরে আব্দুল কাদের আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী দেন। মিরপুর থানা পুলিশ তদন্ত করে মাত্র ৭ দিনের মাথায় আদালতে গত ১৩ অক্টোবর তাকে অভিযুক্ত করে চার্জশীট প্রদান করে।

এরপর গত ১২ নভেম্বর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন বিশেষ ট্রাইব্যুনালের বিচারক এ মামলার চার্জ গঠন করেন। ১৩ ও ১৪ নভেম্বর ছুটি ছিল। ১৫ নভেম্বর বাদীসহ ১৩ জনের স্বাক্ষ্য নেয় আদালত। বিচার কার্য শুরুর মাত্র তিনদিনের মাথায় আজ মঙ্গলবার দুপুর সোয়া ১টায় আদালতের বিচারক মুন্সী মো. মশিয়ার রহমান আসামির উপস্থিতিতে রায় প্রদান করে। রায়ে আব্দুল কাদেরকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড প্রদান করেন আদালত। একই সাথে তাকে এক লাখ জরিমানা করা হয়েছে।

আদালতের পিপি আব্দুল হালিম বলেন, মাত্র তিন কার্যদিবসে রায় হওয়ার বিষয়টি দেশে বিরল। দ্রুত এ রায়ের মাধ্যমে নির্যাতিত পরিবারটি ন্যায় বিচার পেয়েছে। এ রাযের মাধ্যমে আদালতের প্রতি সাধারণ মানুষের আস্থা আরো বেড়ে গেল। আগামীতে দ্রুততম সময়ের মাধ্যে এ ধরনের রায় আরো হবে বলে আমরা আশা করছি।

পুলিশ সুপার এসএম তানভীর আরাফাত বলেন,‘ মাদ্রাসাছাত্রী ধর্ষণের শিকার হওয়ার পর মামলা দায়ের করেন তার পিতা। পুলিশ দ্রুততম সময়ের মধ্যে আসামিকে গ্রেফতার করে। পাশাপাশি ৭ দিনের মধ্যে চার্জশীট দেয় আদালতে।

Comments are closed.