সামান্য ভুল হলে নির্বাচনের ফল উল্টে যেতে পারে: সিইসি

ওয়ান নিউজ ডেক্সঃ প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নুরুল হুদা বলেছেন, ‘ফল গণনাকারীদের একটু ভুলে নির্বাচন যেন পণ্ড না হয়, সেদিকে লক্ষ্য রাখতে হবে। নির্বাচনে টেকনিক্যাল পারসনের জায়গা খুব গুরুত্বপূর্ণ।’ বুধবার সকালে আগারগাঁওয়ের ইটিআই ভবনে তিনি এ কথা বলেন।

এসময় তিনি ইলেকশন ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম (ইএমএস), ক্যান্ডিডেট ইনফরমেশন ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম (সিআইএমএস) এবং রেজাল্ট ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম (আরএমএস) প্রশিক্ষণে নির্বাচন সুষ্ঠু করার আহ্বান জানান।

সিইসি বলেন, ‘সারা দেশের ফলাফল সফটওয়্যারের মাধ্যমে আসে। সামান্য সংখ্যার ভুল হলে নির্বাচনের ফল উল্টে যেতে পারে। রান্নার সময় যেমন খাবারে লবণ না দিলে স্বাদ হয় না, ঠিক তেমনি সামান্য সংখ্যার ভুলে ফল ওলটপালট হয়ে যায়। আপনাদের দক্ষতা, মেধা ও আগ্রহ দিয়ে নির্বাচনকে সুষ্ঠু করতে হবে।’

কে এম নুরুল হুদা বলেন, ‘সুন্দরভাবে প্রশিক্ষণ গ্রহণ করতে হবে এবং মাঠে গিয়ে সঠিক দায়িত্ব পালনের মাধ্যমে আপনাদের তা প্রমাণ করতে হবে। সঠিক ফল ঘোষণা করে সঠিক ব্যক্তির কাছে, সঠিক দায়িত্ব পৌঁছে যায় এবং সঠিকভাবে দেশ যেন পরিচালিত হয়, সেটা আপনাদের খেয়াল রাখতে হবে।’

প্রশিক্ষণে অংশগ্রহণকারীদের উদ্দেশে সিইসি আরো বলেন, ‘আপনার সামান্য ভুলের কারণে ব্যাপক অরাজক পরিস্থিতি সৃষ্টি হতে পারে। তাই এ ব্যাপারে সচেতন থাকতে হবে।’

সিইসি আরো বলেন, ‘প্রত্যেক জায়গায় নির্বাচনের আমেজ, স্বতঃস্ফূর্ত পরিবেশ, মানুষের মধ্যে নির্বাচনের আগ্রহ, চিন্তা, পরিকল্পনা এগুলো দেখে আমরা অভিভূত হই। সুতরাং মানুষের সেই আগ্রহ ও আস্থার জায়গা যেন আমাদের কারো ভুলের কারণে ব্যাহত না হয়, সেটা লক্ষ্য রাখতে হবে।’

এ সময় কমিশনের সচিব হেলালুদ্দীন আহমেদ বলেন, মহামান্য হাইকোর্টের নির্দেশনা আছে। নির্দেশনা আসার কারণে আমাদের কিছু ক্ষেত্রে একোমোডেট (সমন্বয়) করতে হচ্ছে। কারণ আপনারা দেখেছেন হিরো আলম পর্যন্ত হাইকোর্ট দেখায়। হিরো আলম বলেন, নির্বাচন কমিশনকে আমরা হাইকোর্ট দেখাইয়া ছাড়ছি। বুঝেন অবস্থা।

ইসি সচিব বলেন, ও তো (হিরো আলম) স্বতন্ত্র প্রার্থী। রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে যখন গেল তার নমিনেশন বাতিল হলো। আপিল করলে সেখানেও কমিশন বাতিল করেছে। পরে হাইকোর্টে প্রার্থিতা ফিরে পেয়েছেন। তাকেও প্রতীক দেয়া হয়েছে। এ রকম ৫০ জনের ওপরে স্বতন্ত্র প্রার্থী রয়েছে। হাইকোর্ট এখন বলছে একে এটা না ওই প্রতীক দেন। এসব নিয়ে আমরা উদ্বিগ্ন ও ব্যতিব্যস্ত।

তিনি বলেন, যেখানে প্রার্থীতা চূড়ান্ত হয়ে গেছে সেখানে আমরা ব্যালট ছাপিয়ে ফেলব। কারণ আমরা চাই এক সপ্তাহ পূর্বে ব্যালটগুলো মাঠে চলে যাক। যেখানে একটু সমস্যা আছে সেখানে ব্যালট পরে পাঠাব।

অনুষ্ঠানে ইটিআই’র মহাপরিচালক মোস্তফা ফারুক, পরিচালক ফরহাদ হোসেন ও বেলায়েত হোসেন উপস্থিত ছিলেন।

Comments are closed.