সংরক্ষিত আসনের এমপি হচ্ছেন কানিজ ফাতেমা

ইমাম খাইর

কক্সবাজারের সংরক্ষিত আসনের এমপি হচ্ছেন জাতীয় মহিলা সংস্থার চেয়ারম্যান ও জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভানেত্রী কানিজ ফাতেমা আহমেদ।

এই পদের জন্য সম্ভাব্য প্রার্থী হিসেবে তিনি দৌঁড়ে শীর্ষে আছেন -এমনটি নির্ভরযোগ্য একটি সূত্র জানিয়েছে।

আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নীতিনির্ধারণী ফোরাম জাতীয় সংসদের সংরক্ষিত আসনের মনোনয়ন দেওয়ার কাজও ইতোমধ্যে শুরু করে দিয়েছে। সংরক্ষিত আসন প্রার্থীদের দৃষ্টি এখন ঢাকায়।

দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মহাজোটের শরিক হিসাবে জাতীয় পার্টির খুরশীদ আরা হককে সংরক্ষিত এই আসনটি ছেড়ে দেয় আওয়ামী লীগ।

কিন্তু একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে কক্সবাজারে জোটগত সিদ্ধান্তে নির্বাচন হয়নি। সে কারণে আওয়ামী লীগের প্রার্থী এবার সংরক্ষিত পদ পাচ্ছেন। ভাগ্যের দরজা খুলছে কানিজ ফাতেমার।

তবে, তিনি আগে থেকেই প্রধানমন্ত্রী ও দলের শীর্ষস্থানীয় অনেকের গুডবুকে রয়েছেন-এমনটি প্রচার আছে।

রাজনীতি ও সমাজ সেবামূলক কর্মকাণ্ডে জেলাব্যাপী পরিচিত নারী কানিজ ফাতেমা ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচনে দলের মনোনয়ন পেয়েও সামান্য ভুলের কারণে ওই নির্বাচনে অংশ নিতে পারেননি। তবু মাঠ ছাড়েননি। দলীয় কাজের পাশাপাশি সমাজ সেবামূলক কর্মকান্ডে নিজেকে সম্পৃক্ত রেখেছেন সবসময়।

আওয়ামী লীগের বেশ কয়েকজন নেতার সাথে কথা বলে জানা গেছে, কক্সবাজার জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোস্তাক আহমেদ চৌধুরীর সহধর্মীনি কানিজ ফাতেমা আহমেদ এবারের সংরক্ষিত নারী সংসদ সদস্যের তালিকাভুক্ত হয়েছেন। এই পদের জন্য তিনি সবার চেয়ে যোগ্য। তাছাড়া একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে কানিজ ফাতেমা দলের মনোনয়ন প্রত্যাশী হলেও সংরক্ষিত আসনের ইঙ্গিত পাওয়ায় চুপসে যান। একাট্টা হয়ে কাজ করেন দলের প্রার্থীর জন্য।

দলীয় সূত্রে জানা গেছে, সংসদনেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গত ক’দিন ধরে মন্ত্রিসভার সদস্যদের পাশাপাশি সংরক্ষিত নারী সাংসদের তালিকাও করছেন।

কানিজ ফাতেমাকে এর আগে দলীয় সভানেত্রী শেখ হাসিনা এবারের সংরক্ষিত নারী আসনে সদস্য করার আশ্বাসও দিয়েছিলেন।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে কানিজ ফাতেমা বলেন, আমি বঙ্গবন্ধুর আদর্শে বিশ্বাসী। আমি বঙ্গবন্ধুর সৈনিক। দলের দুঃসময়েও রাজনীতির হাল ছাড়িনি। ‘চেইন অফ কমান্ড’ বিশ্বাস করি বিধায় দলীয় যেকোনো সিদ্ধান্ত সবসময় মাথা পেতে নিয়েছি। আমি আশাবাদি এবার আমাকে মূল্যায়ন করা হবে।

Comments are closed.