ঝিনাইদহে ভন্ড কবিরাজের চক্রান্তে নিখোঁজ রহস্যে অসহায় সোহাগ

ঝিনাইদহ প্রতিনিধিঃ

ঝিনাইদহের হরিণাকুন্ডু থানার হিঙ্গার পাড়া গ্রমের ওহিদুল ইসলামের ছেলে সোহাগ (২০) ভন্ড কবিরাজের চক্রান্তে নিখোঁজ হয়েছেন। সোহাগের নিখোঁজের চক্রান্তে চাচা মোঃ মনির হোসেন (১৫ই ডিসেঃ) ঝিনাইদহ সদর থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেছেন। যার জিডি নংঃ- ৬৬৮।

 

চাচা মনির হোসেন সুত্রে জান গেছে, ভাতিজা সোহাগ ঝিনাইদহ সদরের ডাকবাংলা বাজারের নাথকুন্ডু গ্রামের প্ররোরচনায় আনুমানিক চার বছর পূর্বে চাকুরির উদ্দেশ্যে ভারতের ব্যাঙ্গালোরে যায়। বেশ কিছুদিন পর বাড়িতে ফিরে এসে এলো মেলো কথা বলতে থাকে। আমরা তার মাথায় সমস্যা হয়েছে বলে ডাক্তার,কবিরাজ দেখোতে দৌড়ঝাপ শুরু করি।

 

আমরা গরীব হওয়ার কারণে টাকা-পয়সা কম লাগবে ভেবে কবিরাজ দেখাতে থাকি। ঝিনাইদহ সদরের বাজার গোপালপুরের ইস্কুলের পাশে বাসা জৈনক কাঠ ব্যবসায়ী ও ভন্ড ধোঁকাবাজ কবিরাজ আব্দুল হান্নান উপদৃষ্টির ভাব হয়েছে তাই জলসার করে জ্বীন তাড়ানোর নাম করে পাঁচ হাজার টাকা হাতিয়ে নিয়েছে।

 

পরবর্তীতে ঝিনাইদহ সদরের কালীকাপুরের জৈনক মহিলা কবিরাজের কাছে গেলে উপদৃষ্টির ভাব হয়েছে বলে গরীব অসহায় মনির হোসেনের কাছ থেকে সাত হাজার টাকা হাতিয়ে নিয়ে কাজের কাজ না হলে উক্ত মহিলা কবিরাজ আবার ঝিনাইদহ সদরের মধুপুর চাপড়ী গ্রামের আরেক মহিলা কবিরাজ কদভানুর বাড়িতে পাঠিয়ে দেয়।

 

সোহাগকে দেখাতে কবিরাজের কাছে নিয়ে গেলে কবিরাজ কদভানু সোহাগকে রেখে চাচা মনির হোসেনকে নিজ বাড়ীতে চলে যেতে বলেন। চাচা মনির হোসেন কবিরাজ কদভানুকে বলে আমি রেখে গেলে সোহাগের কোন সমস্যা হতে পারে কিনা।

 

কদভানু আশা দিয়ে বলে আমার কাছে জ্বীন আছে, আমার কাছে যে আসে তার কোন সমস্যা হতে পারে না। তুমি নিশ্চিন্তে নিজের বাড়িতে চলে যাও। সোহাগ হারিয়ে বা পালিয়ে গেলে আমার কাছ থেকে বুঝে নিবা। আমি সারা রাত সোহাগকে চিকিৎসা দিব বাইরের লোক থাকলে চিকিৎসা দেওয়া যাবেনা তাই তুমি বাড়িতে চলে যাও।

 

এ কথা শুনে চাচা মনির হোসেন কবিরাজ কদভানুর কাছে সোহাগকে রেখে নিজের বাসায় ফিরে আসে। পরদিন মহিলা কবিরাজ কদভানুর কাছে সোহাগ কোথায় যানতে চাইলে ভন্ড কবিরাজ কদভানু বলে আমি সোহাগের কানে গরম রড ঠেসে ধরার পর থেকে সোহাগ কোথায় চলে গেছে বা কি হয়েছে আমি জানিনা। এর পর থেকেই সোহাগের আর কোন সন্ধান পাওয়া যাচ্ছেনা বলে জানান চাচা মনির।

 

উল্লেখ্য, এতিম সোহাগের মা, চাচা সহ বাড়ির সবাই ঝিনাইদহ জেলোর প্রশাসনের সকল স্তরের কর্মকর্তাদের কাছে আকুল আবেদন জানিয়েছেন সোহাগকে খুঁজে তার মায়ের কাছে ফিরিয়ে দিতে এবং এই সমস্ত ভন্ড কবিরাজের আইনের আউতায় এনে যথাযথ শাস্তির ব্যবস্থা করতে। যাতে এতিম অসহায় সোহাগের মত আর কেউ এই ভন্ড কবিরাজদের প্রতারণার স্বিকার না হয়।

Comments are closed.