ডেসটিনির অর্থপাচার মামলার সাক্ষ্যগ্রহণ পেছালো

ওয়ান নিউজঃ অর্থপাচারের অভিযোগে ডেসটিনির বিরুদ্ধে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) করা মামলায় সাক্ষ্যগ্রহণ পিছিয়েছে। সাক্ষ্যগ্রহণের জন্য আগামী ৪ জানুয়ারি (বুধবার) দিন ধার্য করেছেন আদালত।

রোববার মামলার সাক্ষ্যগ্রহণের দিন ধার্য ছিল। তবে আসামি পক্ষের আইনজীবীরা সাক্ষ্যগ্রহণ পেছানোর আবেদন করলে ঢাকার ৫ নম্বর বিশেষ জজ আখতারুজ্জামান তা মঞ্জুর করে সাক্ষ্যগ্রহণের জন্য এ দিন ধার্য করেন।

২০১২ সালের ৩১ জুলাই রাজধানীর কলাবাগান থানায় দায়ের করা মামলায় ১২ জনকে আসামি করা হয়। তদন্তে আরও সাতজনের নাম অন্তর্ভুক্ত করা হয়। মামলায় দুই হাজার ২৫৭ কোটি ৭৮ লাখ ৭৭ হাজার ২২৭ টাকা পাচারের অভিযোগে চার্জশিট দাখিল করা হয়।

মামলার উল্লেখযোগ্য আসামিরা হলেন- ডিটিপিএল ও ডেসটিনির ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) মোহাম্মদ রফিকুল আমীন, ডিটিপিএলের চেয়ারম্যান ও ডেসটিনি গ্রুপের প্রেসিডেন্ট সাবেক সেনা প্রধান লেফটেন্যান্ট জেনারেল এম হারুন অর রশিদ, ডেসটিনির চেয়ারম্যান মোহাম্মদ হোসেন।

কলাবাগান থানায় দায়ের করা আরেক মামলায় ২২ জনকে আসামি করা হয়। পরে তদন্তে আরও ২৪ জনের নাম আসামির তালিকায় যুক্ত করা হয়। মামলায় এক হাজার ৮৬১ কোটি ৪৫ লাখ ২৩ হাজার ৯৫৫ টাকা পাচারের অভিযোগে চার্জশিট দাখিল করা হয়।

এ মামলার উল্লেখযোগ্য আসামিরা হলেন- ডেসটিনির এমডি ও ডেসটিনি মাল্টিপারপাস কো-অপারেটিভ সোসাইটির সভাপতি মোহাম্মদ রফিকুল আমীন, ডেসটিনি গ্রুপের প্রেসিডেন্ট লেফটেন্যান্ট জেনারেল (অব.) এম হারুন আর রশিদ, চেয়ারম্যান মোহাম্মদ হোসেন। দুই মামলায় ৫১ আসামির মধ্যে ৪৬ জন পলাতক রয়েছেন।

২০১৪ সালের ৪ মে দুদকের উপ-পরিচালক মো. মোজাহার আলী সরদার গ্রাহকদের ৪ হাজার ১১৯ কোটি ২৪ লাখ টাকা আত্মসাৎ করে পাচারের অভিযোগে ডেসটিনির ৫১ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র (চার্জশিট) দাখিল করেন। ২০১৬ সালের ২৪ আগস্ট ঢাকা মহানগর দায়রা জজ কামরুল হোসেন মোল্লা মামলা দুটির অভিযোগ গঠন করেন।

Comments are closed.