সরকার, ইসি এবং প্রশাসন সুষ্ঠু নিবাচনের প্রধান অন্তরায়ঃ ড. কামাল

ওয়ান নিউজঃ জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের আহ্বায়ক ও গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেন বলেছেন, জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী এখন পুলিশ। তিনি বলেন, সরকার, ইসি এবং প্রশাসন সুষ্ঠু নিবাচনের প্রধান অন্তরায়।

শুক্রবার (২১ ডিসেম্বর) বিকেলে পুরানা পল্টনের জামান টাওয়ারে ঐক্যফ্রন্টের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে তিনি এসব অভিযোগ করেন।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন বিএনপি নেতা আব্দুল আউয়াল মিন্টু, মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, গণফোরাম নেতা সুব্রত চৌধুরীসহ এক্যফ্রন্টের নেতারা।

কামাল বলেন, ঐক্যফ্রন্টকে নিবাচনের বাইরে ঠেলে দিতে বৈরি পরিবেশ তৈরি করছে সরকার।

তিনি বলেন, পুলিশ নিরপেক্ষতা ভঙ্গ করে এখন দলীয় ক্যাডারের আচরণ করছে এবং প্রশাসনও আগ্রাসী ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়েছে। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে আগামী ২৭ ডিসেম্বর রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে নির্বাচনী জনসভা করার ঘোষণা দিয়েছে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট।

তিনি আরও বলেন, যতই নিবাচন এগিয়ে আসছে ততই নির্যাতন বাড়ছে। এ ধরনের প্রশাসন দিয়ে সুষ্ঠু নিবাচন সম্ভব নয়।

ড. কামাল বলেন, এ পযন্ত ঐক্য ফ্রন্টের ১৬ জন প্রার্থীকে গ্রেফতার এবং ৫ আসনের প্রার্থীতা শূন্য ঘোষণা করা হয়েছে। তিনি এসব আসনে কমিশনের কাছে পুনঃতফসিলের দাবি করেন।

এছাড়া নির্বাচনে ইন্টারনেটে গতি কমানোকে আত্মঘাতী সিদ্ধান্ত বলে ও মনে করেন তিনি।

গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেন বলেন, সরকার নিবাচনকে প্রহসনে পরিণত করার চেষ্টা করছে। ক্ষমতায় যেতে চাইলে যান তবে জোর করে কেন। পুলিশ নিরপেক্ষ আচরণ করছে না, বতমান পুলিশ ১৬ আনাই সংবিধান পরিপন্থী কাজ করছে।

ড. কামাল সরকারকে হুশিয়ারি উচ্চারণ করে বলেন, সংবিধানকে অশ্রদ্ধা করবেন না, মাথা ঠান্ডা রাখুন, স্বেচ্চারিতা বন্ধ করুন, বিবেক দিয়ে সংবিধান মেনে কাজ করুন নইলে সংবিধান লংঘনের দায়ে বিচারের মুখোমুখি করা হবে। আমরা আর কয়েকদিন দেখবো পরে সুষ্ঠু নিবাচনের জন্য যা যা করণীয় সবই করা হবে।

Comments are closed.