সেনাবাহিনীকে চিনপিং, যুদ্ধের জন্য তৈরি থাকুন

ওয়ান নিউজ ডেক্স: সেনাবাহিনীকে আপৎকালীন ব্যবস্থা জোরদার করতে এবং যেকোনো সময়ে যুদ্ধের জন্য প্রস্তুত থাকার নির্দেশ দিয়েছেন। শুক্রবার সশস্ত্র বাহিনীর শীর্ষ কর্মকর্তাদের সঙ্গে এক বৈঠকে তিনি এ নির্দেশ দিয়েছেন চীনের প্রেসিডেন্ট শি চিনপিং।

চীনের রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা সিনহুয়া এ কথা জানিয়েছে। চিনপিং বলেন, বাড়তি চ্যালেঞ্জ ও ঝুঁকির মুখে সেনাবাহিনীকেই দেশের নিরাপত্তা ও সমৃদ্ধি নিশ্চিতে ভূমিকা রাখতে হবে।

চীনের সেন্ট্রাল মিলিটারি কমিশনের চেয়ারম্যা নপ্রেসিডেন্ট চিনপিং শুক্রবার দেশের শীর্ষ সেনাকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করেন। নতুন বছরে এটাই ছিল সেনা কর্মকর্তাদের সঙ্গে প্রেসিডেন্টের প্রথম বৈঠক।

ওই বৈঠক মূলত সৌজন্যমূলক হলেও তাতে প্রতিরক্ষাসংক্রান্ত বিভিন্ন বিষয় নিয়ে কথা হয়। সেখানেই সেনাবাহিনীর উদ্দেশে ওই বার্তা দেন প্রেসিডেন্ট। দেশের নিরাপত্তা ও সার্বভৌমত্বের ক্ষেত্রে সেনাবাহিনীর ভূমিকার কথা স্মরণ করিয়ে চিনপিং বলেন, ‘সেনারা যেন কোনো কঠিন পরিস্থিতির মুখোমুখি হতে ভয় না পায়।’

এ দিন বৈঠকে কোনো দেশের নাম উল্লেখ করেননি চিনপিং। তবে দিনকয়েক আগে তাইওয়ানের নিরাপত্তার বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্রের দায়িত্ব নির্দিষ্ট করতে ‘এশিয়া রিঅ্যাশিউরেন্স ইনিশিয়েটিভ অ্যাক্ট’কে আইনে পরিণত করতে স্বাক্ষর করেছিলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। তার জবাবে গত বুধবার তাইওয়ানের সঙ্গে চীনের পুনর্মিলন নিয়ে এবং দ্বীপরাষ্ট্রের স্বাধীনতা রক্ষার জন্য চীন তার সামরিক শক্তিকে কাজে লাগাবে বলে মন্তব্য করেছিলেন চিনপিং। স্বশাসিত তাইওয়ান নিজেদের স্বাধীন অঞ্চল বলে মনে করলেও বেইজিং তাইওয়ানকে চীনের অংশ বলেই মনে করে।

শুক্রবারের বৈঠকে চিনপিং সেনাবাহিনীকে নতুন যুগের সঙ্গে তাল মিলিয়ে কৌশল পর্যালোচনা এবং যুদ্ধের প্রস্তুতি ও তা চালিয়ে নেওয়ার দায়িত্ব নিতে বলেছেন। সিনহুয়া চিনপিংকে উদ্ধৃত করে বলে, ‘বিশ্ব আজ এমনই এক বড় পরিবর্তনের মুখোমুখি, গত এক শতাব্দীতেও যা দেখা যায়নি। সমৃদ্ধির জন্য চীন কৌশলগত সুযোগের একটি গুরুত্বপূর্ণ সময়ের মধ্যেই আছে।’

শি জরুরি অবস্থায় সেনাবাহিনীর দ্রুত প্রতিক্রিয়া দেখানোর সক্ষমতা অর্জন, যৌথ অভিযানগুলোর সক্ষমতা বৃদ্ধি ও নতুন ধরনের বাহিনীর বিকাশের ওপরও জোর দিয়েছেন।

Comments are closed.