জেলা আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী সংসদের সভা

প্রেস বিজ্ঞপ্তি
বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ, কক্সবাজার জেলা শাখার কার্যনির্বাহী সংসদের এক সভা গত ২২ সেপ্টেম্বর বিকাল ৪ ঘটিকায় জেলা পরিষদ কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এডভোকেট সিরাজুল মোস্তফার সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক মেয়র মুজিবুর রহমানের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত হয়।

সভার আলোচ্য সূচী অনুযায়ী আগামী ২৮ সেপ্টেম্বর গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের প্রধানমন্ত্রী, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভানেত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার জন্ম দিন যথাযোগ্য মর্যাদায় পালনের সিদ্ধান্ত গৃহীত হয় এবং জেলার আওতাধীন সকল উপজেলা ও সাংগঠনিক উপজেলায় যথাযোগ্য মর্যাদায় জেলা আওয়ামী লীগ গৃহীত কর্মসূচী অনুযায়ী পালন করার নির্দেশনা প্রদান করা হয়। কর্মসূচীর মধ্যে রয়েছে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে মাল্যদান, দোয়া মাহফিল, কেক কর্তন ও আলোচনা সভা।

সভায় জেলার আওতাধীন সকল উপজেলায় সাংগঠনিক কার্যক্রম জোরদার করার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। সভায় বর্তমান সরকারের সকল উন্নয়ন কর্মকান্ড সাংগঠনিক ভাবে ব্যাপক ভাবে প্রচার ও প্রচারনার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।

সভার আলোচ্য সূচী অনুযায়ী জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মেয়র মুজিবুর রহমানের বিরুদ্ধে সাম্প্রতিক সময়ে পত্র-পত্রিকায় ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে যে সমস্ত মিথ্যা ও বানোয়াট, অপপ্রচার চালানো হচ্ছে তা নিয়ে বিস্তারিত আলোচনায় জেলা আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ বলেন, বিগত কিছু দিন যাবৎ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কক্সবাজার পৌরসভার সম্মানিত মেয়র জননেতা মুজিবুর রহমানের বিরুদ্ধে কিছু প্রিন্ট মিডিয়া, কয়েকটি ইলেক্ট্রনিক্স মিডিয়া ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে কিছু চিহ্নিত ব্যক্তি মুজিবুর রহমান, তার পরিবারবর্গ ও দলের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করার উদ্যোশে পরিকল্পিত ভাবে অপপ্রচার চালানো হচ্ছে। যা অনাকাঙ্খিত ও অনভিপ্রেত। নেতৃবৃন্দ এর তীব্র নিন্দা জ্ঞাপন করে বলেন, তথ্য প্রমানাদি ব্যতিত এবং অভিযোগের সত্যতা যাচাই না করে এ ধরনের কর্মকান্ড বিদ্বেষ প্রসুত ও মানহানিকর এবং কক্সবাজারবাসীও এটাই মনে করে। নেতৃবৃন্দ বলেন, কেউ আইনের উর্ধ্বে নয়, যে কোন প্রকৃতির ধর্তব্য অভিযোগের ভিত্তিতে যে কোন সংস্থা বা আইন প্রয়োগকারী কর্তৃপক্ষ যথাযথ ভাবে যে কোন ব্যক্তি বা সংস্থার বিরুদ্ধে তদন্ত কার্যক্রম চালাতে পারে। এতে কারো আপত্তি থাকার কথা নয়। কিন্তু তদন্ত কার্যক্রমকে ব্যাহত করার কু-উদ্দেশ্যে তদন্তাধীন সময়ে বিদ্বেষও উদ্দেশ্যে প্রনোদিত ভাবে অপপ্রচার, মন্তব্য ও সম্মানহানিকর বক্তব্য প্রদান অপরাধ সমতুল্য বিধায় তাহা সমীচিন নহে। সংশ্লিষ্ট সবাইকে আমরা হয়রানিমূলক এ ধরনের নিন্দনীয় অপকর্ম থেকে বিরত থাকার আহবান জানাচ্ছি। নেতৃবৃন্দ বলেন, প্রমাণ না হওয়া পর্যন্ত জেলা আওয়ামী লীগের কাছে ও জনগণের কাছে মেয়র মুজিবুর রহমান নির্দোষ। এই প্রেক্ষিতে যে কোন ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে জেলা আওয়ামী লীগ ঐক্যবদ্ধ ভাবে স্বোচ্ছার থাকবে। সাধারণ সম্পাদক মেয়র মুজিবুর রহমানকে রাজনৈতিক ও আইনগত সর্ব প্রকার সাহায্য সহযোগিতা প্রদানে জেলা আওয়ামী লীগ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবে। এ বিষয়ে একটি আইনগত সহায়তা কমিটি গঠনের সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।

কার্যনির্বাহী সংসদের সভায় বক্তব্য রাখেন-এড. ফরিদুল ইসলাম চৌধুরী, আশেক উল্লাহ রফিক এমপি, শাহ আলম চৌধুরী রাজা, মোঃ শফিক মিয়া, এম. আজিজুর রহমান, রেজাউল করিম, লেঃ কর্ণেল অবঃ ফোরকান আহমদ, মাহবুবুল হক মুকুল, এড. রনজিত দাশ, নুরুল আবছার চেয়ারম্যান, সাবেক এমপি আব্দুর রহমান বদি, আবদুল খালেক, আবু হেনা মোস্তফা কামাল, এড. আব্বাস উদ্দিন চৌধুরী, এড. আয়াছুর রহমান, ইউনুছ বাঙ্গালী, কমর উদ্দিন আহমদ, এড. তাপস রক্ষিত, খালেদ মোহাম্মদ, এড. মমতাজ আহমদ, এড. সোলতানুল আলম, মোঃ হোসেন বিএ, আলহাজ্ব মকসুদ মিয়া, জিয়া উদ্দিন, আলহাজ্ব সোনা আলী।

সভায় উপস্থিত ছিলেন-এড. বদিউল আলম সিকদার, এড. ফরিদুল আলম, ইঞ্জিনিয়ার বদিউল আলম, হেলাল উদ্দিন কবির, কাজী মোস্তাক আহমদ শামীম, ড. নুরুল আবছার, এম.এ. মনজুর, নুসরাত জাহান মুন্নি, আমিনুর রশিদ দুলাল, মিজানুর রহমান, এস.এম. গিয়াস উদ্দিন, আদিল উদ্দিন চৌধুরী, জি.এম. আবুল কাসেম, এড. আব্দুর রউফ, বদরুল হাসান মিল্কী, উম্মে কুলসুম মিনু, মিজানুর রহমান প্রমুখ।

Comments are closed.