মাত্র এক ছবিতে সুচরিতা!

ওয়ান নিউজ বিনোদন ডেক্স: ছিলেন নায়িকা। এরপর মমতাময়ী মা, কখনও চরিত্রাভিনেত্রী। ক্যারিয়ারে এ পর্যন্ত তিনশতাধিক ছবিতে অভিনয় করেছেন সুচরিতা। অভিজ্ঞতার পাল্লা কতটা ভারী তা সহজেই অনুমেয়।

ব্যস্ততা তাকে ঘিরে থাকার কথা ছিল। অথচ তাকে নিয়ে নিশ্চিন্তে, নির্বিঘ্নে কাজ করার নিশ্চয়তা থাকলেও দুর্ভাগ্যবশত এ অভিনেত্রীর হাতে এখন মাত্র একটি ছবি।

শিশুশিল্পী হিসেবে অভিনয় জীবন শুরু করেছিলেন সুচরিতা। বড় হয়ে নায়িকা। পেয়েছেন জনপ্রিয়তা। একসময় অভিনয়ের স্বীকৃতিস্বরূপ পেয়েছেন জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারও। জীবনের প্রাপ্তি সবকিছুতেই পরিপূর্ণ।

কিন্তু যে মাধ্যমে কাজ করে এই প্রাপ্তি, সে মাধ্যমেই এখন বেকার এই জনপ্রিয় অভিনেত্রী। ক্যারিয়ারে তিন শতাধিক ছবিতে অভিনয় করলেও এখন তার হাতে রয়েছে মাত্র একটি ছবি। সেটিরও কাজ প্রায় শেষ।

এরপর নতুন কাজ না পাওয়া পর্যন্ত বেকারই থাকতে হবে। তার নাম ছিল হেলেন। প্রখ্যাত গীতিকার ও চলচ্চিত্রকার গাজী মাজহারুল আনোয়ার নাম বদলে রাখেন সুচরিতা। নায়িকা হিসেবে এ নামেই তার পথচলা শুরু। পেছন ফিরে তাকাতে হয়নি কখনও। অথচ এখন পেছনের স্মৃতিচারণ করেই দিনাতিপাত করতে হয় বেশি।

পুতুল খেলার বয়সেই ‘জাদুর বাঁশি’ ছবিতে অনবদ্য অভিনয় করেছিলেন সুচরিতা। জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পেয়েছেন চাষী নজরুল ইসলাম পরিচালিত ‘হাঙ্গর নদী গ্রেনেড’ ছবিতে অভিনয়ের জন্য। সুভাষ দত্ত পরিচালিত ‘কাগজের নৌকা’ ছবিতে সুচরিতার বড় বোন বেবী রিটাও অভিনয় করেছিলেন।

বড় বোনের শুটিং দেখতে গিয়েছিলেন তিনি এবং তারই বান্ধবী চম্পা। সেখানেই পরিচালক মুস্তাফিজের ‘কুলি’ ছবিতে শিশু চরিত্রে অভিনয়ের প্রস্তাব পান সুচরিতা।

এ ছবিতে অভিনয়ের পর তিনি শিশু চরিত্রে আরও অভিনয় করেন ‘নিমাই সন্ন্যাসী’, ‘অবাঞ্ছিত’, ‘রং বেরং’, ‘টাকা আনা পাই’, কত যে মিনতি’, ‘রাজ মুকুট’, ‘বাবলু’সহ আরও কয়েকটি ছবিতে।

নায়িকা হিসেবে আজিজুর রহমানের নির্দেশনায় ‘স্বীকৃতি’, দীলিপ বিশ্বাসের ‘সমাধি’ এবং অশোক ঘোষের ‘মাস্তান’ ছবিতে পরপর অভিনয় করেন। সেই যে শুরু, এরপর থেকে আজ পর্যন্ত তিনশরও অধিক ছবির অভিনেত্রী সুচরিতা। অভিজ্ঞতার ঝুলিতে যখন ঝুলছে নিশ্চয়তা, ঠিক তখন ঢাকাই ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রির দৈন্যতার কারণে তার মতো শিল্পীও হয়ে গেছেন বেকার।

এখন মাত্র একটি ছবিই হাতে রয়েছে তার। নাম ‘আমার মা আমার বেহেশত’। পরিচালনা করছেন বদিউল আলম খোকন। এ ছবিতে নাম ভূমিকায় অভিনয় করছেন তিনি। চলতি মাসেই এ ছবির কাজ শেষ হওয়ার কথা রয়েছে।

এরপর যথারীতি বেকার। এ বিষয়ে কষ্ট নিয়ে ইন্ডাস্ট্রির ব্যর্থতার কথাই বারবার স্মরণ করিয়ে দিলেন এ প্রথিতযশা অভিনেত্রী।

Comments are closed.