প্রিয় তাজ উদ্দিন রাসেল ভাই আপনাকে বাঁচাতে পারিনি আমরা!!

প্রিয় তাজ উদ্দিন রাসেল ভাই আপনাকে বাঁচাতে পারিনি আমরা!! আমাদেরকে ক্ষমা করবেন ভাই!!!

কমল ভাইয়ের নির্বাচনী পথসভা ছিল কচ্ছপিয়া ইউনিয়নের মৌলভীর কাটা গ্রামে কমল ভাইয়ের বক্তব্য শেষ হওয়ার একটু আগে গর্জনিয়া বাজারে চলে আসি,আমি সাদ্দাম হোসেন ভাই,সাইদী ভাই, শাহজাহান ভাই,হেলাল সিদকার ভাই, উদ্দেশ্য ছিল গর্জনিয়া বাজারের পথসভা শেষ হওয়ার আগে কিছু খেয়ে নেওয়া, সবাই মিলে নাস্তা করলাম! বাহিরে বের হয়ে দেখি আমাদের বহরে থাকা নোহা গাড়ি দ্রুত গতিতে আসতেছে।
ডাক দিয়ে জিজ্ঞেস করলাম কি হয়েছে রামু কলেজ ছাত্রলীগ নেতা ছোট ভাই ইরফান বললো রাসেল ভাইকে রাস্তায় পড়া থাকা অবস্থায় পাইছি! ডাক্তারের এখানে নিয়ে যাচ্ছি! আপনারা আসেন সাথে সাথেই আমাদের বাইক নিয়ে নোহা’র পেছনে ছুটতে লাগলাম নাইক্ষংছড়ি হাসপাতালে নিয়ে গেলাম রাসেল ভাইকে দ্রুত ডাক্তার চেকআপ করলো ডাক্তারের চেহারা মলিন দেখে সোহেল ভাই কান্নাকাটি শুরু করলো আমরা নিঃস্তব্ধত হয়ে গেলাম ডাক্তার বললো দ্রুত কক্সবাজার নিয়ে যান! দ্রুত নাইক্ষংছড়ি হাসপাতালের এম্বুলেন্স নিয়ে কক্সবাজার দিকে রওয়ানা হলাম! খুব দ্রুত পৌছে গেলাম কক্সবাজার সদর হাসপাতালে জরুরী বিভাগে কর্মরত ডাক্তার অনেকক্ষণ চেকআপ করলো অক্সিজেন দিয়ে দেখলো! পেসার দেখলো ২বার ইসিজি করে দেখলো ফলাফল জানালো না! সাদ্দাম ভাই আর আরিফ ভাইকে ডাক্তারের রুমে নিয়ে গেল! আমি একা রাসেল ভাইয়ের নিতর দেহের পাশে দাড়িয়ে রইলাম! হাত- পা মালিশ করে দিচ্ছিলাম,মাতায় হাত দিয়ে ভাই ভাই বলে ডাকতে ছিলাম! হঠাৎ সোহেল ভাই,আরিফ ভাইয়ের কান্নার আওয়াজ বুঝতে বাকি নেই আমাদের রাসেল ভাই আর নেই চলে গেছেন আর কখনো ফিরে আসবেনা!
প্রিয় রাসেল ভাই আর কখনো হাসিমুখে বলবেনা ছোট ভাই নোমান কেমন আছো! নাস্তা করছো! রাজনীতি কেমন চলতেছে!তোমাদের কে দেখি আমি সব সময় ফেইসবুকে!
প্রিয় রাসেল ভাইকে এম্বুলেন্সে তুলে দিলাম! আমি সাইদী ভাই শাহজাহান ভাই বাইকে করে চলে আসতেছি পুরো রাস্তা কান্না করলাম এটা কি হল খোদা!
রামু’র মানুষ রিফাত ভাইয়ের মৃত্যুর শোক এখনো কাটিয়ে উঠেনি খোদা
ও আল্লাহ আজকে তাজু উদ্দিন রাসেল ভাইকে নিয়ে গেলেন!!

প্রিয় রাসেল ভাই আপনি কি জানেন আমরা আপনাকে কতবেশি ভালোবাসতাম!

মহান আল্লাহ পাক নিশ্চয়ই আপনাকে জান্নাতের বাসিন্দা করবেন! দেখা হবে ভাই আমরাও আসতেছি আপনার কাছে!!!

মোহাম্মদ নোমান 

ছাত্রলীগ নেতা রামু উপজেলা

কক্সবাজার।    

Comments are closed.