আ. লীগের নির্বাচনী অফিস সিসিটিভির আওতায় এনে দুর্বৃত্তদের চিহ্নিত করা হোকঃ কাজল

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিঃ

আওয়ামীলীগের কর্মীরা উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে নিজেদের নির্বাচনী কার্যালয়ে নিজেরা ভাংচুর, আগুন লাগিয়ে বিএনপি ও জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দায়ের, গ্রেফতার ও হয়রানি করছে মন্তব্য করে কক্সবাজার-৩ (কক্সবাজার-সদর) আসনের বিএনপি দলীয় সংসদ সদস্য পদপ্রার্থী লুৎফুর রহমান কাজল।

তিনি বলেছেন, আওয়ামীলীগের প্রতিটি নির্বাচনী কার্যালয়ে সিসিটিভি স্থাপন করে ভাংচুরকারী ও অগ্নিসংযোগকারী দুর্বৃত্তদের চিহ্নিত করে আইনের আওতায় আনা হোক। অপরাধী যেই হোক অপরাধের শাস্তি নিশ্চিত করার আহবান জানান তিনি।

শনিবার কক্সবাজার পৌরসভার ৪নং ওয়ার্ডের বৃহত্তর টেকপাড়া এলাকায় গণসংযোগ ও পথসভায় তিনি উপরোক্ত কথাগুলো বলেন।

উদোর পিন্ডি বুদোর ঘাড়ে চাপানো হচ্ছে অভিযোগ করে সাবেক এমপি কাজল বলেন, জনগণের কাছে প্রত্যাখাত হয়ে আওয়ামীলীগ অপ কৌশলের পথ বেছে নিয়েছে। কিন্তু এতে করে শেষ রক্ষা হবেনা। ধানের শীষের জনস্রোত দিনের পর দিন সমৃদ্ধ হচ্ছে। সাধারণ জনগণকে ধৈর্যশীল হওয়ার আহবান জানান তিনি।

গণসংযোগ শেষে জনতা সড়ক মোড়ে ওয়ার্ড বিএনপি সভাপতি নাজিম উদ্দিনের সভাপতিত্বে ও সাবেক জেলা ছাত্রদল সাংগঠনিক সম্পাদক শাহীনুল ইসলাম শাহীনের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত পথসভায় অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন কক্সবাজার জেলা বিএনপি সাধারণ সম্পাদক এডঃ শামীম আরা স্বপ্না, পৌর বিএনপি সাধারণ সম্পাদক রাশেদ মোহাম্মদ আলী, জেলা বিএনপি সদস্য এডঃ মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ, জামায়াত নেতা ডাঃ মোস্তাফিজুর রহমান, মমতাজুল ইসলাম, বিএনপি নেতা এডঃ ফিরোজুল ইসলাম, ছোট্ট মিয়া, জেলা যুবদল সভাপতি ছৈয়দ মোহাম্মদ উজ্জ্বল, সাবেক ছাত্রদল নেতা কাউসার আলম, জেলা যুবদল নেতা রফিকুল ইসলাম, আব্দুল্লাহ আল ফারুক ডালিম, সাহাব উদ্দিন সাফু, মোহাম্মদ মুরাদ, আব্দুল্লাহ আল মামুন রিয়াদ, আব্দুর রহমান সোহেল, আব্দুল কায়ুম প্রমুখ।

Comments are closed.