নাইক্ষ্যংছড়িতে ‘বন্দুকযুদ্ধে রোহিঙ্গা শাহ আলম  নিহত

আবদুর রশিদ ও জাহাঙ্গীর আলম কাজলঃ

নাইক্ষ্যংছড়ি থানা’র পুলিশের সাথে বন্দুকযুদ্ধে রোহিঙ্গাদের ১ জন শীর্ষ ইয়াবা ব্যবসায়ী শাহ আলম নিহত হয়েছে। পুলিশের দাবি, বন্দুকযুদ্ধে নিহত ব্যক্তি শীর্ষ এই ইয়াবা ব্যবসায়ী ও সন্ত্রাসী দলের একজন গডফাদার ছিল। এ ঘটনায় পুলিশ কর্মকর্তাসহ পুলিশের ২ সদস্য আহত হয়েছে। নাইক্ষ্যংছড়ি থানার ওসি মুহাম্মদ অালমগীর হোসেন এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

নিহত ব্যক্তি রোহিঙ্গা ক্যম্পের ৭নং ব্লকের কালো মিয়া( প্র:) কালা চাঁনের ছেলে শাহ আলম (প্র:) রোহিঙ্গা শাহ আলম (৪৫)।
তার বিরুদ্ধে মাদক মামলাসহ বিভিন্ন থানায় একাধিক মামলা রয়েছে।

ওসি আলমগীর হোসেন জানান, ভোর রাতে নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার দক্ষিণ ঘুমধুম ইউনিয়নের সীমান্তে বাংদেশ মায়নমারের চীন মৈত্রী সড়কের গাড়ি পার্কিং এলাকা ও বন্দুকযুদ্ধে নিহত ব্যক্তির সহযোগী মুজিবুল হকের বাড়ির সংলগ্ন গহীন পাহাড়ে একদল সশস্ত্র ইয়াবা ব্যবসায়ী অবস্থানের  খবর পেয়ে এসআই জীবন চৌধুরীসহ পুলিশের একটি দল অভিযানে বের হয়, ঘটনাস্থলে পুলিশ  পৌঁছলে তাদের উপস্থিতি টের পেয়ে ইয়াবা ব্যবসায়ী ও সন্ত্রাসী দলের সদস্যরা অতর্কিত গুলি ছুড়ে পুলিশকে লক্ষ করে। আত্মরক্ষার্থে পুলিশও পাল্টা গুলি ছুড়ে।
বেশকিছু উভয়পক্ষের মধ্যে গোলাগুলির এক পর্যায়ে ইয়াবা ব্যাবসায়ী ও সন্ত্রাসীদলের সদস্যরা পালিয়ে যায়। পরে গোলাগুলি থেমে গেলে ঘটনাস্থলে ১জনকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় পাওয়া যায়। এতে পুলিশের ২ সদস্য আহত হয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে ৪০ হাজার ইয়াবা, ১টি আগ্নেয়াস্ত্র ও ৩টি গুলি উদ্ধার করে পুলিশ । থানা সুত্রে জানা গেছে, গুলিবিদ্ধ রোহিঙ্গা শাহ আলমকে নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আনা হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করে।

Comments are closed.