কক্সবাজার জেলা আইনজীবী সমিতির নির্বাচন শনিবার

ওয়ান নিউজঃ জেলা আইনজীবী সমিতির নির্বাচন শনিবার। ইতোমধ্যে প্রার্থীদের নির্ঘুম প্রচারণা শেষ। সময় যতই ঘনিয়ে আসছে অইনজীবীদের ঘুম ততই হারাম হয়ে যাচ্ছে। প্রার্থীরা যাচ্ছেন ভোটারদের দ্বারে দ্বারে। বেড়েছে ভোটারদের কদর। আদালত অঙ্গনে বয়ে যাচ্ছে নির্বাচনী আমেজ।

চারিদিকে শুধু ব্যানার আর পেস্টুন। সমানতালে প্রচার মাধ্যমেও চলছে বিজ্ঞাপন। দম ফেলাবার সময় নেই প্রার্থীদের।

এবার প্রতিদ্বন্দ্বি দুই প্যালের প্রায় প্রার্থী শক্তিশালী। ভোটের পাল্লা কোন দিকে ভারী হচ্ছে- তা এখনো অনুমেয় নয়।

তবে, নতুন আইনজীবীদের ভোটই ফ্যাক্টর হতে পারে বলে ধারণা করা যাচ্ছে। বিষয়টি মাথায় রেখে প্রার্থীরাও যে যার মতো কৌশলে নবীন ভোটার টানতে ব্যস্ত।

শনিবার (২৫ ফেব্রুয়ারী) জেলা আইনজীবী সমিতির নির্বাচন। সকাল ১০টা থেকে বেলা ২টা পর্যন্ত জেলা বার প্রাঙ্গনে ভোট অনুষ্ঠিত হবে। নবীন প্রবীন মিলে ৬৫২ আইনজীবী প্রকাশ্যে ব্যালটে ভোটে এক বছরের জন্য নতুন নেতৃত্ব ঠিক করবে। দুই প্যানেলে ৭টি সম্পাদকীয় পদ ও ৯টি সাধারণ সদস্যপদে ৩৪ প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

আওয়ামী লীগ সমর্থিত সম্মিলিত আইনজীবী সমন্বয় পরিষদ মনোনীত প্যানেল থেকে সভাপতি পদপ্রার্থী এডভোকেট মোহাম্মদ ইছহাক-১ ও সাধারণ সম্পাদক হিসেবে এডভোকেট জিয়া উদ্দিন আহমদ।

‘ইছহাক-জিয়াউদ্দিন’ প্যানেলের সহ-সভাপতি পদপ্রার্থী নুরুল আমিন ও মোহাম্মদ জাকারিয়া, সহ-সাধারণ সম্পাদক (সাধারণ) আবদুল শুক্কুর, সহ-সাধারণ সম্পাদক (হিসাব) রাহামত উল্লাহ, পাঠাগার সম্পাদক আবুল হোছন এবং আপ্যায়ন ও সাংস্কৃতিক সম্পাদক এ.বি.এম মহিউদ্দীন।

এই প্যানেলের সদস্য পদের প্রার্থীরা হলেন- পীযুষ কান্তি চৌধুরী, আমজাদ হোসেন, আবুল কাশেম-২, মাহবুবুর রহমান, মোহাম্মদ নুরুল আজিম, খাইরুল আমিন, সোমেন দেব, মীরাজুল হক চৌধুরী ও লিপিকা পাল।

অন্যদিকে বিএনপি-জামায়াত সমর্থিত জাতীয়তাবাদী, ইসলামী মূল্যবোধে বিশ্বাসী সমমনা আইনজীবীদের মনোনীত প্যানেলের সভাপতি প্রার্থী এস.এম নুরুল ইসলাম ও সাধারণ সম্পাদক পদে মোহাম্মদ আখতার উদ্দিন হেলালী।

‘এস.এম নুরুল ইসলাম-মোহাম্মদ আখতার উদ্দিন হেলালী’ প্যানেলের সহ-সভাপতি সাদেক উল্লাহ ও রমিজ আহমদ, সহ-সাধারণ সম্পাদক (সাধারণ) মোহাম্মদ রফিকুল ইসলাম, সহ-সাধারণ সম্পাদক (হিসাব) মোহাম্মদ এনামুল হক সিকদার, পাঠাগার সম্পাদক মোহাম্মদ শামীমুল ইসলাম এবং আপ্যায়ন ও সাংস্কৃতিক সম্পাদক ছৈয়দ আলম।

সাধারণ সদস্য পদের প্রার্থীরা হচ্ছেন-আবুল কালাম ছিদ্দিকী, মোহাম্মদ আবুল আলা, সব্বির আহমদ, মোহাম্মদ ফরিদ উদ্দীন ফারুকী, মোস্তাক আহমদ চৌধুরী, ছৈয়দ আলম, মোহাম্মদ গোলাম ফারুক খান, এ.এইচ.এম শাহজাহান এবং মোহাম্মদ মাহবুবুল আলম (টিপু)।

কার্যনির্বাহী পরিষদ নির্বাচন-২০১৭ এর প্রধান নির্বাচন কমিশনার এম. শাহজাহান এডভোকেট স্বাক্ষরিত বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য নিশ্চিত হওয়া গেছে।

তরুণ আইনজীবী মোবারক হোসাইন বলেন, চেহারা বা প্যানেল বিবেচনায় নয়, দক্ষতা-যোগ্যতা বিবেচনা করে আইনজীবীরা ভোট দেবেন।

ভোটারদের মতে, কর্মদক্ষ, সাহসী, জুনিয়র আইনজীবীদের চেম্বার সংকট নিরসনে নতুন ভবন নির্মানে, জমির লীজ ডীড় সম্পাদন, প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্রুত পাঁচ কোটি টাকা আনয়ন, বেঞ্চ সংশ্লিষ্ট কর্মচারীদের দূর্নীতির লাগাম টেনে ধরা, বার ও বেঞ্চের মর্যাদাপূর্ণ  সম্পর্ক সমুন্নত রেখে বিচারপ্রার্থী অসহায় জনসাধারনের ন্যায় বিচার প্রাপ্তিতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ পরীক্ষিত আইনজীবীদের নির্বাচিত করা দরকার।

২০১৬ সালের বর্ষের কার্যনির্বাহী পরিষদের নির্বাচন ২৭ ফেব্রুয়ারী অনুষ্ঠিত হয়। এতে যৌথভাবে সভাপতি নির্বাচিত হন আবুল কালাম ছিদ্দিকী ও মোহাম্মদ ইছহাক। আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্যানেল থেকে আ.জ.ম মঈন উদ্দিন সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছিলেন।

প্রসঙ্গত, জেলা আইনজীবী সমিতি ১৯০১ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। সমিতির বর্তমান সদস্য সংখ্যা ৬৫২ জন। সেখানে নতুন অন্তর্ভুক্ত হয়েছেন ৬৭ জন।

Comments are closed.